channel 24

সর্বশেষ

  • কোন জেলায় কতজন করোনায় আক্রান্ত

  • করোনায় আক্রান্ত নিউইয়র্কের ব্রোঞ্জ চিড়িয়াখানার বাঘ

  • সংকটময় মুহূর্তে ঐকমত্যের তাগিদ রাজনৈতিক দলগুলোর

  • জরুরি অবস্থা জারি করতে যাচ্ছে জাপান

  • রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ে ভুল: এক শিশুর মৃত্যু

  • করোনার থাবায় অর্থনীতিতে দুরাবস্থার শঙ্কা

  • করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুদকের এক পরিচালকের মৃত্যু

  • মাদারীপুরে সদর থানার এক নারী এসআই কে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

  • আজ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত ৮টি ইপিজেডে সাধারণ ছুটি: বেপজা

  • টেকনাফে 'বন্দুকযুদ্ধে' নিহত ২, পুলিশের দাবি মাদক ব্যবসায়ী

  • করোনা: লিবিয়ার অন্তর্বর্তীকালীন সাবেক প্রধানমন্ত্রী জিব্রিলের মৃত্যু

  • করোনাভাইরাস: যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি

  • জামালপুরের মেলান্দহ ও শেরপুরের শ্রীবরদীতে ৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত

  • ইতালিতে কমছে দৈনিক মৃতের সংখ্যা

  • বিসিজি টিকা দেয়া দেশে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু হার কম

অষ্টম পঞ্চমবার্ষিক পরিকল্পনায় বিলাসী লক্ষ্যমাত্রা

অষ্টম পঞ্চমবার্ষিক পরিকল্পনায় বিলাসী লক্ষ্যমাত্রা

সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় প্রত্যাশিত অর্জন না হলেও অষ্টম পরিকল্পনায় রাখা হয়েছে বিলাসী সব লক্ষ্যমাত্রা। যেখানে প্রায় অসম্ভব উচ্চতায় নিতে হবে বেসরকারি বিনিয়োগ। এছাড়া, বিদেশি বিনিয়োগ এবং রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যও বড়। বিশ্লেষকরা বলছেন, পরিকল্পনা, অর্থনীতির সাথে সামঞ্জস্য থাকলেও বাস্তবায়নের জন্য নেয়া হয় না কার্যকর কোনো উদ্যোগ।

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে প্রাণচাঞ্চল্য বহুদিন ধরেই। সময়ের সাথে বেড়েছে অর্থনীতির আয়তন। সেই সাথে অবকাঠামো উন্নয়ন আর মাথাপিছু আয়ের সাথে উন্নত হয়েছে জীবনযাত্রার মান। কিন্তু তারপরও দুশ্চিন্তা বাড়ছে প্রতিনিয়ত।

এমন বাস্তবতায়, ২০২০-২১ থেকে পরের পাঁচ অর্থবছরের জন্য নেয়া হচ্ছে উচ্চাভিলাষী সব লক্ষ্যমাত্রা। যা অর্জন প্রায় অসম্ভব, বর্তমান বাস্তবতায়। যেমন, বর্তমানে বেসরকারি বিনিয়োগ জিডিপির অনুপাতে ২৩ শতাংশ হলেও, পাঁচ বছরে নেয়ার পরিকল্পনা সোয়া ২৮-এ। অথচ, আগের পাঁচ বছরে বাড়েনি ১ শতাংশও। অন্যদিকে, বিদেশি বিনিয়োগ টানার লক্ষ্যও বড়। যার ওপর ভর করে, দেশের ভেতরেই পাঁচ বছরে কর্মসংস্থান করতে চায় ৮৫ লাখ মানুষের। যদিও, এই সূচকেও স্বস্তি ছিল না আগের পাঁচ বছর।

দুরবস্থা সম্পদ আহরণ এবং বণ্টনেও। নতুন আইন প্রয়োগেও বাড়েনি রাজস্ব আদায়। উল্টো, কমে গেছে প্রবৃদ্ধি। এমন অবস্থায়, জিডিপির ১০ শতাংশের নিচে থাকা এই আয়কে অষ্টম পরিকল্পনার শেষ বছরে সরকার নিতে চায় সোয়া ১৬-তে। যেজন্য আস্থা রাখা হয়েছে কর প্রশাসনের সংস্কারে ওপর। এই আয়ে ভর করে, সরকার উন্নত করতে চায় বণ্টন ব্যবস্থা। যাতে, শেষ বছরে দেশের গরিব মানুষের হার নেমে আসতে পারে সাড়ে এগার শতাংশে। বর্তমানে যা সাড়ে ২০।

অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নে মোট বিনিয়োগ দরকার হবে ৭৭ লাখ কোটি টাকা। যার চার ভাগের তিনভাগই যোগান আসবে বেসরকারি উৎস থেকে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর