channel 24

সর্বশেষ

  • লকডাউন নেই সুইডেনে

  • বিশ্বব্যাপী করোনায় প্রাণহানির সংখ্যা ৪২ হাজার ছাড়িয়েছে

  • প্রতিষেধক না থাকলেও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে করোনার ঝুঁকি কমানো সম্ভব

  • যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুর রেকর্ড, একদিনে ৭৭০ জনের মৃত্যু

  • ভোলায় চুরির অপবাদে স্থানীয় সাংবাদিককে নির্যাতন

  • ক্ষতি সামাল দিতে রোনালদোকে বিক্রি করে দিতে পারে য়্যুভেন্তাস

  • ১৮ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন জ্বালানি তেলের দাম

  • ৫৫০ নন প্লেইং কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতন কাটছে টটেনহাম

  • অনিশ্চয়তায় অস্ট্রেলিয়া দলের বাংলাদেশ সফর

  • সামাজিক দূরত্ব মেনে হাটহাজারীর ইউএনও'র ত্রাণ বিতরণ

  • ত্রাণ বিতরণে সরকারের পাশাপাশি এগিয়ে এসেছে বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান

  • যুক্তরাষ্ট্রে এ পর্যন্ত ৩০ বাংলাদেশির মৃত্যু, স্পেনে একদিনে সর্বোচ্চ প্রাণহানি

  • নিম্নআয়ের মানুষ থেকে বাড়ি ভাড়া না নেয়ার অনুরোধ মেয়র আতিকের

  • কারণে-অকারণে বেরুচ্ছে মানুষ

  • চলমান ছুটি ৯ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়লো

শিডিউল বিপর্যয় ঠেকানো না গেলে রেলে আস্থা হারাবে মানুষ

শিডিউল বিপর্যয় ঠেকানো না গেলে রেলে আস্থা হারাবে মানুষ

ঈদযাত্রায় ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় এখন নিয়মিত ঘটনা। যার জন্য প্রধানত দায়ী অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ ও দুর্ঘটনা। কিন্তু এসব পরিস্থিতি মোকাবিলায় থাকে না পর্যাপ্ত আগাম প্রস্তুতি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পশ্চিমাঞ্চলে ট্রেনের শিডিউল বিপর্যয় ঠেকানো না গেলে রেলের প্রতি মানুষের আস্থা কমবে। রেল সচিব জানান, ট্রেনের ছাদে ভ্রমণ ঠেকানো এবং লাইন মেরামতে বাড়তি নজর দেয়া হচ্ছে। বাকি সমস্যা সমাধানেও চলছে কাজ।

অপেক্ষাকৃত নিরাপদ ও স্বস্তির কারণে ভ্রমনে জনপ্রিয় হচ্ছে ট্রেনযাত্রা। কিন্তু গত দুই ঈদে এ যাত্রায় হয়ে ওঠে, অসহনীয় দুর্ভোগের নামান্তর। রাত জেগে টিকিট হাতে পেলেও, ভিড় ঠেলে ওঠায় যেন দায়। উঠলেও মেলে না নির্ধারিত আসন।

তবে বড় দুর্ভোগটা হয় তখন, যখন সময় মতো স্টেশনে এসেও, ঘণ্টা পর ঘণ্টা দেখা মেলে না কাঙ্খিত ট্রেনের। এই যেমন গত ১০ আগস্ট ঈদুল আজহার দুদিন আগে, রাত ১১টার রাজশাহীর আন্তঃনগর ট্রেন পদ্মা এক্সপ্রেস, ঢাকা ছাড়ে পরের দিন সকাল ১১টায়। আর রাজশাহীর ধূমকেতু সকাল ৬টার পরিবর্তে ছাড়ে সন্ধ্যা ৬টায়। শুধু রাজশাহী নয়, বিপর্যয়ে পড়ে পঞ্চগড়, খুলনা রংপুরসহ রেলের পশ্চিমাঞ্চলের বেশিরভাগ ট্রেনের সময়সূচিও। ১১ আগস্টের লালমনি এক্সপ্রেস ঈদ স্পেশাল ট্রেনটির যাত্রা তো বিলম্বের কারণে বাতিল করতে বাধ্য হয় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।  

কিন্তু এত প্রস্তুতির পরও কেন এ বিপর্যয়? রেল সচিব জানান, নতুন বিরতিহীন ট্রেন, ঈদের আগে একটি ট্রেনের লাইনচ্যুতি আর পশ্চিমাঞ্চলে সিঙ্গেল লাইনের কারণে সময়সূচি ঠিক রাখা সম্ভব হয়নি। তবে আগামী বছর যাতে এমন না ঘটে, সেজন্য এখন থেকেই নেয়া হচ্ছে প্রস্তুতি।  

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডাবল লাইন না করে, বিরতিহীন ট্রেন চালুর সিদ্ধান্ত সঠিক ছিলো না। এতে অন্যান্য আন্তঃনগর ট্রেনের পাশাপাশি কমিউটার ট্রেনের যাত্রা বিরতি বেড়েছে।

যাত্রা নিরাপদ ও সময়সূচি ঠিক রাখতে ট্রেনের ছাদে ভ্রমন বন্ধ ও রেলপথ মেরামতে চলতি মাসের প্রথম দিন থেকে বাড়ানো হয়েছে নজরদারি।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর