channel 24

সর্বশেষ

  • ব্রিটেনে তারেক-জোবাইদার ব্যাংক একাউন্ট ফ্রিজ করার নির্দেশ আদালতের

  • নুসরাত হত্যায় জড়িত সবাইকে বিচারের আওতায় আনা হবে: এইচ টি ইমাম

  • মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের প্রমাণ মিলেছে

বাংলা ভয়েস কমান্ডেই নিয়ন্ত্রণ করা যাবে যেকোন ইলেকট্রনিক ডিভাইস!

বাংলা ভয়েস কমান্ডেই নিয়ন্ত্রণ করা যাবে যেকোন ইলেকট্রনিক ডিভাইস!

হুকুম করলেই জ্বলবে বাতি, ঘুরবে ফ্যান, চলবে টিভি কিংবা এসি অথবা আপনার মুড অনুযায়ী শোনানো হবে গান। গুগল হোম কিংবা এলেক্সার বদৌলতে এমন প্রযুক্তি এখন মানুষের হাতের মুঠোয়। তবে এজন্যে আপনার বাসার প্রতিটি যন্ত্রকেই হতে হবে স্মার্ট ডিভাইস। কথা বলতে হবে ইংরেজিতে। কিন্তু ভাবুনতো একবার আপনার বাসার স্মার্ট অথবা আনস্মার্ট যেকোন ইলেকট্রনিক ডিভাইসকেই নিয়ন্ত্রন করা যাচ্ছে তাও আবার মাতৃভাষা বাংলাতেই!

বাংলাদেশের ৪ তরুণের হাত ধরে তৈরি এমনই এক ডিভাইস জিনি। গেল সপ্তাহে চ্যানেল 24 এর টিমে গিয়েছিল তাদের তৈরি করা সেই যন্ত্রটি দেখতে।

আরও: কথা বলুন পছন্দের যেকোন ভাষায়

যে রোগ হলে মনে থাকে সব কিছু!

কেমন হতো প্লাস্টিক বিহীন পৃথিবী?

জিনির অংশ দুইটি, একটি হার্ডওয়ার আরেকটি সফটওয়ার। সফটওয়ারটি আবার আর্টিফিসিয়ালি ইন্টেলিজেন্ট বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন। যা আপনার মুঠোফোনে এপ্লিকেশন আকারে ইন্সটল করতে হবে।

এরপর তা বাংলাভাষায় দেয়া বিভিন্ন হুকুমকে কোডিং এ রুপান্তর করে হার্ডওয়ার অংশে প্রেরণ করে ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস নিয়ন্ত্রন করে।

জিনিকে ইন্টারনেটের সাথে যুক্ত করা যায়। এর ফলে আপনি বিশ্বের যেকোন প্রান্ত থেকেই মোবাইলের মাধ্যমে আপনার বাসার ইলেকট্রনিক সামগ্রী নিয়ন্ত্রন করতে পারবেন।

কারওয়ান বাজারের জনতা টাওয়ারে আইটি ইনকিউবেটরে থাকা ৬টি স্টার্ট আপের একটি জিনি আইওটি। যাদের সহায়তা করছে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক অথরিটি ও টেলিকম কোম্পানি বাংলালিংক। আপাতত জিনির কার্যক্রম রয়েছে প্রাথমিক পর্যায়ে। উদ্যোক্তাদের প্রত্যাশা ভবিষ্যতে এর ফিচার ছাড়িয়ে যাবে বিশ্বের যেকোন স্মার্ট হোম সলিউশনকেই।

আইটি ইনকিউবেটরে থাকা আরেক প্রকল্প পার্কলি। যা সংযোগ ঘটায় যিনি নিজের বাহনটিকে পার্ক করতে চান এবং যিনি পার্কিং স্পেস ভাড়া দিতে চান তাদের মধ্যে কিভাবে? সেই উত্তর দেবার আগে ঢাকার প্রেক্ষাপটে প্রকল্পের গুরুত্বটা বোঝা যাক।

যানজটের এই শহর ঢাকার গড়ে ওঠার গল্পটা অনিয়ন্ত্রিত। কোন অফিসে গেলেন, শপিং কিংবা কোথাও ঘুরতে গেলেন অথচ পার্কিং স্পেস নেই। সমস্যা নেই পার্কলি ব্যবস্থা করবে আপনার গাড়ি রাখার জায়গা। অনেকটা রাইড শেয়ারিং এপ গুলোর মতই যা যোগাযোগ ঘটিয়ে দেয় সেবা দাতা ও গ্রহীতার মাঝে।

এক্ষেত্রে সেবা দাতা যার অব্যবহৃত পার্কিং স্পেস রয়েচে এবং গ্রহীতা যিনি নিজের বাহনটিকে একটি নির্দিষ্ট অর্থের বিনিময়ে পার্ক করতে চান।

এপটি ডাউনলোড করা যাবে গুগল প্লে স্টোর থেকেই।  

৩ বন্ধু মিলে শুরু করা পার্কলিতে এখন সবমিলিয়ে কাজ করছেন ৭ জন। তবে আপাতত পার্কলি কাজ করছে শুধুই কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর পার্কিং সলিউশানে। তবে যেকোন সাধারণ মানুষও নিতে পারবেন পার্কলির সেবা। ধীরে ধীরে বাড়ানো হচ্ছে যার পরিসর।

আমার, আপনার মত মানুষদের একটি স্মার্ট ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখাচ্ছেন এমন সব তরুণরাই।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

তথ্য প্রযুক্তি খবর