channel 24

সর্বশেষ

  • জীবন যাত্রার ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় কক্সবাজারকে ব্যয়বহুল শহর ঘোষণা

  • আর কত সিরিজ হারলে টি-টোয়েন্টি শিখবে টিম বাংলাদেশ?

  • দুই সপ্তাহ পেছালো বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ ফুটবল

  • চট্টগ্রামে বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা: নেই কাঙ্ক্ষিত সেবা, বিদেশেমুখি হচ্ছে মানুষ

  • বাজারে নতুন চারটি ল্যাপটপ আনলো ডেল

  • জুয়া-জমির অর্থের যোগান ব্যাংকের ভল্ট থেকে! হদিস নেই সাড়ে ৩ কোটি টাকার

  • দেশে ডিজেলের কোনো সংকট নেই: বিপিসি চেয়ারম্যান

  • বান্দরবানে বন্য হাতির আক্রমণে নিহত ১

  • অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ: অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিফাইনাল ভারত

  • খুলনার আলমগীরের ব্যতিক্রমী ৫ উদ্যোগ সাড়া ফেলেছে ব্যাপক

  • বাণিজ্য মেলাকে আন্তর্জাতিক অবয়ব দেয়া কিছু প্রতিষ্ঠান

  • চাঁদপুরে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে লবণের মিল, বেকার কয়েক হাজার শ্রমিক

  • ব্যাংক থেকে পৌনে দুই লাখ কোটি টাকার ঋণ নিয়েছেন পরিচালকরাই

  • ভারতের নাগরিকত্ব আইনকে 'বৈষম্যমূলক ও বিপজ্জনক' আখ্যা দিলেন ইউরোপীয় পার্লামেন্ট

  • শীত-বৃষ্টি উপেক্ষা করে শেষ মুহূর্তের প্রচারণায় প্রার্থীরা

খুলনায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলে ৫ বছরে রপ্তানি আয় কমেছে ৮০ শতাংশ

খুলনায় রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলে ৫ বছরে রপ্তানি আয় কমেছে ৮০ শতাংশ

খুলনার রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ৯টি পাটকলে গেল পাঁচ বছরে রপ্তানি আয় কমেছে প্রায় ৮০ শতাংশ। প্রত্যাশিত আয় না হওয়ায় পাট কেনা এবং শ্রমিকদের মজুরি নিয়ে সঙ্কটে পড়েছে বিজেএমসি। এতে ক্ষোভ বাড়ছে শ্রমিকদের মাঝে। যদিও কর্তৃপক্ষ বলছে, আন্তর্জাতিক বাজারে চাহিদা কমে যাওয়ায় সংকট তৈরি হয়েছে।

দেশের পাটপণ্যের স্বর্ণখনি বলা হতো খুলনাকে। একটা সময় যেখান থেকে আসতো এই খাতের রপ্তানি আয়ের সিংহভাগ। সেই সাথে কর্মসংস্থান তৈরিতেও এগিয়ে ছিল দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের জেলাটি। কিন্তু সময়ের সাথে ফিকে হয়ে গেছে সোনালী সেই অতীত।

বর্তমানে রাষ্ট্রীয় মালিকানার ৯টি কল চালু আছে খুলনায়। যেগুলো থেকে ২০১৪-১৫ অর্থবছরে পাটজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছিল ৫৩ হাজার ৫৫২ টন। অথচ মাত্র ৫ বছরের ব্যবধানে তা কমে দাঁড়িয়েছে পাঁচ ভাগের একভাগে।

ফলে রপ্তানি আয়ও ৩৭৩ কোটি টাকা থেকে নেমে গেছে ১৬০ কোটিতে। যার পেছনে বড় কারণ হিসেবে আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্কট এবং চাহিদা কমে যাওয়াকে দুষছে বিজেএমসি।

রপ্তানির পাশাপাশি নিজস্ব সঙ্কটও ঘনীভূত হচ্ছে কলগুলোতে। যেমন আয় কমে যাওয়ায় সময়মতো মজুরি পরিশোধ করতে পারছে না শ্রমিক- কর্মচারিদের। ফলে প্রায় ৪ মাসের বকেয়া দাঁড়িয়েছে ৫৫ কোটি টাকা।

অন্যদিকে নগদ টাকা না থাকায় পাটও কিনতে পারছে না সময়মতো। যেমন চলতি অর্থবছরের প্রথম পাঁচ মাসে কেনা গেছে লক্ষ্যমাত্রা চার ভাগের একভাগ। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে উৎপাদন পর্যায়ে।

খুলনার রাষ্ট্রীয় পাট কলগুলোতে বর্তমানে কাজ করছে ত্রিশ হাজারের বেশি শ্রমিক।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর