channel 24

সর্বশেষ

  • দেশে করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৯৭৫

  • কাজী নজরুল ইসলামের ১২১তম জন্মবার্ষিকী আজ

  • ঈদ আনন্দে বেদনার ছাপ; জামাতে মানা হয়নি শারীরিক দূরত্ব

  • ঈদেও কর্মব্যস্ত করোনার সম্মুখ যোদ্ধারা; স্বজনহারাদের হৃদয়ে বিষাদের সুর

  • ঈদের নামাজে সেজদারত অবস্থায় ইমামের মৃত্যু

  • বিশ্বজুড়ে অব্যাহত করোনায় মৃত্যুর মিছিল

  • করোনা প্রতিরোধে সরকারের কোনো সমন্বয় নেই: ফখরুল

  • আ.লীগের সাবেক এমপি হাজী মকবুলের দাফন সম্পন্ন

  • ভিন্ন এক প্রেক্ষাপটে এলো এবারের ঈদ

  • ৮ বছর পেরিয়ে নয়ে পা রাখলো চ্যানেল টোয়েন্টিফোর

  • করোনায় মারা গেলেন আ.লীগের সাবেক এমপি হাজী মকবুল

  • অনির্দিষ্টকাল মানুষের আয়ের পথ বন্ধ রাখা সম্ভব নয়, জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী

  • ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে শেখ হাসিনার ভাষণ

  • মহামারিতে কাল বিষাদের ঈদ

  • শারীরিক দূরত্ব মেনে বায়তুল মোকাররমে ৫টি জামাত

এশিয়া কাপে বাংলাদেশ

এশিয়া কাপে বাংলাদেশ

এশিয়া কাপের ইতিহাসে সফলতম দল না হলেও সবচেয়ে বেশিবারের আয়োজক বাংলাদেশ। এদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সূচনালগ্নও এই এশিয়া কাপ। দুবার খুব কাছে গিয়েও শিরোপা হাতছাড়া হওয়ার আক্ষেপ আছে।

তবে তামিম, মুশফিক, রাজ্জাকদের কারণে মনে রাখার মত অনেক স্মৃতিও দিয়েছে এশিয়া কাপ। মহাদেশীয় ক্রিকেট শ্রেষ্ঠত্বের আসর হলেও এশিয়া কাপের উন্মাদনার ব্যাপ্তি এই উপমহাদেশেই। তবে বাংলাদেশের কাছে মাহাত্ম্যটা একটু বেশি। এশিয়া কাপ দিয়েই যে ওয়ানডেতে অভিষেক হয়েছিলো টাইগারদের।

১৯৮৪ সালের প্রথম আসরটি ছাড়া বাকী ১২টি আসরের সবগুলোতে খেলেছে টিম টাইগার্স। ১৯৮৬ থেকে নিয়মিত। টুর্নামেন্টে অর্জন খুব বেশি না হলেও আবেগের পাল্লাটা দারুণ ভারী। দুবার শিরোপার খুব কাছে গিয়েও ফাইনালে স্বপ্নভঙ্গ। এখনো চোখ ভেজে ২০১২র ফাইনালে শেষ ওভারে পাকিস্তানের বিপক্ষে ২ রানের আক্ষেপের কান্নায়। আর ২০১৬তে ভারতের কাছে হার।

টানা চার হাফ সেঞ্চুরি করে সমালোচকদের চার আঙুল দেখানো তামিমের উদযাপন এশিয়া কাপে বাংলাদেশের ট্রেডমার্ক।
এশিয়া কাপ খেলে ১৪ ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি সহ বাংলাদেশিদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৫৩৭ রান তামিম ইকবালের। ২২ উইকেট নেয়া আব্দুর রাজ্জাক সেরা বোলার। ২০০৮ এশিয়া কাপে প্রথম সেঞ্চুরি করেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। ফতুল্লায় ভারতের বিপক্ষে ২০১৪তে মুশফিকের ১১৭ রানের  ইনিংসটি ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ। আর ৯৫ এশিয়া কাপে সাইফুল ইসলামের চার উইকেট সেরা বোলিং ফিগার।

এশিয়া কাপে দলীয় সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন রানের ইনিংস দুটোই পাকিস্তানের বিপক্ষে। বিজয় দের কৃতিত্বে ২০১৪তে ৩২৬ রানের পাহাড় গড়েছিলো বাংলাদেশ। আর ২০০০সালে ৮৭ রানে অলআউট হওয়া টুর্নামেন্টেরই সবচেয়ে কম রানের লজ্জা। টুর্নামেন্ট পরিসংখ্যানও ভালো নয়। ৪২ ম্যাচ খেলে মাত্র ৭ জয় বাংলাদেশে। হার ৩৫ ম্যাচে। অষ্টম আসরে এসে প্রথম জয়টা পেয়েছিলো বাংলাদেশ। ২০০৪ এ। হংকংয়ের বিপক্ষে। ২০০৮ এ প্রথম সেঞ্চুরি, মোহাম্মদ আশরাফুলের কৃতিত্বে। ৮৮র প্রথম আয়োজনসহ ৫ বার এশিয়া কাপের স্বাগতিক হওয়া টুর্নামেন্টটি  বাংলাদেশের কাছে অনেকটাই আপন। অপেক্ষা শুধু প্রথম শিরোপা ঘরে তোলার ।  

 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

স্পোর্টস 24 খবর