channel 24

সর্বশেষ

  • খুলনা জিআরপি থানার সাবেক ওসি উছমান গনিসহ...

  • ৫ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে গণধর্ষণ মামলা দায়েরের আবেদন

  • ক্যাসিনো অবৈধ, কাউকে বেআইনি ব্যবসা করতে দেয়া হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • অনিয়ম, দুর্নীতি রোধে ব্যর্থতায় সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল

  • নাব্যতা সংকটে বন্ধ শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল

  • টেকনাফে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত

  • উগান্ডায় প্রশিক্ষণ নিতে যাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনেকেই প্রকল্প সংশ্লিষ্ট নন; অনিয়মে বারবারই অভিযুক্ত চট্টগ্রাম ওয়াসা।

  • দখল-দূষণে অস্তিত্ব সংকটে বেশিরভাগ নদী; দখলদারদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ ও খননের দাবি পরিবেশবাদীদের।

  • গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থ দিনের মতো আমরণ অনশনে শিক্ষার্থীরা; ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলন চালানোর ঘোষণা

আসামের নাগরিক তালিকা: বাংলাদেশের চিন্তিত হবার যথেষ্ট কারণ আছে

আসামের নাগরিক তালিকা: বাংলাদেশের চিন্তিত হবার যথেষ্ট কারণ আছে

আসামের নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসির নিয়ে বাংলাদেশের উদ্বিগ্ন হবার যথেষ্ট কারণ দেখছেন সাবেক রাষ্ট্রদূত এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, বাদপড়াদের অনেক আগে থেকেই অনুপ্রবেশকারী বাংলাদেশি বলা হচ্ছে। আপিলের পর যারা নাগরিক তালিকা থেকে সত্যিই বাদ পড়বেন, তাদের বাংলাদেশে প্রবেশ করানোর চেষ্টা হলে তা বাংলাদেশের জন্য উদ্বেগজনক হবে। তাই কূটনৈতিক চ্যানেলে ভারত সরকারের সাথে আলোচনার তাগিদ দিয়েছেন তারা।

রাষ্ট্রহীন হওয়া যে কতটা কষ্টের,তা বুঝতে পারছেন ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের ১৯ লাখেরও বেশি মানুষ। নাগরিক তালিকা প্রকাশের দিনটি ঘিরে যে উৎকণ্ঠা, আশঙ্কা ছিলো তাই যেন সত্যি হয়েছে বাংলাভাষী এসব মানুষের জীবনে।

অবশ্য তালিকায় নাম না থাকাদের এখনই রাষ্ট্রহীন বা বিদেশি বলছে না মোদী সরকার। সুযোগ রাখা হয়েছে ট্রাইব্যুনাল আর উচ্চ আদালতে যাবার। কিন্তু প্রশ্ন রয়েছে আসামের আর্থ-সামাজিক বাস্তবতা, এমনকী ট্রাইব্যুনালের স্বচ্ছতা নিয়েও।

দৈনিক যুগশঙ্খ সম্পাদক অরিজিৎ আদিত্য বলেন, 'তালিকা করার প্রক্রিয়া চার বছর ধরে চলছে। এই সময়ে তাদের যা কাগজ ছিল সব জমা দিয়েছে। তারপরও তালিকায় নাম উঠেনি। তাহলে ট্রাইব্যুনালে তারা আর কি কাগজ জমা দিবে, সেখানেই একটা আশঙ্কা রয়ে গেছে।'

ইতিহাসের বিভিন্ন পর্যায়েই বিতর্ক ছিলো আসামে অনুপ্রবেশকারী নিয়ে। অতীতের সরকারগুলো এদের দেখাতে চেয়েছে বাংলাদেশি হিসেবে। এ পালেই হাওয়া দিচ্ছে মোদী সরকারের মন্ত্রী-নেতারাও।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক হুমায়ুন কবির বলেন, ইস্যুটিকে দিল্লী অভ্যন্তরীণ বললেও, বিপুল সংখ্যক মানুষ নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়ায়, উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ রয়েছে বাংলাদেশের।

সাহাব আনাম খান বলেন, সরকারের উচিত আসাম পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা। কূটনৈতিক চ্যানেলে বিষয়টি আলোচনায় আনারও তাগিদ দেন তিনি।

২৫ শে মার্চ ১৯৭১ এর আগে যারা আসামে ঢুকেছিলো তাদেরই অবৈধ বলছে ভারত সরকার। এরআগে ১৯৫১ সালেও এমন নাগরিক তালিকা প্রকাশ করা হয়েছিলো।

নিউজটির ভিডিও প্রতিবেদন-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর