channel 24

সর্বশেষ

  • ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচন বানচালের চেষ্টায় একটি দল: সেতুমন্ত্রী

  • সাংবিধানিকভাবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে...

  • প্রার্থী হওয়ার সুযোগ নেই খালেদা জিয়ার: অ্যাটর্নি জেনারেল

  • খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন, বিশ্বাস বিএনপির: ফখরুল

  • পল্টনে সংঘর্ষের ঘটনায় নিরাপরাধ কাউকে হয়রানি করা যাবে না...

  • স্কাইপে তারেকের সংযুক্তি আচরণবিধির আওতায় পড়ে না: ইসি সচিব

  • নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ এখনও তৈরি হয়নি...

  • পুলিশ প্রশাসনের আচরণ পক্ষপাতমূলক: ড. কামাল

  • ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১ম টেস্টের দলে সাদমান ইসলাম...

  • ইনজুরি থেকে সেরে ওঠেননি তামিম ইকবাল

  • নির্বাচন সুষ্ঠু করতে ইসিকেই দায়িত্ব নিতে হবে: সুজন

  • বিএনপির ইশতেহারে থাকবে দুর্নীতিমুক্ত উন্নয়ন পরিকল্পনা: আমির খসরু

ব্লু হোয়েলের পর নতুন মরণ গেম 'মোমো'

ব্লু হোয়েলের পর নতুন মরণ গেম 'মোমো'

‘ব্লু হোয়েল গেম’-এর কথা মনে আছে? যা খেলতে খেলতে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে তরুণ প্রজন্মের আত্মহত্যার হিড়িক পড়ে গিয়েছিল। ওই প্রাণঘাতী গেমটি গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিল ‘ডার্ক ওয়েব’-এর মাধ্যমে। সেই ‘ব্লু হোয়েল’-এর জায়গা নিয়েছে এখন ‘মোমো চ্যালেঞ্জ সুইসাইড গেম’। মূলত হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে গেমটি ছড়াচ্ছে।

বুয়েন্স আয়ার্স টাইমসে প্রকাশিত রিপোর্ট বলছে, আর্জেন্টিনায় এক কিশোরীর আত্মহত্যার পর সামনে এসেছে বিষয়টি। কিশোরীটি মারা যাওয়ার আগে একটি ভিডিওতে মা-বাবাকে মোমো থেকে সাবধানে থাকতে বলে গেছে। ১৮ বছরের একটি ছেলের সঙ্গে ওই কিশোরী হোয়াটসঅ্যাপে লিংক দেওয়া-নেওয়া করেছিল বলে পুলিশ জেনেছে। পুলিশের ধারণা, চ্যালেঞ্জের অংশ হিসেবে ওই কিশোরীকে আত্মহত্যা করতে বলা হয়েছিল। হয়তো ভিডিও করে মা-বাবাকে বার্তা দেওয়ার কথাও বলা হয়। আর্জেন্টিনার কিশোরীটি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করার জন্যই শেষ ভিডিওটি বানিয়েছিল বলে তদন্তকারীদের অনুমান। কেননা, ভিডিওতে তাকে আত্মহত্যার জন্য ‘কৃতিত্ব’ দিতে দেখা গেছে মোমোকে।

শুধু দক্ষিণ আমেরিকায় গেমটি সীমাবদ্ধ নেই। মোমোর দেখা মিলেছে মেক্সিকো, আমেরিকা, ফ্রান্স, জার্মানির মতো দেশগুলিতে। গেমটি প্রথমে ছড়াতে শুরু করে ফেসবুকের মাধ্যমে। তবে এখন ছড়ানোর প্রধান মাধ্যম হোয়াটসঅ্যাপ।

