channel 24

সর্বশেষ

  • সম্প্রতি বেশ কয়েকটি পুরস্কারে পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে মন্ত্রিসভার অভিনন্দন

  • আবরার হত্যা: আসামি অমিত সাহাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার

  • আবরার হত্যা: আসামি অমিত সাহাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার

  • ভিজিৎ ব্যানার্জি, মাইকেল ক্রেমার এবং ফরাসি অর্থনীতিবিদ এস্থার দুফলো

খুরা রোগের সরকারি ভ্যাক্সিনের মান নিয়ে প্রশ্ন

খুরা রোগের সরকারি ভ্যাক্সিনের মান নিয়ে প্রশ্ন

সরকারিভাবে উৎপাদিত ক্ষুরা রোগের ভ্যাক্সিনের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন মেহেরপুরের খামারীরা। তাদের দাবি, একারনে ১০ টাকা দামের সরকারি ভ্যাক্সিন বাদ দিয়ে তারা ব্যবহার করছেন কয়েকশ টাকা দামের বিদেশি ভ্যাক্সিন। তবে, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের দাবি, চাহিদার তুলনায় সরকারি ভ্যাক্সিনে উৎপাদন কম হওয়ায়, বিদেশি ভ্যাক্সিনের ওপর নির্ভর খামারীরা।

মেহেরপুরের গাংনি উপজেলার খামারি মঞ্জুরুল ইসলাম। তার যতটুকু আর্থিক সচ্ছলতা, প্রায় পুরোটায় এসেছে গবাদি প্রাণি লালন-পালনে। কিন্তু মাঝে মধ্যেই বিপদে পড়েন, ক্ষুরা রোগ নিয়ে। এই রোগ নিয়ন্ত্রণে এক সময় মাত্র ১০ টাকার সরকারি ভ্যাক্সিনের ব্যবহার করলেও, এখন ভরসা ৩৫ গুন বেশি দামের বেসরকারি ভ্যাক্সিন। শুধু তিনি নন, এই এলাকার অন্যান্য খামারিদেরও অভিযোগ, সরকারি ভ্যাক্সিনে কমছে না ক্ষুরা রোগ।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, মেহেরপুরে ৫ লাখ ২২ হাজার প্রাণি থাকলেও, সরকারি ভ্যাক্সিন নিয়েছে মাত্র ৬ হাজার। প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালকের দাবি, সরকারের ক্ষুরা রোগের ভ্যাক্সিন এখনও কার্যকর।

কিন্তু চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের অনুসন্ধান বলছে, কেন্দ্রীয় প্রজনন খামার, সাভার ডেইরি ফার্ম, মিল্কভিটাসহ বেশ কয়েকটি সরকারি সংস্থা ব্যবহার করছে, রাশিয়ার তৈরি আরিয়াহ ভ্যাক্সিন। এ বিষয়ে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর বলছে, উৎপাদনের ঘাটতি পড়লে, নিজেদের খামারেও ব্যবহার করেন বেসরকারি ভ্যাক্সিন।

ভ্যাক্সিন উৎপাদনকারী সরকারি সংস্থা প্রাণিসম্পদ গবেষণা প্রতিষ্ঠান বলছে, দেশে মোট ক্ষুরা রোগের ভ্যক্সিনের চাহিদা বছরে সোয়া কোটির মতো। আর গেল বছর উৎপাদন হয়েছে মাত্র ১৬ লাখ।

নিউজটির বিস্তারিত প্রতিবেদন ভিডিওতে-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর