channel 24

ব্রেকিং নিউজ

  • অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসা: রাজধানীর গুলশানে ঢাকা মহানগর...

  • দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ ভূঁইয়া আটক...

  • মতিঝিলে ফকিরেরপুল ইয়ংমেনস ক্লাবে অভিযানে আটক ১৪২

নিজেকে প্রমাণ করেই বিশ্বকাপে জায়গা পেলেন আবু জায়েদ রাহি

নিজেকে প্রমাণ করেই বিশ্বকাপে জায়গা পেলেন আবু জায়েদ রাহি

বিশ্বকাপ দলের সবচেয়ে বড় চমক ছিলেন তিনি। দল পরিবর্তনেও তাকে ঘিরেই ছিলো গুঞ্জন। কিন্তু আবু জায়েদ রাহি নিজেকে প্রমান করে টিকে গেলেন বিশ্বকাপ দলে। সিলেটের এই কৃতি সন্তানের কৃতিত্ব ঘরোয়া ক্রিকেটের সব ফরম্যাটে। বিশ্বকাপ স্কোয়াডের ক্রিকেটারদের নিয়ে আমাদের ধারাবাহিক আয়োজনে আজ জানবো আবু জায়েদ রাহিকে।

একটা ম্যাচ বদলে দিলো আবু জায়েদ রাহীর ভাগ্য। বিশ্বকাপ দলে থাকা না থাকা নিয়ে যে গুঞ্জন তার জবাব আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজে আগুন ঝড়ানো বোলিং।

অধিনায়কের কথা রেখে মন খুলে, প্রাণ খুলে বোলিং করেছিলেন। পেয়েছেন ৫ উইকেট।

সিলেটের রাহী বলেই সবাই চেনে তাকে। বিশ্বকাপ দলে সুযোগ পাওয়ার পর আর বিশ্বকাপ দলে থাকা না থাকার গুঞ্জনের সমাপ্তির পরও সিলেটের এই কৃতি সন্তানকে ঘিরে বিভাগীয় শহরে চলছে নানা আলোচনা, প্রশংসার স্তুতি। জেলার একমাত্র বিশ্বকাপ প্রতিনিধি তিনি।

ঘরোয়া ক্রিকেটে ধারাবাহিকতার প্রতীক আবু জায়েদ। প্রিমিয়ার লিগ, বিসিএল, জাতীয় লিগ, বিপিএল সব টুর্নামেন্টেই সফল এই পেসার এবার নিজ কাঁধে নিয়েছেন বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দায়িত্ব।

বয়সভিত্তিক অনূর্ধ্ব-১৭, ১৯ ও ২৩দলে খেলে পরিপক্ক হয়েই জাতীয় দলে জায়গা পেয়েছেন। ২০১২ যুব বিশ্বকাপে ছিলেন সঙ্গী। সাত বছরের ব্যবধানে এবার মূল বিশ্ব আসরে। গত বছর টেস্ট অভিষেক হলেও টি টোয়েন্টি এ বছর। আর ওয়ানডে অভিষেক বিশ্বকাপের ঠিক আগে আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজে। ২ ম্যাচে নিয়েছেন ৫ উইকেট।

বিশ্বকাপ দলে থাকাটা মায়ের প্রেরণায়। তাই ওয়ানডের প্রথম পাঁচ উইকেটও তাকেই উৎসর্গ করেছেন আবু জায়েদ। পরিবারের ছোট ছেলে বলে সৈয়দা ফাতেমা খানমের বাড়তি আদরও রাহীর জন্য।

সিলেটের মীরা বাজারে ১৯৯৩ সালে জন্ম রাহির। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে সবার ছোট। বাবা মুক্তিযোদ্ধা আবদুল খালিক চৌধুরী মারা গেছেন ২০০৪ সালে। দেখে যাওয়া হয়নি মাত্র ২৬ বছর বয়সে ষোলো কোটির সেরা পনেরতে জায়গা পাওয়া ছেলের কীর্তি।

লাইন লেন্থের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারেন বলে কয়ে। চাপ নিয়ে বল করার উদাহরণতো আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ। দুর্বলতা যদি খুঁজে বের করতে হয় তবে তার গতির অভাব আর বৈচিত্রহীনতাকে মাথায় রাখতে হবে।

তবে বিশ্বকাপে যে রাহীর রিপ্লেসপেন্ট হিসেবে তাসকিন ছিলেন আলোচনায় তার সঙ্গেই বন্ধুত্বটা সবচেয়ে বেশি। প্রমান এই ছবি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্পোর্টস 24 খবর