channel 24

সর্বশেষ

  • ফের উত্তপ্ত নির্বাচন কমিশন, কর্তৃত্ব নিয়ে সিইসি-কমিশনারদের বাকবিতণ্ডা

  • পাকিস্তানে ফিরলো টেস্ট ক্রিকেট

  • চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: রাতে মুখোমুখি বায়ার্ন মিউনিখ-টটেনহ্যাম

  • আইসিজেতে মামলার এখতিয়ার নেই গাম্বিয়ার: মিয়ানমারের আইনজীবী

  • রাজ্যসভায়ও নাগরিকত্ব বিল পাশ; অগ্নিগর্ভ আসাম-ত্রিপুরায় সেনা মোতায়েন

  • বিজয়ীর বেশে দেশে ফিরলো দশ স্বর্ণজয়ী আর্চারি দল

  • খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য রিপোর্ট সুপ্রিম কোর্টে জমা; জামিন শুনানি কাল

  • গরু ছাগল চিনলেই চালক, দায়িত্বশীলদের কথা এমন হতে পারে না: হাইকোর্ট

  • আখাউড়া সীমান্তে নারী ও শিশুসহ ৯ রোহিঙ্গা আটক

  • বনানীতে মাটি চাপা অবস্থায় চীনা নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার

  • চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

  • কেরানীগঞ্জে অগ্নিদগ্ধ ৩৩ জন ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি, কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

  • খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি ঘিরে আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা জোরদার

  • ইলিয়াস কাঞ্চনের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের আন্দোলন নোংরামি: হাইকোর্ট

  • শারীরিক প্রতিবন্ধকতা দমাতে পারেনি দুই ভাই-বোনকে

জানুয়ারিতে আরেক দফা বাড়তে পারে বিদ্যুতের দাম

জানুয়ারিতে আরেক দফা বাড়তে পারে বিদ্যুতের দাম

জানুয়ারি থেকে আবারও বাড়তে পারে বিদ্যুতের দাম। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড এবং বিভিন্ন বিতরণ কোম্পানিগুলোর দাম সমন্বয়ের প্রস্তাবে ২৮ নভেম্বর থেকে গণশুনানি শুরু করবে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন। বিদ্যুৎ সচিব বলেছেন, উৎপাদন ব্যয় বাড়ায় দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। অন্যদিকে ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা মনে করেন, শুধুমাত্র ব্যবসার উদ্দেশ্যে বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছে সরকার।

সরকারি ও বেসরকারি উৎস থেকে উৎপাদিত সব বিদ্যুৎ একসাথে কিনে নেয় বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)। পরে তাদের কাছ থেকে তা কিনে গ্রাহকদের সরবরাহ করে বিতরণকারী কোম্পানিগুলো। পিডিবির মতে, চাহিদার সাথে তাল মিলিয়ে বাড়াতে হচ্ছে উৎপাদন। তাই বাড়ছে খরচ।

পিডিবি'র হিসাবে ২০২০ সালে উৎপাদন ও বিক্রির মাঝে ফারাক হবে সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকারও বেশি। এই টাকার সংস্থানে তাদের চোখ গ্রাহকদের দিকে। বিষয়টি তুলে ধরে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে দাম সমন্বয়ের প্রস্তাব দিয়েছে তারা। পয়লা জানুয়ারি থেকেই নতুন দর কার্যকর চায় পিডিবি।

পিডিবি চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ বলেন, 'আমাদের যে উৎপাদন খরচ রয়েছে সেটার সাথে সামঞ্জস্য আনতে হবে। আপনারা জানেন সম্প্রতি গ্যাসের দাম ৪০ শতাংশ বাড়িয়েছে, আমরা বলেছি এটার সাথে এডজাস্ট করে আমাদের ট্যারিফটা পুননির্ধারণ করা যেতে পারে।'

পিডিবি'র পাইকারি দাম সমন্বয়ের প্রস্তাবের পরপরই বিতরণ কোম্পানিগুলোও প্রস্তাব দিয়েছে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে। তবে ঠিক কী হারে বৃদ্ধি হবে, সেটি নির্দিষ্ট করা হয়নি প্রস্তাবে। যদিও নথিপত্র পর্যালোচনায় দেখা যায়, এ হার হতে পারে ২০ শতাংশের মতো।

বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস বলেছেন, আগামী বছর যে পরিমাণ উৎপাদন খরচে বাড়বে তা সমন্বয়ে হয় সরকারকে ভর্তুকি দিতে হবে নতুবা আদায় করতে হবে গ্রাহকদের কাছ থেকেই।

তিনি বলেন, বিদ্যুৎতের উৎপাদন খরচ যেটা আমরা বলছি, আমাদের গত ছয় মাসের এভারেজ খরচ হচ্ছে প্রায় ৫.৮৮ টাকা। আমরা বিক্রি করছি ৪.৮৫ টাকা। অর্থাৎ প্রতি ইউনিটে ১ টাকার বেশি ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। এটা আমরা পাবো কোথা থেকে? আমাদের ভর্তুকি দিতে হবে না হয় জনগন থেকে নিতে হবে।'

সবশেষ ২০১৭ সালের নভেম্বরের বিদ্যুতের দাম বাড়ে। কয়েকমাসে আগে গ্যাসের দাম বাড়লেও বিদ্যুতে তার প্রভাব পড়বে না বলে জানিয়েছিলো সরকার। ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা অধ্যাপক শামসুল আলমের মতে, লাগামহীন ব্যবসার উদ্দেশ্যই বিদ্যুতের উৎপাদন বাড়ানোর দায় নিতে হচ্ছে গ্রাহকদের।

খুচরা ও পাইকারি পর্যায়ে দাম সমন্বয়ের প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি শুরু হবে ২৮ নভেম্বর থেকে। যা শেষ হবে ৩ ডিসেম্বর। আইন অনুযায়ী এর তিন মাসের মধ্যে আদেশ দেবে এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন।

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর