channel 24

সর্বশেষ

  • করোনা শনাক্তে বিনামূল্যে নমুনা পরীক্ষা শুরু

  • দরকার ছাড়া বেরুলেই ফেরত পাঠানো হচ্ছে ঘরে

  • সপ্তাহ না পেরুতেই ধৈর্যহারা নগরবাসী; দরকার ছাড়াও বেরুচ্ছেন বাইরে

  • পিপিই পরে সাঈদ খোকনের ত্রাণ বিতরণ

  • মুখে মাস্ক পরে ফ্লিমি স্টাইলে ফার্মেসিতে ডাকাতি

  • স্পেনে একদিনে প্রাণহানি ৯৫০, মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে

  • বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ৪৮ হাজার ছাড়িয়েছে

  • গ্রামীণ জনপদে দূরত্ব বজায় রেখে চলাচল কতটা সম্ভব?

  • চট্টগ্রামে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে কমেছে রোগী, বন্ধ প্রাইভেট চেম্বারও

  • গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪১ জনের নমুনা পরীক্ষা: আইইডিসিআর

  • চট্টগ্রামে বেড়েছে ব্যক্তিগত যানচলাচল, নির্দেশনা মানতে চাইছেন না মানুষ

  • সংকুচিত ব্যাংকিং সেবার চাহিদা পূরণ করছে মোবাইল ব্যাংকিং

  • চট্টগ্রামে করোনার ধাক্কা দীর্ঘায়িত হলে মুখ থুবড়ে পড়বে রেস্টুরেন্ট ব্যবসা

  • মেহেরপুরে সুরক্ষা সরঞ্জাম না থাকায় লাপাত্তা চিকিৎসক

  • করোনা থাবায় হুমকির মুখে দেশের পোলট্রি শিল্প

নতুন পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অর্জনেও হোঁচট খাওয়ার শঙ্কা

নতুন পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অর্জনেও হোঁচট খাওয়ার শঙ্কা

এবারও নতুন পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা তৈরিতে খুব বেশি আমলে নেয়া হয়নি অর্থনীতির সাম্প্রতিক বাস্তবতাকে। ফলে, অর্জনে গিয়ে হোঁচট খাওয়ার শঙ্কা বরাবরের মতোই। বিশ্লেষকদের মতে, কেবল কাগজ-কলমে সাফল্যের ধারাবাহিকতা মাথায় রাখার প্রবণতা রয়েছে সরকারের। যা শেষ বিচারে গিয়ে সংকটে ফেলবে অর্থনীতিকে। যদিও, এমন যুক্তির সাথে মোটেই একমত নন পরিকল্পনামন্ত্রী।

সরকারি হিসাবে, দেশে খেলাপি ঋণ প্রায় ১ লাখ ১৮ হাজার কোটি। আর আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের হিসাবে সেই অঙ্ক প্রায় আড়াই লাখ কোটি।

অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে স্বস্তিতে নেই রপ্তানি খাত। রাজস্ব আয়ের নেতিবাচক ধারা, সরকারকে বাধ্য করছে, ব্যাংক ঋণে নির্ভরতা বাড়াতে। ফলে, মিলছে না বিনিয়োগের টাকা।

পুঁজিবাজারের দুরবস্থা দীর্ঘদিন ধরে। এক বছরে কেবল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ বাজার মূলধন হারিয়েছে ৭৫ হাজার কোটি টাকার বেশি।

বড় প্রকল্প চলছে গোটা দশেক। যাতে খরচ হওয়ার পৌনে তিন লাখ কোটির সিংহভাগই আনতে হচ্ছে বাণিজ্যিক ঋণ হিসেবে। অথচ, বাস্তবায়নে নেই প্রত্যাশিত গতি।

ভোগাচ্ছে পণ্যমূল্যের বাড়তি দাম। মধ্যবিত্তের জীবনযাত্রা এখন আগের চেয়ে সঙ্কটে।

মোটা দাগে এগুলোই অর্থনীতির বর্তমান বাস্তবতা। তাহলে, অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন সম্ভব কিভাবে?

পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, এটি একটি চলমান ব্যাপার। এটি দাঁড়িয়ে থেকে ঠিক করা যাবে না। আপনাকে দৌরাতেও হবে আবার ব্যাথাকে শণাক্ত করতে হবে। দাঁড়িয়ে গেলেই হেরে যেতে হবে।

পিআরআই এর নির্বাহী পরিচালক ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, অভিলাষ-আকাঙ্ক্ষা উচ্চ পর্যায়ের। কিন্তু সংশ্লিষ্ট যে কার্যক্রম সেগুলো নিম্নমানের। এই জায়গাগুলোতে আযদি আমরা দৃষ্টি না দেই তাহলে আমরা অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার যে ভিত্তি সে ভিত্তিটাকে আমরা সঠিকভাবে নিতে পারবো না।

অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সময়েই বাংলাদেশ বের হয়ে যাবে স্বল্পোন্নত দেশের গণ্ডি থেকে। ফলে, বহু বাণিজ্যিক সুবিধা হারাতে হবে আন্তর্জাতিক বাজারে। এমন বাস্তবতায়, ২০২০-২১ থেকে পরের পাঁচ অর্থবছর ৮ দশমিক ৩২ শতাংশ হারে গড় প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্য থাকছে নতুন পরিকল্পনায়।

অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, আমরা এখন যে পর্যায়ে আছে সেটায় কি আমাকে একটা টেকসই গ্রোথ দিতে পারবে, মনে হয় না।

পিআরআই এর নির্বাহী পরিচালক ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, প্রকৃতভাবে যদি আমরা এটাকে বাড়িয়ে সেটাকে টেকসইভাবে সাড়ে আটের মধ্যেও রাখতে পারি তাহলেও আমরা একটা বিরাট অর্জন করতে পারবো।

সিপিডির সম্মানীয় ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এইচডিজি বাস্তবায়ন, এলডীসি গ্রাজুয়েশন, মিডিলইঙ্কাম গ্রাজুয়েশন এই চ্যালেঞ্জ গুলোও বাংলাদেশ ভালভাবেই মোকাবেলা করতে পারবে।

পরিকল্পনা শেষে, দেশে চরম দারিদ্র্য নামিয়ে আনার লক্ষ্য পাঁচ শতাংশের নিচে।

গেল পাঁচ দশকে পরিকল্পনা তৈরির ক্ষেত্রে যতটা দক্ষতা দেখাতে পেরেছে বাংলাদেশ ততটা দেখাতে পারেনি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে। ফলে হোচট খেতে হচ্ছে প্রায় প্রতি ক্ষেত্রেই শেষ দিকে এসে। এমন বাস্তবতায় হাতে নেওয়া হচ্ছে পরের পাঁচ অর্থবছরের জন্য বাস্তবায়নযোগ্য অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা, যার মধ্যে অসীম সম্ভাবনা যেমন লুকিয়ে আছে তেমনি থাকছে খানিকটা শঙ্কাও।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর