channel 24

সর্বশেষ

  • আন্তর্জাতিক জ্বালানি খাতে নিজেদের আধিপত্য বাড়াতে চায় সৌদি আরব

  • ভুতুড়ে বিল বন্ধ করতে প্রযুক্তি ব্যবহারের বিকল্প নেই: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

  • কানাডার সাস্কাটুনে বসন্তের ফুল ফুটবে ২৯ ফেব্রুয়ারি

  • রোহিঙ্গা ও স্থানীয় অপরাধীদের এক হতে দেয়া যাবে না: ভূমিমন্ত্রী

  • পা দিয়ে ছবি এঁকে জাতীয় পুরস্কার জিতেছেন ফেনীর মোনায়েম

  • ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ যথাসময়ে শেষ করার নির্দেশ

  • চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন: ৮৫ হাজার নতুন ভোটারের ভোটদানে অনিশ্চয়তা

  • ব্যবসায়ী মহলে করোনার নেতিবাচক প্রভাব

  • ফরহাদ রেজার সেঞ্চুরিতে ইস্টের বিপক্ষে রান পাহাড়ে সাউথ

  • বিটিআরসিকে এক হাজার কোটি টাকা দিলো গ্রামীণফোন

  • আ.লীগের রাজনৈতিক স্বার্থে খালেদা জিয়া কারাবন্দি: ফখরুল

  • কুর্মিটোলায় ফুটপাতে প্রাইভেটকার চাপায় আহত ১৫

  • মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ডেমোক্রেট প্রার্থীদের দৌড়ে এগিয়ে বার্নি স্যান্ডারস

  • চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌরুট: ফেরিঘাটে চালকদের জিম্মি করে টাকা আদায়

  • মানিলন্ডারিং মামলায় খালেদসহ ছয় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল

কারা চালাচ্ছেন ঢাকার ক্যাসিনো

কারা চালাচ্ছেন ঢাকার ক্যাসিনো

অগণিত টাকার হাতছানি। কেউ যেতে, কেউ হারে। এমনই এক জগতের নাম ক্যাসিনো বা জুয়া বোর্ড। রাজধানীর নামকরা ক্লাবগুলোতে অভিযানের পর এখন আলোচনার বিষয় এই ক্যাসিনো। প্রশ্ন জাগে, কারা তৈরি করলেন এই অবৈধ চক্র? এতদিন কীভাবে প্রশাসনের চোখের আড়ালে চলেছে এই টাকার খেলা?

ক্যাসিনো আলোর ঝলকানিময় এক অন্ধকার জগত। মূলত হলিউড সিনেমাই এ উপমহাদেশের মানুষকে পরিচিত করেছে অসংখ্য টাকার হাতছানি দেয়া এ দৃশ্যের সাথে। এই ক্যাসিনো নিয়ে দর্শকনন্দিত জেমস বন্ডের সিরিজের একটি আস্ত সিনেমাই আছে, যার নাম ক্যাসিনো রয়েল।

বুধবার র‍্যাবের অভিযানে রাজধানীতেই দেখা মিললো সিনেমায় দেখে আসা ক্যাসিনোর। বছরের পর বছর ধরে সবাই জানলেও, ভাশুরের না  মুখে না আনার মতো ছিলো বিষয়গুলো। একে একে অভিযান চললো তিনটি স্বনামধন্য ক্লাবে। যারা সবাই দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশের ক্রীড়াজগতের পরিচিত মুখ।

কেন এতদিনে নজর পড়েনি এই অন্ধকার দিকে? যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী বুধবারের বক্তব্যে প্রশ্নের তীর ছিলো প্রশাসনের দিকে।

আইন নিয়ে কাজ করা এই শিক্ষকেরও একই মত। সব কিছুর জন্য সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকেই কেন নির্দেশ আসতে হবে।

গণমাধ্যমগুলোতে নিয়মিত বিরতিতেই ছাপা হয়েছে রাজধানীর অবৈধ ক্যাসিনোর খবর। কিন্তু মাথাব্যথা ছিলো না কারোই। এমনকি আদালতে রিটের পর রিট করা হয়েছে শুধু এই জুয়া খেলা চালানোর জন্য। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দ্বিনেশ শর্মা নামের এ নেপালি নাগরিকর মাধ্যমেই ঢাকায় শাখা মেলে ক্যাসিনো। যাকে পৃষ্ঠপোষকতা দেন যুবলীগ নেতা সম্রাট ও খালেদ। ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মমিনুল হক সাঈদ ও স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা মোল্লা আবু কাওসারেরও বিরুদ্ধেও ক্লাবগুলোতে জুয়া চালানোর অভিযোগ রয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রভাবশালী নেতা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সিন্ডিকেটই দায়ী এর বিস্তারে।

ডিএপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, ঢাকায় অবৈধ জুয়ার ব্যবসায় জড়িত কেউই ছাড় পাবে না।

বুধবার ৩টি ক্লাবে অভিযান হলেও ক্যাসিনো বা জুয়া খেলা চালানোর অভিযোগ রয়েছে ঢাকার অন্তত ৩০ থেকে ৪০টি ক্লাবের বিরুদ্ধে। এরমধ্যে আছে ঢাকা ক্লাব, উত্তরা ক্লাব, কলাবাগানসহ বেশকিছু নাম। যদিও আইনশৃংখলা বাহিনী বলছে, কোথাও আর চালু হবে না নিঃস্ব হবার করাখানা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর