channel 24

সর্বশেষ

  • পাবনা-৪ উপনির্বাচনে জয় পেল আ. লীগ প্রার্থী

  • ঢাকার ক্লাবগুলোর সাথে নির্বাচনী প্রচারণায় সমন্বয় পরিষদ

  • করোনা টিকার সুষম বণ্টন করতে হবে; জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী

  • কাল শুরু ১৩ তম ফ্রেঞ্চ ওপেন

  • অলিম্পিকে ব্যয় সংকোচন নীতিতে হাঁটছে টোকিও

  • শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক দাবায় চ্যাম্পিয়ন ইন্দোনেশিয়ার সুশান্ত

  • কোয়ারেন্টিন থেকে আপাতত মুক্তি ক্রিকেটারদের

  • গণফোরাম সভাপতি ড. কামালকে ছাড়াই বিদ্রোহীদের বৈঠক

  • এমসি কলেজে ছাত্রলীগ কর্মীদের ধর্ষণ বর্বরতায় গ্রেপ্তার নেই ২৪ ঘণ্টায়ও

  • শেখ হাসিনার সরকার দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • মাদক বিষয়ক হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপের এডমিন দীপিকা

  • খুলনায় নলকূপ বসানোর গর্ত থেকে বের হচ্ছে গ্যাস

  • পাবনা-৪ উপনির্বাচনে চলছে ভোট গণনা

  • বাড়ছে নদ-নদীর পানি; শেষ সম্বল নিয়ে নিরাপদে ছুটছে মানুষ

  • গাজীপুরে লুট হওয়া শটগান ও ম্যাগজিন উদ্ধার, আটক ৬

এখনও বেশকিছু এনজিও আদায় করছে কিস্তি, বিপাকে কর্মহীন ঋণভোগীরা

এখনও বেশকিছু এনজিও আদায় করছে কিস্তি, বিপাকে কর্মহীন ঋণভোগীরা

করোনাভাইরাস মোকাবেলায়, সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এনজিও কার্যক্রমও বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু তা অমান্য করে, এখন বেশকিছু এনজিও আদায় করছে কিস্তি। যাতে বিপাকে পড়েছেন কর্মহীন হয়ে পড়া ঋণভোগীরা। প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলছেন, এসব এনজিও'র বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

করোনাভাইরাসের প্রভাবে স্থবির অর্থনীতি। সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ঘোষণা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি। এমনকি প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে, বিভিন্ন এনজিও'র কার্যক্রমও।

কিন্তু নির্দেশনা অমান্য করে, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ ও পলাশবাড়ীতে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে কিছু এনজিও। যাতে বিপাকে কর্মহীন হয়ে পড়া ঋণভোগীরা।

একই অবস্থা দিনাজপুরের হিলিতেও। করোনাভাইরাসের প্রভাবে মানুষ যখন ঘরবন্দি, তখন বেশকিছু এনজিও আদায় করছে কিস্তির টাকা।

যদিও প্রশাসনের কর্মকর্তারা বলছেন, নির্দেশনা না মানার সুযোগ নেই। গাইবান্ধার  গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা  রাম কৃষ্ণ বর্মন বলেন, গ্রামীন ব্যাংকের এনজিও থেকে তাঁরা ঋণ আদায়ের কাজ অব্যাহত রেখেছে। আমি তাঁদের ম্যানেজারকে ডেকে জিজ্ঞেস করেছি।

আর দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুর রাফিউল আলম বলেন, অনেককেই আমরা ফোন দিয়ে বলছি, তাঁরা জানান য তাঁরা জানতেন না। হয়তো আগামীকাল থেকে আর কেউ যাবে না।

বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় বন্ধ থাকবে এনজিওর কার্যক্রম, আশা ঋণ নেয়া মানুষগুলোর।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর