channel 24

সর্বশেষ

  • ঢাকা উত্তর সিটির মেয়র পদে উপনির্বাচন ২৮ ফেব্রুয়ারি...

  • কিশোরগঞ্জ-১ সংসদীয় আসনে উপনির্বাচন ২৮ ফেব্রুয়ারি...

  • দুই সিটির নতুন ৩৬টি ওয়ার্ডে একই দিন নির্বাচন: ইসি সচিব...

  • প্রথম দফা উপজেলা নির্বাচনে ভোট ৮ বা ৯ মার্চ...

  • সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচনের তফসিল ৩ ফেব্রুয়ারি

  • তথ্য ফাঁসের অভিযোগে দুদক পরিচালক ফজলুল হক বরখাস্ত...

  • অবৈধ সম্পদ অর্জন: মোসাদ্দেক আলী ফালুর বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন...

  • দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান চলবে: দুদক চেয়ারম্যান

  • চলমান প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ করতে...

  • নজরদারি বাড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

চাঁদের অন্ধকার অঞ্চলে নামলো চীনের মহাকাশযান

চাঁদের অন্ধকার অঞ্চলে নামলো চীনের মহাকাশযান

চাঁদের ডার্কসাইড বা অন্ধকার অংশে সফল অবতরণ করেছে চীনের রোবটিকযান চেইঞ্জ ফোর। বৃহস্পতিবার, বেইজিং সময় সকালে এটি চাঁদে পৃথিবীর বিপরীতমুখি অংশে অবতরণ করে মনুষ্যবিহীন মহাকাশযানটি। এ বছরের শেষের দিকে বিভিন্ন নমুনা নিয়ে পৃথিবীতে ফেরার কথা চেইঞ্জ ফোরের। চাঁদে প্রাণের রহস্য নিয়ে গবেষণার জন্য এই চন্দ্রযান পাঠানো হয়েছে।

চাঁদে পৃথিবীর বিপরীতমুখি অংশে চীনের মনুষ্যবিহীন মহাকাশযান অবতরণ করেছে। এমন দাবি করেছে, চীনের বার্তা সংস্থা সিনহুয়া।

তারা জানায়, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে চাঁদের দক্ষিণ মেরুর এইটকেন উপত্যকায় অবতরণ করে, মহাকাশযান 'চেঞ্চ ফোর'। বলা হচ্ছে, এর মাধ্যমে ইতিহাস সৃষ্টি করলো চীন। কারণ এর আগে, চাঁদের ওই অংশে কোনো মহাকাশযান অবতরণ করেনি। চাঁদের ভূমি ও খনিজ বিষয়ক বিস্তারিত তথ্য জানতে এবারের কার্যক্রম পরিচালিত হবে। বিজ্ঞানীদের আশা, এতে উপগ্রহটির গঠন সম্পর্কে নতুন তথ্য মিলবে।

চেঞ্জ-ফোরের এই মিশনকে শুভ সূচনা বলা চলে। যেখানে এটি অবতরণ করেছে চাদের এই অংশটি অনেক অর্থবহ। যেখানে অনেক রিসোর্স রয়েছে। এই অভিযান সহজেই চাদের গঠন ও আকৃতি বিষয়ে ভবিষ্যতে বিস্তর গবেষণার সুযোগ করে দেবে।  

যানটিতে দুটি ক্যামেরা রয়েছে, একটি অংশ তেজস্ক্রিয়তা যাচাই করতে পারে আরেকটি অংশ মহাকাশের স্বল্পমাত্রার তরঙ্গ পর্যালোচনা করতে পারে। চাদের ভূপৃষ্ঠের নিচে কী আছে, সেটি পরীক্ষা করে দেখার একটি রাডার রয়েছে। এমন কিছু যন্ত্র রয়েছে, যেটি খনিজ উপাদান শনাক্ত করে বিশ্লেষণ করতে পারে।

চাদের অন্ধকার অংশ অনেক বেশী রুক্ষ এবং বেশি গর্তে ভরা। এই অংশে কারমান নামে পরিচিত বিশাল গর্তে অনুসন্ধান চালাবে চেইঞ্জ ফোর। যে গর্তটিকে চাদের সৃষ্টির শুরুর দিকে বড় ধরনের কোন মহাজাগতিক প্রভাবে সৃষ্টি হয়েছে বলে ধারণা বিজ্ঞানীদের। 

এর আগে ২০১৩ সালে চেইঞ্জ থ্রি নামে একটি চন্দ্রযান পাঠিয়েছিলো চীন। কিন্তু তাতে খুব একটা সফলতা মেলেনি। এ বছরের শেষের দিকে বিভিন্ন নমুনা নিয়ে পৃথিবীতে ফেরার কথা চেইঞ্জ ফোরের। 

চাদের অন্ধকার দিকে একটি রোবটিক যানের সফল অবতরণ করিয়েছে চীন। চাদের অদেখা অংশে প্রথমবারের মতো রোবটযান পাঠানো হলো। মানুষ্যবিহীন এই রোবটযান দক্ষিণ গোলার্ধের এইটকেন বেসিনে অবতরণ করেছে। এটি চাদের ডার্কসাইড বা অন্ধকার অংশ। চাদে প্রাণের রহস্য নিয়ে গবেষণার জন্য এই চন্দ্রযান পাঠানো হয়েছে। এটি চাদের ওই অঞ্চলের বৈশিষ্ট পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি বায়েলজিক্যাল পরীক্ষাও চালাবে।


আগে যেসব চন্দ্রযান পাঠানো হয় সেগুল অবতরণ করে চাদের পৃথিবীমুখি অংশে। কিন্তু চেইঞ্জ ফোর প্রথম কোনো চন্দ্রযান, যেটি চাদের পৃথিবীর বিপরীত দিকের অংশে অবতরণ করেছে, যে অংশকে চাদের অন্ধকার অংশ বলেও অভিহিত করা হয়। চাদের এ অংশ পৃথিবী থেকে খুব কম সময় দেখা যায় বলে অন্ধকার বলা হয়।

চাঁদের ওই পৃষ্ঠের ছবিও পাঠিয়েছে নভোযানটি। প্রথমবার চাদের অন্ধকার পৃষ্ঠের ছবি দেখলো পৃথিবীবাসী। চীনের এ মিশনের আরেকটি লক্ষ্য হচ্ছে চাদের অপর পাশে একটি বেতার যোগাযোগের পরিবেশ তৈরি করা এবং সেখানে ভবিষ্যতের টেলিস্কোপ স্থাপনের জন্য একটি ক্ষেত্র তৈরি করা।

এ মিশনের মহাকাশযানটিতে করে ৩ কেজি আলুর বীজ আর ফুলের বীজ নেয়া হয়েছে, যা দিয়ে চাদে জীববিজ্ঞানের কিছু পরীক্ষা চালানো হবে। কৃত্রিম পরিবেশ তৈরির চাদের ছোট জীবমন্ডল নামের এই নকশা চীনের ২৮ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিকল্পনায় করা হয়েছে।

 চাদ নিয়ে গবেষণায় চীনের বিশাল কর্মসূচির অংশ হচ্ছে এ মিশন। প্রথম ও দ্বিতীয় মিশনের লক্ষ্য ছিলো কক্ষপথের তথ্য, তৃতীয়-চতুর্থ মিশনের লক্ষ্য ভূপৃষ্ঠ। আর ৫ ও ৬ এর লক্ষ্য হবে চাদ থেকে সংগৃহীত পাথর আর মাটির নমুনা ফিরিয়ে এনে গবেষণাগারে জোগান দেয়া।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

তথ্য প্রযুক্তি খবর