channel 24

সর্বশেষ

  • কিডনি দান করার বিধান রেখে আইন সংশোধনে হাইকোর্টের নির্দেশ...

  • অবৈধ কিডনি ব্যবসা বন্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ

  • আদালতে চাপ সৃষ্টি করছেন বিএনপির আইনজীবীরা: অ্যাটর্নি জেনারেল...

  • বিচার বিভাগের প্রতি বিএনপির আস্থা নেই: বার সভাপতি...

  • মানবিক কারণে জামিন আবেদন: মওদুদ আহমদ...

  • আজকের ঘটনার সব দায়-দায়িত্ব অ্যাটর্নি জেনারেলের: খন্দকার মাহবুব...

  • খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি ঘিরে নজিরবিহীন হট্টগোল...

  • এজলাস ছেড়ে গেছেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ...

  • শুনানি না হওয়া পর্যন্ত অবস্থানের ঘোষণা খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের...

  • মামলা ঘিরে নাশকতার চেষ্টা করলে সমুচিত জবাব দেয়া হবে: কাদের

  • এসএ গেমস: ৪০০ মিটার স্প্রিন্ট হিটের পর অসুস্থ হয়ে...

  • হাসপাতালে ভর্তি জহির রায়হান ও আবু তালেব

  • খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার রিপোর্ট দাখিলের জন্য রাষ্ট্রপক্ষের সময় আবেদন...

  • আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে রিপোর্ট দাখিলের নির্দেশ আপিল বিভাগের...

  • খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের ভিন্ন একটি রিপোর্ট দাখিল...

  • এ প্রতিবেদনের ভিত্তি নেই, আরও কিছু টেস্ট বাকি: অ্যাটর্নি জেনারেল

শ্রমিক সংকটে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর

শ্রমিক সংকটে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর

শ্রমিক সংকটে ভুগছে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান শ্রমিকদের মজুরি ঠিকঠাক না মেটানোয় এই সংকট। নির্ধারিত চার্জের বাইরেও পণ্য খালাসের জন্য শ্রমিক বাবদ আমদানিকারকদের গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা। সমস্যার কথা স্বীকারও করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

ভোমরা বন্দরে প্রতিদিন আড়াইশ থেকে তিনশ ট্রাক পণ্য আসে ভারত থেকে। এই পণ্য খালাসের পর সরবরাহ করতে শ্রমিক প্রয়োজন দুই থেকে আড়াইহাজার। শ্রমিক মজুরি বাবদ ব্যবসায়ীরা টনপ্রতি ৫৪ টাকা চার্জ দেন বন্দর কর্তৃপক্ষকে।

নিয়ম অনুযায়ী পণ্য লোড-আনলোডের জন্য শ্রমিক সরবরাহের কথা বন্দর কর্তৃপক্ষ নিয়োজিত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ড্রপ কমিউনিকেশনের। তবে টাকা নিলেও, প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় শ্রমিক জোগান না দেয়ার অভিযোগ আমদানিকারকদের।

আমদানিকারকরা বলছেন, ৫৪.৫৮ টাকা টনপ্রতি আমরা বন্দর কর্তৃপক্ষকে চার্জ দেই, তারপরেও বন্দরের ঠিকাদাররা আমাদের শ্রমিক সরবরাহ করে না।

ভোমরা বন্দরের সি এন্ড এফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম বলেন, সরকার মনোনিত একজন শ্রমিক ঠিকাদার শ্রমিক না দিয়েই টাকা নিয়ে চলে যায়।

বন্দর কর্তৃপক্ষ টনপ্রতি চার্জ নিলেও, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান শ্রমিকদের মজুরি দেয় ট্রাকপ্রতি। শ্রমিক ও শ্রমিক সর্দাররাও বলছেন, এই টাকার পরিমাণ খুবই কম।

শ্রমিকরা বলছে, তারা ট্রাকপ্রতি মাত্র ২৬০ টাকা মজুরি পায়।

বন্দর কর্তৃপক্ষও জানেন এই সংকটের কথা।

সার্বিক অবস্থায় স্থল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান বলেন, সমস্যার সমাধানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

শ্রমিক সংকট প্রভাব ফেলতে পারে বন্দরের রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা পূরণেও।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর