channel 24

সর্বশেষ

  • রিজেন্ট চেয়ারম্যান সাহেদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে মামলা

  • মালদ্বীপে বকেয়া বেতনের দাবিতে পুলিশের সাথে শ্রমিকদের সংঘর্ষ, ৩৯ বাংলাদেশি আটক

  • পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি বিধায়কের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

  • থমকে যাওয়া সেই নৌপথে আবারও দুরন্ত গতিতে ছুটবে জলযান

  • সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

  • দু'বছর ধরে লাইসেন্স ছাড়াই লাজ ফার্মার ব্যবসা

  • জাভি হার্নান্দেজই হচ্ছেন বার্সেলোনার কোচ: ক্লাব প্রেসিডেন্ট

  • আগামী মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলতে বাধা নেই ম্যান ইউ'র

  • টাকা চাইলেই পাওনাদারদের ওপর নামতো জেকেজির নির্যাতনের খড়গ

  • বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, ১০টি নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার উপরে

  • হজ্জ্ব ক্যাম্পে কোয়ারেন্টিন শেষে বাড়ি ফিরলো ৯৬ কুয়েত প্রবাসী

  • সর্দিজ্বর, কাশি ও শ্বাসকষ্টে ৬ জনের মৃত্যু

  • ৭ মার্চকে 'জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস' ঘোষণার প্রস্তাব মন্ত্রিসভায় সম্মতি

  • লাজ ফার্মায় র‌্যাবের অভিযান

  • সাবরিনার কাছে রিমান্ডে মিলতে পারে ভুয়া করোনা সনদ বাণিজ্যের তথ্য

থামছেই না পুঁজিবাজারে দরপতন

থামছেই না পুঁজিবাজারে দরপতন

থামছেই না শেয়ার বাজারের দরপতন। গেলো ফেব্রুয়ারি থেকে পুঁজিবাজারে যে নেতিবাচক ধারা শুরু হয়েছিলো, তা এখনও অব্যাহত আছে। ফলে অনেক শেয়ারের দর ও ডিএসইর প্রধান সূচক নেমে এসেছে, তিন বছরের সর্বনিম্নে। বিশ্লেষকরা বলছেন, সুশাসনের অভাব ও তারল্য সংকটের কারণে পুঁজিবাজার এ অবস্থায়। বাজারে আস্থা ফেরাতে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ তাদের।

দেশের শেয়ারবাজার এখন অনেকটাই প্রাণহীন। বছরের দ্বিতীয় মাস থেকে যে দরপতনের শুরু, তা অব্যাহত আছে এখনও।

চলতি বছরের পয়লা জানুয়ারি, প্রধান সূচক ৫ হাজার ৩৮৫ পয়েন্ট নিয়ে শুরু হয়, ডিএসইর লেনদেন। উর্ধ্বমুখি প্রবণতায় মাস শেষে যা দাঁড়ায় ৫ হাজার ৮২১ পয়েন্টে। অর্থ্যাৎ ওই মাসে সূচক বাড়ে ৪৩৬ পয়েন্ট। এরপরই শুরু দরপতন।

ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও এপ্রিল- তিন মাসের টানা দরপতনে সূচক কমে ৬১৯ পয়েন্ট। নানা তৎপরতায় পরের দুমাসে সূচক কিছুটা বাড়লেও, তা স্থায়ী হয়নি। জুলাইয়ের ফের বড় দরপতনের ধারায় ফেরে ডিএসইর সূচক। নেমে আসে ৫ হাজার পয়েন্টে। যা গত প্রায় তিনবছরের সর্বনিম্ন।

দেশের ইতিবাচক অর্থনৈতিক সূচকের মাঝেও কেন পুঁজিবাজারের এ নিম্নমুখিতা? বাজার বিশ্লেষকরা জানান, অর্থবাজারে তারল্য সংকট ও সুশাসনের অভাবেই দাঁড়াতে পারছে না পুঁজিবাজার।

ডিবিএ সাবেক সভাপতি আহমেদ রশীদ লালি বলেন, প্রধান সমস্যাটা হয়েছে মুদ্রা বাজারে। মুদ্রাবাজারের কঠোরতার প্রভাব পুঁজিবাজারে পড়ছে।

বাংলাদেশ সিকিরিউটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, 'আস্থাটা সবচেয়ে বড়। যদি আস্থা থাকে তাহলে পুঁজিবাজার ভালো চলবে। আর আস্থা না থাকলে বড় ধরণের বিনিয়োগ হবে না।'

বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফেরানোর জন্য ভালো কোম্পানিকে তালিকাভুক্ত করার পরামর্শ বিশ্লেষকদের। সেইসাথে অর্থবাজারের তারল্য সংকটের সমাধানে সমন্বিত পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ তাদের।

অর্থনীতিবিদ ও পুঁজিবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ বলেন, 'ভালো প্রতিষ্ঠান নিয়ে আসা, করপোরেট কর কমানো ও তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বয় আনা গেলে পুঁজিবাজার ভালো হবে।'

ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী জানান, ভালো শেয়ারগুলোতে বিনিয়োগ করলে ভালো হবে। হুজুগে কিংবা অন্যের কথায় বিনিয়োগ না করারও পরামর্শ বিশ্লেষকদের।

নিউজটির ভিডিও-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর