channel 24

সর্বশেষ

  • খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে আন্তর্জাতিক মহলকে অবহিত করা হবে: ফখরুল

  • বকেয়া পরিশোধ না হলে চামড়া বিক্রি বন্ধ: আড়তদার সমিতি

  • ধ্বংসাত্মক রাজনীতির কারণে ভুলের চোরাবালিতে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

  • ভারতের নয়াদিল্লিতে অল ইন্ডিয়া মেডিকেল ইনস্টিটিউটের আগুন নিয়ন্ত্রণে

  • অবসর বিষয়ে মাশরাফীর সিদ্ধান্ত দুই মাস পর: বিসিবি সভাপতি

  • ক্রিকেট দলের নতুন হেড কোচ দক্ষিণ আফ্রিকার রাসেল ক্রেগ ডোমিঙ্গো...

  • দায়িত্ব নেবেন ২১ আগস্ট, চুক্তি দুই বছরের: বিসিবি সভাপতি

  • গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ভর্তি ১ হাজার ৪শ' ৬০: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • ডেঙ্গুতে ঢাকা মেডিকেলে নারী ও ফরিদপুর মেডিকেলে কলেজছাত্রের মৃত্যু

  • ডেঙ্গু প্রতিরোধ: ঢাকা উত্তরের প্রতিটি ওয়ার্ডকে...

  • ১০ ভাগে ভাগ করে চিরুনি অভিযান: মেয়র আতিকুল

  • ঢাকাকে হংকং, সিঙ্গাপুর বানানোর ঘোষণা স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর

  • বকেয়া পরিশোধ না করায় ট্যানারিতে আপাতত...

  • চামড়া না দেয়ার ঘোষণা পোস্তার আড়তদারদের...

  • কাল সরকারের সাথে বৈঠকের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত...

  • চামড়া বিক্রি করা না করা তাদের নিজস্ব ব্যাপার...

  • বকেয়া পরিশোধ হবে কেস টু কেস ভিত্তিতে: ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন

  • সুপরিকল্পিতভাবে রাজনীতিকে শূন্য করার চক্রান্ত চালাচ্ছে সরকার: ফখরুল

  • কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ বাংলাদেশি নিহত

১৭ বছর পর ভাঙলো ভুল, কারাগারেই আবারও বিয়ে

১৭ বছর পর ভাঙলো ভুল, কারাগারেই আবারও বিয়ে

বিয়ে করেছিলেন। সন্তানও হয়েছিলো। কিন্তু পরিবারের চাপে স্ত্রী ও সন্তানের স্বীকৃতি দেননি স্বামী। অবশেষে ধর্ষণ মামলায় কারাগারে। কিন্তু ১৭ বছর পর ভুল ভাঙে পরিবারের। নজিরবিহীন এক আদেশে, মানবিকতার বিবেচনায় আপিল বিভাগ জামিন দেন কারাবন্দি ইসলামকে। শুধু তাই নয়, কারাগারে ফের বিয়েও হয় ওই দম্পতির।

ভূলের মাশুলে সতের বছর কারাবাস। অত:পর মুক্তির আকাংখায় দেশের সর্বোচ্চ আদালতে। যে ঘটনার শুরু ২ হাজার সালের ফেব্রয়ারিতে।

ঝিনাইদহ জেলার বাসিন্দা ইসলাম আর মালা অনেকটা নিজেদের পছন্দে বিয়ে করেছিলেন। তবে মালার পরিবার মানলেও ইসলামের পরিবার তা মানেনি। মানেনি মো. ইসলামও। বিয়ে অস্বিকার করে মেয়ের পরিবারের পক্ষ থেকে ধর্ষন মামলায় জেলে যেতে হয় ইসলামকে। ইসলাম যখন জেলে মালার কোল জুড়ে আসে এক পুত্র সন্তান। ক্ষোভের বশে সন্তাকে অস্বিকার করে বসে খোদ জন্মদাতা পিতা। এভাবেই ইসালামের জেলে কেটে যায় সতের বছর।

অত:পর বোধদয় দুই পরিবারের। সবার সম্মতিতে আবার ইসলামকে মুক্ত করতে এক হয় সর্দার আর মৃধা পরিবার।

আপিল বিভাগেও যাবজ্জীবন সাজা বহাল থাকে। দুই পরিবারের সম্মতিতে ৩১ জুলাই যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে আবারও বিয়ে হয় মালা ও ইসলামের। যার কাবিননামা বৃহস্পতিবার দেশের সর্ব্বোচ্চ আদালতেও দাখিল করা হয়। আপিল বিভাগ নজিরবিহীন সেই মামলায় যাবজ্জীবন প্রাপ্ত ইসলামকে ১ মাসের জামিন দিয়েছেন। দুই পরিবারকে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান করতে বলা হয়েছে। আপিল বিভাগে তৈরী হয় এক আবেগঘন দৃশ্যের। আপিল বিভাগ বলেন মানবিক দিক বিবেচনায় ইসলামকে জামিন দেয়া হলো। তবে তার সাজা কমবে কি না। তা একমাস পর জানা যাবে।

১৯ বছর পর এসে ইসলামের বাবা কাশেম আলী মৃধা বলছেন, তার ভুলেই তার ছেলে ১৭ বছর ধরে জেলে আছেন।

যেই সন্তানকে ঘিরে এত মান অভিমান। সেই সন্তান এখন প্রায় ২০ বছরের টগবগে যুবক। যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রায় নিজের বাবাকে খাওয়াতে ভাত নিয়ে হাজির হোন। বাবা ছেলের মান অভিমান পর্বও ভেঙ্গেছে অনেক আগে। শুধু জেল জীবনটা পার হয়নি বাবার।

আপিল বিভাগের আদেশে খুশি মালা বেগমও। তিনি বলছেন, ইসলামের জন্য তিনি আর বিয়েও করেননি।

জণাকীর্ণ আদালতে যখন মামলাটির শুনানি হয় তখন অনেক জ্যেষ্ঠ আইনজীবীও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। সবার কন্ঠে একই সুর এমন অদ্ভুত মামলা তারা আর কখনো দেখেননি।

নিউজটির ভিডিও প্রতিবেদন-

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর