channel 24

সর্বশেষ

  • নির্বাচনি প্রচারণায় আসছে নানা বিধিনিষেধ; যত্রতত্র পোস্টার-মাইকিং নয়

  • উন্নয়ন পরিকল্পনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন না হওয়ার কারণে দুর্ভোগে পড়তে হয় জনগণকে

  • দেশের পুঁজিবাজারে আজও সূচকের পতন

  • আন্তর্জাতিক জ্বালানি খাতে নিজেদের আধিপত্য বাড়াতে চায় সৌদি আরব

  • ভুতুড়ে বিল বন্ধ করতে প্রযুক্তি ব্যবহারের বিকল্প নেই: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

  • কানাডার সাস্কাটুনে বসন্তের ফুল ফুটবে ২৯ ফেব্রুয়ারি

  • রোহিঙ্গা ও স্থানীয় অপরাধীদের এক হতে দেয়া যাবে না: ভূমিমন্ত্রী

  • পা দিয়ে ছবি এঁকে জাতীয় পুরস্কার জিতেছেন ফেনীর মোনায়েম

  • ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ যথাসময়ে শেষ করার নির্দেশ

  • চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন: ৮৫ হাজার নতুন ভোটারের ভোটদানে অনিশ্চয়তা

  • ব্যবসায়ী মহলে করোনার নেতিবাচক প্রভাব

  • ফরহাদ রেজার সেঞ্চুরিতে ইস্টের বিপক্ষে রান পাহাড়ে সাউথ

  • অবশেষে বিটিআরসিকে এক হাজার কোটি টাকা দিলো গ্রামীণফোন

  • আ.লীগের রাজনৈতিক স্বার্থে খালেদা জিয়া কারাবন্দি: ফখরুল

  • কুর্মিটোলায় ফুটপাতে প্রাইভেটকার চাপায় আহত ১৫

মেহেরপুরে মারাত্মক আকার নিয়েছে অ্যানথ্রাক্স; কয়েকশো গবাদি পশুর মৃত্যু

মেহেরপুরে মারাত্মক আকার নিয়েছে অ্যানথ্রাক্স; কয়েকশো গবাদি পশুর মৃত্যু

মেহেরপুরে ভয়াবহ আকার নিয়েছে, অ্যানথ্রাক্স। এরইমধ্যে মারা গেছে, কয়েকশো গবাদি পশু। খামারিদের অভিযোগ, সরকারের সরবরাহ করা ভ্যাক্সিনে কাজ হচ্ছে না। তবে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের দাবি, ছাগল থেকে এবার রোগ ছড়ালেও, প্রাণিটিকে ভ্যাক্সিন দিচ্ছেন না খামারিরা।

২০১০ সালে সিরাজগঞ্জ ও পাবনাসহ দেশের ১২ জেলায় মহামারী আকার ধারণ করে অ্যানথ্রাক্স জারি হয় রেড এলার্ট।

সবচেয়ে বেশি গবাদি প্রাণির এলাকা সিরাজগঞ্জ ও পাবনায় সরকারিভাবে টিকাদানসহ বহুমুখী ব্যবস্থা নেয়ায় আর দেখা মেলে না এই রোগের। কিন্তু ৯ বছরের মাথায় রোগটি এবার মহামারী আকার নিয়েছে মেহেরপুরের গাংনির হাড়ভাঙ্গা গ্রামে। খামারিদের দাবি, এরইমধ্যে মারা গেছে হাজারের মতো গরু-ছাগল।

খামারিদের অভিযোগ, অ্যানথ্রাক্সের প্রতিরোধে সরকারি যে ভ্যাক্সিন দেয়া হয়, তা অনেক সময় কাজ করে না। তাই ঠেকানো যাচ্ছে না রোগের আক্রমণ।
 
তবে এমন অভিযোগ উড়িয়ে দিলেন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর। তাদের দাবি, ওই উপজেলায় দুই লাখ প্রাণি থাকলেও, খামারিদের অনাগ্রহে অ্যানথ্রাক্স ভ্যাক্সিনের আওতায় আনা গেছে মাত্র ২৮ হাজার।

প্রাণিস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই রোগের ব্যাকটেরিয়া এতটাই শক্তিশালী যে, আক্রান্তের কয়েকঘণ্টার মধ্যেই প্রাণির মৃত্যু হয়। তাই আর্থিক ঝুঁকি এড়াতে অ্যানথ্রাক্সের ভ্যাক্সিন দেওয়ার কোনো বিকল্প নেই।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রাণি থেকে মানুষে ছড়ানো জুনোটিক এই রোগ তিন ধরনের। যার সবগুলোই, ছড়াতে পারে মানবদেহে।
 
প্রাণি সম্পদ অধিদপ্তরের দাবি, দেশে চাহিদার তুলনায় অ্যানথ্রাক্স ভ্যাক্সিনের উৎপাদন অনেক বেশি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর