channel 24

সর্বশেষ

  • এবার মদীনায় 'ভোগ' ম্যাগাজিনকে ফটোশুটের অনুমতি দিলো বাদশাহ

  • ঈদের ছুটি ৩ দিনের বেশি বাড়ছে না

  • উপনির্বাচনে স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হবে: নির্বাচন কমিশন

  • আইসিটি খাতের আয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে বেসিস-জাপান ডেস্ক

  • ঢাকার চারপাশের নদীতীর রক্ষার কাজ পরিদর্শনে নৌ-প্রতিমন্ত্রী

  • জাপানে স্টেডিয়ামে গিয়ে ম্যাচ দেখার সুযোগ পেলেন দর্শকরা

  • চট্টগ্রামে সরকারি সুযোগ সুবিধার বাইরে বেসরকারি চিকিৎসকরা

  • মধ্যপ্রাচ্যের সাম্মাম ফলের বাণিজ্যিক চাষে সফল নওগাঁর চাষিরা

  • এগিয়ে যাবার মিশনে রাতে গ্রানাদার মুখোমুখি রিয়াল মাদ্রিদ

  • সাউদাম্পটন টেস্টে ইংল্যান্ডকে হারালো ওয়েস্ট ইন্ডিজ

  • নেত্রকোণায় নদীতে অবাধে চলছে বালু-পাথর তোলার মহোৎসব, ভাঙনের কবলে ঘর-বাড়ি

  • টাকা না থাকায় শিশুকে রেখে উধাও বাবা-মা; দায়িত্ব নিলেন এসপি

  • ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ভার্চুয়ালি বসলো আপিল বেঞ্চ

  • স্থবিরতা কাটতে শুরু করেছে পুঁজিবাজারে

  • করোনার অনিশ্চয়তায় মেট্রোরেল প্রকল্প

কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের রেষারেষি, সীমান্তে আটকে আছে পণ্যবাহী শত শত ট্রাক

কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের রেষারেষি, সীমান্তে আটকে আছে পণ্যবাহী শত শত ট্রাক

ভারতের কেন্দ্রীয় ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের রেষারেষিতে পেট্রাপোল সীমান্তে আটকে আছে বাংলাদেশে রপ্তানির অপেক্ষায় থাকা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যবাহী কয়েক হাজার ট্রাক। বিজেপি সরকার রপ্তানি চালুর নিদের্শনা দিলেও, করোনা ছড়ানোর অজুহাতে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেসের স্থানীয় নেতাকর্মীদের আন্দোলনে তা বন্ধ আছে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে। বিজেপির কেন্দ্রীয় এক নেতা আঙ্গুল তুলেছেন খোদ মমতা ব্যানার্জির দিকেই।

শত শত ট্রাক আটকে আছে বন্দর পেরুনোর অপেক্ষায়। কিন্তু রাজনীতির গ্যাঁড়াকলে থমকে আছে চাকা। ভারতের বনগাঁওয়ের পেট্রাপোল বন্দরে পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে শস্যবীজ, মেয়াদ ফুরাচ্ছে শিশুখাদ্যের মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের।

ভারতে ২৩ মার্চ লকডাউন ঘোষণায় বন্ধ আমদানি-রপ্তানি। কিন্তু এপ্রিলের শেষদিকে দুদেশের সরকার সিদ্ধান্ত নেয় বাণিজ্য চালুর। রাজস্ব বিবেচনায় দেশের সবচেয়ে বড় বন্দর বেনাপোল দিয়ে ৩০ এপ্রিল ১৫ ট্রাক পণ্যের চালানও আসে।

কিন্তু পরদিনই রাজ্যের শাসকদলের বনগাঁওয়ের স্থানীয় নেতারা করোনা ছড়ানোর অজুহাতে, ফের বন্ধ করে দেয় তা। যদিও বন্দর কর্তৃপক্ষ তা মানতে নারাজ। ঘটনা জেনে কেন্দ্রের স্বরাষ্ট্রসচিব পশ্চিবঙ্গের মুখ্য সচিবকে কড়া ভাষায় চিঠিও লেখে। কিন্তু জবাব মেলেনি। সাংবাদিকদের প্রশ্নও এড়িয়ে যায় পশ্চিমবঙ্গের স্বরাষ্ট্রসচিব।

আমদানিকারকরা বলছেন, এতে আর্থিক ক্ষতিতে পড়ছেন তারা। এমনকী এর প্রভাব পড়বে বাজারেও। বেনাপোলের কাস্টমস কমিশনার বলছেন, দুই দেশের নানা পর্যায়ে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছে কিন্তু কাজের কাজ হচ্ছে না কিছুই।

ভারতের বিজেপির কেন্দ্রীয় এক নেতা এই ঘটনায় আঙ্গুল তুলছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর দিকেই। দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের একটি দল বুধবার দ্বিতীয় দফায় ঘুরে গেছেন বন্দর। কিন্তু ফলাফল শূন্য।

বৈশ্বিক মহামারির সময়ে বন্ধুপ্রতীম দেশের আভ্যন্তরীণ রাজনীতির কারণে বাণিজ্যের এ ক্ষতিকে রীতিমতো দুঃখজনক বলছেন ব্যবসায়ীরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর