channel 24

সর্বশেষ

  • দেশে করোনায় ২৪ ঘন্টায় প্রাণহানি ৪, নতুন করে শনাক্ত ২৯: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

  • নারায়ণগঞ্জ সিটি লকডাউন ঘোষণা

  • কোন জেলায় কতজন করোনায় আক্রান্ত

  • করোনায় আক্রান্ত নিউইয়র্কের ব্রোঞ্জ চিড়িয়াখানার বাঘ

  • সংকটময় মুহূর্তে ঐকমত্যের তাগিদ রাজনৈতিক দলগুলোর

  • জরুরি অবস্থা জারি করতে যাচ্ছে জাপান

  • রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ে ভুল: এক শিশুর মৃত্যু

  • করোনার থাবায় অর্থনীতিতে দুরাবস্থার শঙ্কা

  • করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুদকের এক পরিচালকের মৃত্যু

  • মাদারীপুরে সদর থানার এক নারী এসআই কে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

  • আজ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ৮টি ইপিজেডে সাধারণ ছুটি: বেপজা

  • টেকনাফে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ২, পুলিশের দাবি মাদক ব্যবসায়ী

  • করোনা: লিবিয়ার অন্তর্বর্তীকালীন সাবেক প্রধানমন্ত্রী জিব্রিলের মৃত্যু

  • করোনাভাইরাস: যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি

  • জামালপুরের মেলান্দহ ও শেরপুরের শ্রীবরদীতে ৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত

ব্যাংক থেকে পৌনে দুই লাখ কোটি টাকার ঋণ নিয়েছেন পরিচালকরাই

ব্যাংক থেকে পৌনে দুই লাখ কোটি টাকার ঋণ নিয়েছেন পরিচালকরাই

ব্যাংক খাত থেকে এক লাখ ৭৩ হাজার ২৩১ কোটি টাকার ঋণ নিয়েছেন পরিচালকরাই। আবার কেউ কেউ নিয়েছেন নিজেদের মালিকানা থাকা ব্যাংক থেকেও। বিশ্লেষকরা বলছেন, এ ধরনের ঘটনা ব্যাংক খাতের জন্য হুঁমকি। এতে কতিপয় পরিচালকরা লাভবান হলেও লোকসানে পরছে ব্যাংকের সাধারণ শেয়ার হোল্ডারসহ আমানতকারীরা। এজন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তদারকির অভাবসহ রাজনৈতিক বিবেচনায় ব্যাংকের অনুমতি দেয়াকে দায়ী করছেন বিশ্লেষকরা।

ব্যাংকগুলোর মোট ঋণ নয় লাখ ৬৯ হাজার ৮৮২ কোটি টাকা। যার ১১ দশমিক ২১ শতাংশই নিয়েছেন ব্যাংক পরিচালকরা। তারা অন্যান্য ব্যাংকের পাশাপাশি নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে নিজ ব্যাংক থেকেও নিয়েছেন এসব ঋণ। সম্প্রতি সংসদে অর্থমন্ত্রীর দেয়া তথ্য মতে ২৫টি ব্যাংকের পরিচালকেরা নিজেদের ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছে প্রায় ১ হাজার ৬১৫ কোটি টাকা। আর অন্য ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছেন, প্রায় ১ লাখ ৭১ হাজার ৬১৬ কোটি টাকা।

ব্যাংকের পরিচালকদের মধ্যে নিজ ব্যাংক থেকে সবচেয়ে বেশি ঋণ নিয়েছে এবি ব্যাংকের পরিচালকেরা। পরিচালকের কাছে ব্যাংকটির পাওনা রয়েছে প্রায় ৯০৭ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। এর পরেই রয়েছে ব্র্যাক ব্যাংক। এ ব্যাংকটিতে পরিচালকদের দেনা ৩৬৩ কোটি টাকা।

ইসলামী ব্যাংকের অন্য ব্যাংকের পরিচালকদের ঋণের পরিমান প্রায় ১৯ হাজার ১৭৬ কোটি টাকা। এক্সিম ব্যাংকে এ ঋণের পরিমান প্রয় ১০ হাজার ৫১৪ কোটি টাকা। আর রাষ্ট্রি মালিকানাধীন জনতা ব্যংকে অন্য ব্যাংকের পরিচালকদের ঋণ প্রায় ১০ হাজার ১২৭ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গর্ভনর খোন্দকার ইব্রাহীম খালেদ মনে করেন, দেশের আইনে অন্য ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার সুযোগ থাকলেও নিজের ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়া বেআইনি। এতে ব্যাংকগুলোর শেয়ার হোল্ডারসহ হুমকিতে পড়েছে বিনিয়োগকারিদের অর্থ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক এই গর্ভনর বলছেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তদারকির দুর্বলতার কারণেই ঘটছে এসব ঘটনা।

রাজনৈতিক বিবেচনায় ব্যাংকের অনুমোদনের ফলাফলই হচ্ছে ব্যাংক পরিচালকদের নিয়ন্ত্রণহীন এমন ঋণ, এমনটাই মনে করছেন অর্থনীতিবিদ ড. আহসান এইচ মনসুর। তিনি বলেন, ব্যাংকের মালিকানা যাদেরকে দেওয়া হচ্ছে তাঁরা সেই জায়গার বিবেচনায় অতটা দক্ষ নয়। বর্তমান রাজনৈতিক যে প্রেক্ষাপট সেখানে এরাই রাজনীতিকে পরিচালনা করছেন। কাজেই এই প্রেক্ষাপটের পরিবর্তন না হলে, এটাকে যদি ভাঙ্গা না হয় তাহলে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় এটি ভাঙবে না।

ব্যাংকের পরিচালকদের অন্য ব্যাংক থেকে ঋণের বিষয়ে সুস্পষ্ট নীতিমালা থাকা দরকার বলেও মনে করেন তারা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর