channel 24

সর্বশেষ

  • নাটোর ইনডোর স্টেডিয়াম নির্মাণে নয়ছয়ের অভিযোগ

  • বরগুনায় সংস্কারের অভাবে বেহাল দুইশো লোহার ব্রিজ

  • রাজধানীতে ঢাবি'র সাবেক ছাত্রের রহস্যজনক মৃত্যু

  • পদ্মাসেতুর রেল প্রকল্পে পিলারের উচ্চতা ও রাস্তার প্রশস্ততায় ত্রুটি

  • সিনহা হত্যার পর ঢেলে সাজানো হচ্ছে কক্সবাজার জেলা পুলিশ

  • ধরিত্রীকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর ৫ পরামর্শ

  • ২৯ ও ৩০ সেপ্টেম্বর বিমানের বিশেষ ফ্লাইট

  • ফুটবল নির্বাচন: ঢাকায় ভোট চেয়েছেন আসলাম-জনির সমন্বয় পরিষদ

  • অনিশ্চিত শ্রীলঙ্কা সফর, বন্ধ ক্রিকেটারদের করোনা পরীক্ষা

  • আশুলিয়ার বিএসটিআইয়ের অভিযানে নকল পণ্য জব্দ, কোম্পানি সিলগালা

  • লক্ষ্মীপুরে কলেজ ছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

  • দিনভর ভোগান্তির পর সৌদির টিকিট পেয়ে কারও কারও স্বস্তি

  • আইনজীবী সেজে বৃদ্ধ কৃষকের গরু বেচা টাকা আত্মসাৎ!

  • হাসপাতালের বর্জ্য নিয়ে ঢাকার দুই সিটি মেয়রের ক্ষোভ

  • মসজিদে বিস্ফোরণে হতাহত পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা

বাণিজ্য মেলায় প্রতিনিয়ত বাড়ছে পাটজাত পণ্যের চাহিদা

বাণিজ্য মেলায় প্রতিনিয়ত বাড়ছে পাটজাত পণ্যের চাহিদা

প্রতিনিয়ত বাড়ছে পাটজাত পণ্যের চাহিদা। ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার স্টলগুলোতেও ক্রেতাদের ভিড় পাটপণ্য কিনতে। পাটের ব্যাগ, শো-পিস, শতরঞ্জী, কার্পেট, পাটজাত পণ্যের উপর রয়েছে নানা অফার। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রপ্তানিতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে পাটজাতপণ্য। তাই এ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে, তৈরি করতে হবে আরো নতুন উদ্যোক্তা।

এক সময়ের পাটশিল্প উৎপাদন ও রপ্তানিতে ছিলো দেশের সবচেয়ে বড়খাত। সোনালী সে সময় ফুরিয়ে গেলেও, বর্তমানে বিশ্ববাজারে বাড়ছে, পাটজাত পণ্যের চাহিদা।

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলাতেও, পাটজাত পণ্যের স্টলগুলোতে ভিড় চোখে পড়ার মতো। বৈচিত্র আর ভিন্ন আমেজ নিয়ে আসায়, বেড়েছে পাটজাত পণ্যের চাহিদা।

ক্রেতারা বলছেন, আমাদের দেশীয় পণ্য তাই এটার প্রতি আমাদের আগ্রহ একটু বেশি। আর দামও হাতের নাগালে। সব থেকে বড় ব্যাপার তাঁদের পণ্যের মান দিনদিন বাড়ছে।

পাটের ব্যাগ, সো পিস, শতরঞ্জী, কার্পেট, পাটজাত পণ্যের মূল আকর্ষণ। এসব পণ্যের উপর রয়েছে নানা অফার। দামও ক্রেতাদের নাগালের মধ্যেই। তাই বিক্রিও হচ্ছে ভালো।

বিক্রেতারা বলছেন, মেলা জমে গেছে। ক্রেতা আসছেন ভালই আর সেই সাথে আমাদের বিভিন্ন অফার তো আছেই।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রপ্তানিতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে পাটজাতপণ্য। এ শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে দরকার প্রশিক্ষণ। তৈরী করতে হবে আরো নতুন উদ্যোক্তা।

জেডিপিসির প্রশাসনিক কর্মকর্তা মফিজুল ইসলাম আখন্দ বলেন, আসলে এই জায়গাটাকে অনেকদূর নিয়ে যাওয়া সম্ভব। প্রতিবছরই এটার রপ্তানি বাড়ছে। আমরা তো আছি সরকার যদি আমাদের আরও সহায়তা করেন আমরা আরো অনেকদূর এগিয়ে যেতে পারবো।

সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে পাটশিল্পে সোনালী দিন ফিরে আসবে প্রত্যাশা ব্যবসায়ীদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর