channel 24

সর্বশেষ

  • ২ মাস পর চালু হল পুঁজিবাজারে লেনদেন; সূচকে ইতিবাচক ধারা

  • কুষ্টিয়ায় নিজে রান্না করে অসহায় মানুষকে খাবার দিচ্ছেন কলেজ ছাত্রী

  • জিপিএ-৫ না পাওয়ায় ছাত্রীর আত্মহত্যা

  • স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলাচল শুরু

  • এসএসসির ফলাফল এসএমএস ও অনলাইনে, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নেই উল্লাসের রঙ

  • ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রিভলবার ও গুলিসহ যুবলীগ নেতা আটক

  • চট্টগ্রামে রাস্তায় নেমেছে বাস; বাড়তি ভাড়া আদায়

  • ঝিনাইদহে পুকুর থেকে দুই ভাই বোনের মৃতদেহ উদ্ধার

  • চট্টগ্রামে চিকিৎসা না পেয়ে মারা গেলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক

  • রাষ্ট্রপতির ক্ষমায় ফাঁসি মওকুফ পাওয়া আসলাম আবারও হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

  • ভার্চুয়াল কোর্টে ১০ কার্যদিবসে ২১ হাজার আসামির জামিন

  • করোনায় এনটিভির অনুষ্ঠান বিভাগের প্রধান মোস্তফা কামালের মৃত্যু

  • এসএসসিতে চট্টগ্রামে পাশের হার উর্ধ্বমুখী, পাশ করেছে ৮৪.৭৫

  • এখনই খুলছে না শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান: প্রধানমন্ত্রী

  • গণপরিবহনের ভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন

দেশে ডলারের কৃত্রিম সংকট

দেশে ডলারের কৃত্রিম সংকট

বেসরকারি খাতে বড় ধরনের আমদানি দায় পরিশোধ এবং দুর্নীতিবিরোধী সাম্প্রতিক অভিযানকে কেন্দ্র করে, ডলারের কৃত্রিম সংকট তৈরি হয়েছে। খোলাবাজারে ডলার বিক্রি হচ্ছে ৮৭ টাকারও বেশি দরে। তবে ব্যাংকাররা বলছেন, ব্যাংকিং চ্যানেলে ডলারের সংকট নেই। যে কারণে গত এক মাসে কোনো ডলার বিক্রি করেনি বাংলাদেশ ব্যাংক।

পদ্মা সেতুর কিংবা অন্যান্য মেগা প্রকল্পের যন্ত্রাংশ আমদানি। এসবের জন্য যথেষ্ট পরিমানলের বৈদেশিক মুদ্রার জোগান আছে ব্যাংকিং চ্যানেলে। তার পরও খোলা বাজারে হঠাৎ করেই দেখা দিয়েছে ডলার সংকট। ব্যাংকাররা বলছেন, বেসরকারি খাতে আমদানি দায় পরিশোধে কিছু চাহিদা বাড়লেও তা তীব্র নয়।

অগ্রণী ব্যাংকের এমডি  শামসউল- ইসলাম বলেন, আমরা এ পর্যন্ত পদ্মা সেতুকে ১ বিলিয়ন দিয়েছি। কিন্তু এর মধ্যে ১ ডলারও বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে আনিনি। তবে এলএনজি আনার পরে কিছুটা চাপ রয়েছে।

সদ্যবিদায়ী ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ব্যাংগুলোর কাছে ২৩৩ কোটি ৯০ লাখ ডলার বিক্রি করেছে, কেন্দ্রীয় ব্যাংক। গত তিন মাসের পরিসংখ্যান বলেছে, ডলারের চাহিদা গত বছরের মতো তীব্র নয়। গত জুলাই মাসে বিক্রি করে ৩ কোটি ৬০ লাখ ডলার, আগস্টে বিক্রি করে ২ কোটি ৩০ লাখ ডলার। সেপ্টেম্বরে কোন ডলার বিক্রি করেনি বাংলাদেশ ব্যাংক।

এবিবি ব্যাংকের সভাপতি সৈয়দ মাহবুবর রহমান বলেন, মুদ্রার প্রচলন কম থাকায় ডিমান্ড বেশি হতেই পারে।

হঠাৎ করে খোলা বাজারে ডলারের সংকট বাড়ার কারণ হিসেবে ব্যাংকাররা বলছেন, সাম্প্রতিক দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের ফলে একটি গোষ্ঠির মধ্যে বিদেশে যাওয়ার প্রবণতা বেড়ে গেছে। আবার অনেকেই টাকা পরিবর্তন করে ডলার রাখাকে নিরাপদ মনে করছেন। এর প্রভাবেই দুই মাসের ব্যবধানে খোলা বাজারে টাকার বিপরীতে ডলারের দর বেড়েছে প্রায় ১ টাকা ৭০ পয়সা।

ব্যাংকিং চ্যানেলে সংকট না থাকায় ও রেমিট্যান্সে প্রনোদনা চালু হওয়ায় ডলারের দাম স্থিতিশীল হয়ে আসবে বলেও মনে করছেন ব্যাংকার এবিবি ব্যাংকের সভাপতি সৈয়দ মাহবুবর রহমান।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর