channel 24

সর্বশেষ

  • করোনা ভাইরাসে মৃত্যু হার বেশি বৃদ্ধদের; আক্রান্ত ৩ হাজার স্বাস্থ্যকর্মী

  • বেত্রাঘাতের প্রতিশোধে শিক্ষক খুনে একজনের মৃত্যুদণ্ড

  • ‘কচুরিপানা খাওয়া’ নিয়ে বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী

  • রাজধানীর আরামবাগে ফ্ল্যাট থেকে বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার

  • স্মার্ট এগ্রোরোবট উদ্ভাবন করেছেন ২ শিক্ষার্থী

  • টানা পাঁচদিন পর ফের পতন পুঁজিবাজারে

  • ফজলে কবিরকে গভর্নর পদে চুক্তিতে নিয়োগ

  • ময়মনসিংহে যুব বিশ্বকাপজয়ী রাকিবুলকে সংবর্ধনা

  • মোংলা বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে ৬ হাজার ১৪ কোটি টাকা বরাদ্দ

  • রাজধানীর ইএমকে সেন্টারে 'জীবনানন্দ উৎসব'

  • ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ ৯৪ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা

  • তারেক রহমানসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

  • দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সেনাবাহিনী সবসময় প্রস্তুত: সেনাপ্রধান

  • অটোরিকশা থেকে ছুড়ে ফেলা শিশুটিকে বাঁচাতে চিকিৎসক-নার্সদের প্রাণান্ত চেষ্টা

  • চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: নক আউটে পর্বে মাঠে নামছে লিভারপুল-অ্যাতলেটিকো, পিএসজি-বরুশিয়া

ব্ল্যাক হোল বা কৃষ্ণগহ্বরের প্রথম ছবি প্রকাশ

ব্ল্যাক হোল বা কৃষ্ণগহ্বরের প্রথম ছবি প্রকাশ

ব্ল্যাক হোল বা কৃষগহ্বরের প্রথম ছবি প্রকাশ করেছেন জ্যোর্তিবিজ্ঞানীরা। বুধবার (১০ এপ্রিল) সকালে ব্ল্যাক হোলের এই ছবি বিশ্বের কাছে প্রকাশ করা হয়। যে ছবি এতদিন পর্যন্ত মানুষের ধারণার সম্পূর্ণ বিপরীত।

দুটি ব্লাকহোলকে লক্ষ্য করে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করেন গবেষকরা। যার মধ্যে স্যাগিটারিয়াসের দূরত্ব পৃথিবী থেকে ২৬ হাজার আলোকবর্ষ। স্যাগিটারিয়াস সূর্যের চেয়ে ৪০ লাখ গুণ বড়। অপরটির নাম 'এম ৮৭'। এটি পৃথিবী থেকে সাড়ে পাঁচ কোটি আলোকবর্ষ দূরে। 'এম ৮৭'-এর আকার সুর্যের চেয়ে সাড়ে ৩০০ কোটি গুণ বড়।

ব্ল্যাক হোলের ছবি তোলার জন্য ব্যবহার করা হয়েছে ইভেন্ট হরাইজন টেলিস্কোপ (ইএইচটি)। যা তৈরি করা হয়েছে পৃথিবীর ৮টি মহাদেশে বসানো অত্যন্ত শক্তিশালী ৮টি রেডিও টেলিস্কোপের নেটওয়ার্ক দিয়ে। সেই রেডিও তরঙ্গের মাধ্যমে সম্ভব হয়েছে ব্ল্যাক হোলের ছবি তোলা।

ব্ল্যাক হোলের ছবি তোলার কাজ শুরু হয়েছিল ২০১৭ সালে।

ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির এক ব্ল্যাকহোল বিশেষজ্ঞ জানান, ৫০ বছর আগে আমাদের ছায়াপথে ভীষণ উজ্জ্বল একটা বস্তুর সন্ধান পায় বিজ্ঞানীরা। যে বস্তুর ছিল শক্তিশালী মহাকর্ষীয় টান। যা নক্ষত্রগুলোকে নিজ কক্ষপথ কেন্দ্র করে খুব দ্রুতবেগে ঘুরতে বাধ্য করে যে, মাত্র ২০ বছরেই কক্ষপথ পাড়ি দেওয়া সম্ভব হয়। যেখানে মিল্কিওয়ের কেন্দ্রে কক্ষপথ পাড়ি দিতে সৌরমন্ডলের সময় লাগে প্রায় ২৩০ মিলিয়ন বছর। পরবর্তীতে বিজ্ঞানিরা আবিষ্কার করেন যে, এই উজ্জল বস্তুই 'ব্ল্যাকহোল'।

ওই গবেষক বলেন, ব্ল্যাকহোলকে 'পয়েন্ট অব নো রিটার্ন' বলা হয়। কারণ সেখান থেকে আর কোন কিছুই ফেরত আসতে পারে না।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

তথ্য প্রযুক্তি খবর