কলকাতা পুলিশের এক কর্মকর্তা সুমন ঘরাই বলেন, জানা নেই ভারতে এই গেম ছড়িয়েছে কিনা। তবে ভারতে ছড়ালে মুম্বইয়ের পর কলকাতায় তার ইফেক্ট এসে পড়ে। এই মুহূর্তে সতর্কতাই একমাত্র রাস্তা। ইন্ডিয়ান স্কুল অব অ্যান্টি হ্যাকিংয়ের সভাপতি সন্দীপ সেনগুপ্তর বলেন, মোমো ভারতে তথা রাজ্যে ঢুকেছে কিনা বলা কঠিন। যতক্ষণ না কিছু একটা ঘটছে, ততক্ষণ টের পাওয়া মুশকিল। সোশ্যাল সাইটে বিশেষ করে হোয়াটসঅ্যাপে একটি লিংক পাঠানো হচ্ছে। অল্পবয়সীরা না বুঝে এবং আগ্রহের বশে সেটিতে ক্লিক করলেই মোবাইলে স্পাইওয়্যার ইনস্টল হচ্ছে। এর ফলে মোবাইলের উপরে নিয়ন্ত্রণ পাচ্ছে কালপ্রিট মোমো। ক্যামেরা ও মাইক্রোফোন অন হয়ে যাচ্ছে নিজে থেকেই। ফলে, কেউ মোবাইল নিয়ে কোথায় যাচ্ছে বা কার সঙ্গে কী কথা বলছে, সব তথ্যই চলে যাচ্ছে আড়ালে থাকা মোমোর কাছে। তার পরে শুরু হচ্ছে ব্ল্যাকমেল করা।

কী এই 'মোমো' ?

‘মোমো’ একটি মেয়ের ছবি। যার দু’টি চোখ কোটর থেকে ঠেলে বেরিয়ে আসছে। তার পা দু’টি পাখির মতো। পায়ের আঙুল ও নখগুলি বড় বড়। মুখটা অসম্ভব রকমের চওড়া। মাথাটা লম্বা। চুলগুলি খুব কালো। দু’টি কানের পাশ দিয়ে তা অনেকটা পর্যন্ত নেমেছে। মাথার ওপরের দিকটা দেখলে মনে হবে, টাক আছে। তারই মাঝে কিছুটা জায়গা ছেড়ে ছেড়ে রয়েছে চুল। ‘মোমো’র এই ছবিটা এঁকেছিলেন এক জাপানি শিল্পী। মিদোরি হায়াশি। ওয়েবসাইট ‘দ্যসান.কো.ইউকে’ জানাচ্ছে, শিল্পী হায়াশি কোনও ভাবেই জড়িত নন এই আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়া ‘গেম’টির সঙ্গে। ২০১৬ সালে টোকিওর ‘ভ্যানিলা গ্যালারি’তে একটি শিল্প প্রদর্শনীর জন্যই ওই ‘মোমো’র ছবি এঁকেছিলেন হায়াশি।

কোন ফোন নম্বর থেকে হোয়াটসঅ্যাপে ছড়িয়ে পড়ে এই ‘গেম’? এখন পর্যন্ত যে খবর, তাতে হোয়াটসঅ্যাপের এই ‘গেম’টি জাপানের আইএসডি কোডসহ ৩টি ফোন নম্বরের। আর কলম্বিয়ার আইএসডি কোডসহ ২টি এবং মেক্সিকোর আইএসডি কোডসহ আরও একটি নম্বরের সঙ্গে সংযুক্ত।

কোথায় উৎপত্তি এই ‘গেম’-এর? মেক্সিকোর একটি পুলিশ ইউনিট যারা অনলাইন অপরাধ নিয়ে কাজ করে, তারা বলছে, ‘‘এটা শুরু হয় ফেসবুকে। কেউ কেউ একে অন্যকে প্রলুব্ধ করে একটি অপরিচিত ফোন নম্বরে ‘কল’ করার জন্য। তবে সেখানে একটি সতর্কতা দেওয়া ছিল।’’

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

তথ্য প্রযুক্তি খবর