১৯৮৮ কিংবা ১৯৯৮ এর মতো বড় বন্যার আশঙ্কা নেই

দেশে আপাতত ১৯৮৮ কিংবা ৯৮ এর মতো বড় বন্যার আশঙ্কা নেই। এমনই ধারণা বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের। সংস্থাটি বলছে, এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি নদীর পানি কমতে শুরু করেছে। আগামী দুই-তিন দিনের মধ্যে কমবে বাকিগুলোরও। তবে, তা মধ্যাঞ্চলে কিছুটা স্থির থাকবে। এতে নতুন করে ক্ষতির মুখে পড়বে তিন থেকে চারটি জেলা।

এবারের বন্যা হবে ইতিহাসের সবচেয়ে বড়, গত কয়েকদিন ধরে চলছে এমন আলোচনা। কিন্তু, পূর্বাভাস বলছে, আপাতত নেই তেমন শঙ্কা।

তিস্তা, ধরলা, দুধকুমার নদী অববাহিকার পানি অব্যাহতভাবে কমছে। ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পারিস্থিতির উন্নতি হবে মেঘনা অববাহিকায়ও। গঙ্গা নদীর পানি বাড়লেও, তা এখনও বিপৎসীমার দেড় মিটার নিচে। বন্যার পানির ৬০ থেকে ৭০ ভাগই আসে ব্রহ্মপুত্র দিয়ে, ভারতীয় অংশে সেই নদীর পানিও ২৪ ঘণ্টায় গড়ে ১০ থেকে ১২ সেন্টিমিটার কমবে। তবে বাংলাদেশ অংশে কমতে সময় লাগবে আরো ৪৮ থেকে ৭২ ঘণ্টা।

মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে এই সময়টাতে প্রচুর বৃষ্টি হয়, হিমালয়ের দক্ষিণভাগে। সেই পানিই বাংলাদেশ হয়ে, পড়ে বঙ্গোপসাগরে। এই বিপুল পরিমাণ পানি বহন করে, দেশের বড় তিন নদী- ব্রহ্মপুত্র, গঙ্গা ও মেঘনা। স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি বৃষ্টি হলে, এসব নদীর পানি যখন একসাথে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়, আবার অমাবস্যা-পূর্ণিমার কারণে সমুদ্রের পানির উচ্চতা বেশি থাকে, তখনই দেখা দেয় বড় ধরণের বন্যা হয়।
 
সবশেষ ১৯৯৮ সালের বন্যায় প্লাবিত হয়েছিল, দেশের ৬৮ ভাগ এলাকা। আর এবারের বন্যায় প্লাবিত হয়েছে, ১০ থেকে ১২ টি জেলার আংশিক। তবে পানি নামতে শুরু করলে, মধ্য ও নিম্ন মধ্যাঞ্চলের আরো তিন-চারটি জেলা আক্রান্ত হবে।

Last modified on 16-08-2017 02:15:51 PM

চ্যানেল 24

387 South, Tejgaon I/A
Dhaka-1208, Bangladesh
Email: newsroom@channel24bd.tv
Tel: +8802 550 29724
Fax: +8802 550 19709

Save

Save

Like us on Facebook
Satellite Parameters
Webmail

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save

Save