channel 24

সর্বশেষ

  • গোপীবাগের সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ জন গ্রেপ্তার; একজন আটক

  • উত্তরে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথের ইশতেহার ঘোষণা...

  • ঢাকাকে পরিবারবান্ধব ও গতিশীল করার প্রতিশ্রুতি...

  • তিলোত্তমা নগরী করতে সমন্বিত পরিকল্পনা নেয়া হবে: আতিক...

  • গোপীবাগের সংঘর্ষের ঘটনায় ৪ জন গ্রেপ্তার; একজন আটক...

  • ভরাডুবি বুঝতে পেরেই সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে বিএনপি: তাপস...

  • প্রচারণায় সমান সুযোগ চান ইশরাক, নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের অভিযোগ

  • অনিয়ম রোধসহ বিভিন্ন দাবিতে দিনাজপুর হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ের...

  • প্রশাসনিকসহ কয়েকটি ভবনে তালা দিয়েছে ছাত্রলীগ

  • রাজধানীর ওয়ারীতে ওয়াসার পানির গাড়িচাপায় স্কুলছাত্র নিহত

  • রাজধানীতে আন্তর্জাতিক নারী পাচারচক্রের ৮ সদস্য গ্রেপ্তার...

  • ২ তরুণী উদ্ধার, বিপুল পরিমাণ পাসপোর্ট জব্দ করেছে র‍্যাব

  • চীন থেকে বাংলাদেশিদের ফিরিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা: শাহরিয়ার...

  • দেশের বন্দরগুলোতে সতর্কতা জারি, মেডিকেল টিম গঠন...

  • চীনে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮১, আক্রান্ত প্রায় ৩ হাজার

  • তৃতীয় ও শেষ টি টোয়েন্টি: পাকিস্তান-বাংলাদেশ (বিকাল ৩টা, লাহোর)

মূলধারার অর্থনীতির সাথে যুক্ত হচ্ছে চীনের প্রান্তিক অঞ্চলের বাসিন্দারা

মূলধারার অর্থনীতির সাথে যুক্ত হচ্ছে চীনের প্রান্তিক অঞ্চলের বাসিন্দারা

বিশ্ববাজারে নিজেদের বাণিজ্য পরিধি আরো বাড়াতে ২০১৯ সালে সম্প্রসারিত অর্থনীতির দিকে নজর দেয় চীন। এরই ধারাবাহিকতায় দেশটির পার্বত্য অঞ্চলে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মূল ধারার অর্থনীতিতে যোগ করছে দেশটি। দরিদ্রের হার কমাতে প্রতিটি পরিবার থেকে অন্তত একজনকে কাজে নিয়োগ দেয় প্রশাসন। স্থাপন করা হয়েছে স্থানীয় বাণিজ্য কেন্দ্র। অনলাইনে পণ্য কেনাবেচায় যুক্ত হয়েছে গ্রামাঞ্চলের মানুষও।

কয়েক বছরের ধারাবাহিকতায় সম্প্রসারিত অর্থনীতির দিকে ২০১৯ সাল থেকে নজর দিচ্ছে চীন। উন্নত হয়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থাও। দুর্গম পার্বত্য অঞ্চলের বাসিন্দাদের সরিয়ে সমতলে পুনর্বাসন করেছে প্রশাসন দিয়েছে নানা প্রশিক্ষণ।

কনজো কাউন্টির প্রধান কর্মকর্তা তাসি বলেন, অর্থনৈতিক দূরাবস্থা থেকে উত্তরণে পার্বত্য অঞ্চলে বসবাসকারীদের বিভিন্ন গ্রামে স্থানান্তর করা হয়েছে। কৃষি, মাছ চাষ, গৃহপালিত পশু পালন, ঘর নির্মাণসহ বৈদ্যুতিক কাজ তাদের শেখানো হচ্ছে।

মূল ধারার অর্থনীতির সাথে সম্পৃক্ত হয়েছে প্রান্তিক অঞ্চলের মানুষ। দরিদ্রের হার কমাতে প্রতি পরিবার থেকে অন্তত একজনকে কাজে নিয়োগ দিচ্ছে প্রশাসন। প্রশিক্ষণ নিয়ে আত্মকর্মসংস্থানেও মনোনিবেশ করছেন কেউ কেউ।

গত কয়েক বছরে অর্থনীতিতে দারুণ প্রবৃদ্ধি হয়েছে। ক্রমান্বয়ে কমেছে বেকারত্ব ও দরিদ্রতা। গৃহহীনদের ঘরও দিয়েছে সরকার।

দাগজে জেলা উপপ্রধান সেওয়াং ডরজে বলেন, প্রশিক্ষিতদের নানা কাজে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। প্রত্যেকের জন্যই কাজের সমান সুযোগ রয়েছে। প্রতি পরিবার থেকে কমপক্ষে একজন এবং বড় পরিবারগুলো থেকে দুইজনকে কাজ দেয়া হচ্ছে।

ইন্ডাস্ট্রিয়াল প্রজেক্ট অব রোড কমিউনিটির পরিচালক হুরাঝবেক তুলান বলেন, সরকারের নানা পদক্ষেপের পাশাপাশি বেসরকারি উদ্যোগে অনেক কর্মসংস্থান হয়েছে। দরিদ্রদের অনেকেই ছোট ছোট ব্যবসা শুরু করেছে। নিজেদের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অন্যদেরও আয়ের ব্যবস্থা করছে তারা। দরিদ্রসীমা অতিক্রম করেছে অনেক মানুষ।

সদ্য সমাপ্ত বছরে প্রান্তিক অঞ্চলের বাসিন্দাদের জন্য চিকিৎসা, শিক্ষা, নিরাপদ পানীয়সহ সব ধরনের সেবা নিশ্চিত করেছে সরকার। এ সময়ে নানা অঞ্চলে স্থাপন করা হয়েছে বাণিজ্য কেন্দ্র। একইসাথে অনলাইনে পণ্য কেনাবেচায় যুক্ত হয়েছে গ্রামাঞ্চলের মানুষও।

ত্রয়োদশ পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় ২০২০ সালের মধ্যে দারিদ্রের হার সর্বনিম্নে নামানোর লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে প্রশাসন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর