channel 24

সর্বশেষ

  • পরের মৌসুমে মেসির বার্সা ছাড়ার গুঞ্জন

  • ইংলিশ লিগে ম্যান সিটিতে বিধ্বস্ত লিভারপুল

  • যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে সর্বোচ্চ ৫৫ হাজার করোনায় আক্রান্ত

  • চীনের সঙ্গে বিরোধপূর্ণ লাদাখ সীমান্ত পরিদর্শন করলেন মোদী

  • আধুনিকায়নের পর ফের চালু হবে বন্ধ পাটকল: শ্রমপ্রতিমন্ত্রী

  • দেশে করোনায় আরও ৪২ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩১১৪

  • বাজেটের অর্থ ছাড় হলে পাটকল শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ: পাট মন্ত্রী

  • কাদা-পানিতে চলাচলের অনুপযোগী নওগাঁর গ্রামীণ সড়কগুলো

  • মধ্যরাত থেকে লকডাউন হচ্ছে পুরান ঢাকার ওয়ারি

  • কোরবানির অনলাইন হাট, শুরু হয়েছে ভার্চুয়াল মার্কেটের প্রস্তুতি

  • জ্বর-সর্দি ও শ্বাসকষ্টে দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০ জনের মৃত্যু

  • বিমান বাহিনীতে যুক্ত হল নাইট ভিশন গগলস প্রযুক্তি

  • খুলনায় চুরির মামলায় এক আসামির জায়গায় কারাগারে অন্যজন

  • দেশের করোনা ভাইরাসও ইউরোপ-আমেরিকার মত দ্রুত সংক্রমণশীল

  • লিবিয়ার সুমদ্র থেকে নারী ও শিশুসহ ১৭৪ অভিবাসী উদ্ধার

'দুই তৃতীয়াংশ মানুষ মনে করেন, বাজেটের ফলে নিত্যপণ্যে দাম বাড়ে'

'দুই তৃতীয়াংশ মানুষ মনে করেন, বাজেটের ফলে নিত্যপণ্যে দাম বাড়ে'

দুই তৃতীয়াংশ মানুষই মনে করেন, বাজেটের ফলে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বাড়ে। দরিদ্র ও মধ্যবিত্তদের ৩৮ শতাংশ বাজেটে কৃষি ভর্তুকির দাবি করেছেন। ব্র্যাকসহ তিনটি বেসরকারি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানের খানা জরিপে উঠে এসেছে এমনই তথ্য। প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, ভর্তুকি দিয়ে হলেও গরীব ও কৃষকদের কম সুদে ঋণ দেয়া উচিত।

কয়েক বছর ধরেই সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনির আকার বাড়িয়ে গরীব মানুষকে সরাসরি সহায়তা করছে সরকার। অর্থনীতির আকার বাড়লেও সরকারি হিসাবেই বাড়ছে ধনী আর দরিদ্রের আয় বৈষম্য। সাথে কর্মসংস্থানের সমস্যা বিষয়টিকে করে তুলছে অনেকটাই অসহনীয়।

দরিদ্র ও মধ্যবিত্তদের মধ্যে প্রায় ৫ হাজার খানা বা পরিবারে বাজেট নিয়ে জরিপ চালিয়েছে কয়েকটি বেসরকারি উন্নয়ন ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান। ব্র্যাক, উন্নয়ন সমন্বয় এবং আই-সোশ্যালের করা এই জরিপে, সাধারণ মানুষের দুই-তৃতীয়াংশই বলছেন, বাজেটের ফলে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি পায়। 

দিন দিন উৎপাদন বাড়ায় সাফল্যের ঢেঁকুর তোলেন সরকারি কর্তাব্যক্তিরা। কিন্তু অর্থনীতিতে আতর্নাদ হিসেবে বাড়ছে আয় বৈষম্য। কিন্তু কেন?

গবেষণা প্রতিবেদনের ওপর আলোচনায় উঠে আসে, দরিদ্র মানুষের ব্যাংকিং সেবা নিয়েও। বড়লোকরা যেখানে বিভিন্ন ভাবে কম সূদে ঋণ পান সেখানে গরীবের বেলায় বেশ কঠোর ব্যাংকওয়ালারা।

বর্তমানে ক্ষুদ্র ঋণ থেকে বা সাধারণ ব্যাংকিং সেবায় ১০ থেকে ৩০ শতাংশ সূদে ঋণ পান দরিদ্র ও কৃষকরা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

বিজনেস 24 খবর