channel 24

সর্বশেষ

  • আজ ২৬ শে মার্চ; মহান স্বাধীনতা দিবস...

  • জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা...

  • ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা...

  • সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয় প্রধানমন্ত্রীর

  • গণতন্ত্র হরণের মাধ্যমে স্বাধীনতার চেতনা ভূলুন্ঠিত করা হয়েছে: ফখরুল

  • ঐক্যবদ্ধ থাকলে জনগণকে কেউ অধিকারবঞ্চিত করতে পারবে না: ড. কামাল

  • কুষ্টিয়ায় স্বাধীনতা দিবসে শ্রদ্ধা জানানো শেষে জেলা বিএনপির...

  • সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ ১১ জনকে আটকের অভিযোগ

  • মগবাজারে মনোয়ারা হাসপাতালে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে ২ শ্রমিকের মৃত্যু

এখনো বড় চ্যালেঞ্জ বৈষম্য কমানো ও বেকারত্ব দূর করা

এখনো বড় চ্যালেঞ্জ বৈষম্য কমানো ও বেকারত্ব দূর করা

চার যুগে পা দেয়া বাংলাদেশ এখন শক্ত অর্থনৈতিক ভিতে প্রতিষ্ঠিত। যাকে বহু স্বীকৃতি দিয়েছে পুরো বিশ্ব। তবে, এখনো বড় চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে বৈষম্য কমানো, বেকারত্ব দূর করা এবং প্রবৃদ্ধির গুণগত বণ্টন। বিশ্লেষকরা মনে করেন, এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা গেলে সমৃদ্ধির সোপানে আরো একধাপ এগুবে বাংলাদেশ।

সোনার চেয়ে খাঁটি এই বাংলাদেশে বিজয়ের মাস এলেই হলুদে ছেয়ে যায় গোটা প্রকৃতি। সূর্যের আলোর সাথে শিশিরকণার লুকোচুরি শেষ হলে, আড়মোড়া ভাঙে চারদিকে। আর নরম সূর্যটির তেজ বাড়লে শিমের ডগায় উঁকি দেয় আরো একটি স্বপ্ন। যেই স্বপ্নের বীজ বোনা হয়েছে চারযুগ আগে লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে। 

এদেশের মাটিতে সোনা ফলে অবিরাম। ৪০ বছরের কৃষক জহুরুল ইসলাম তাই সেই সোনার খোঁজে প্রতিনিয়তই ছোটেন নিজ জমিনে। নিত্য এই রুটিনে অন্যতম সঙ্গী তিন বছরের ছোট্ট সন্তানটি। তার মতে, মাত্র এক দশকের ব্যবধানে, গ্রামীণ অর্থনীতি যে বেশ খানিকটা চাঙ্গা হয়েছে, তার প্রমাণ তিনি নিজেই।

এক সময়ে কৃষি নির্ভর বাংলাদেশে এখনো অর্থনীতির অন্যতম ভরসা এই খাত। যার মূল্য সংযোজন বেড়েছে বহুগুণ। সবজি, মাছ কিংবা চালের উৎপাদনের গড়ছে নিত্য রেকর্ড। থেমে নেই প্রযুক্তির ব্যবহার। যদিও, গোটা অর্থনীতিতে এর অংশ কমছে ধীরে ধীরে। যা দখল করছে শিল্প খাত। তবে, এক রকম সস্তা মজুরির ওপর ভিত্তি করে এগুনো এই খাতকে আরো সামনে নিতে হলে, দরকার নতুন আঙ্গিকে বিনিয়োগ এবং পরিকল্পনা।

গেলো এক দশকে অর্থনীতিতে গড় প্রবৃদ্ধি ছাড়িয়েছে সাড়ে ছয় শতাংশ। মাথাপিছু আয়ও গেছে পৌনে দুই হাজার ডলারের ওপরে। কিন্তু, এই আয়ের বণ্টণ হয়নি সুষমভাবে। ফলে, প্রায় অর্ধেক মানুষই রয়ে গেছে নিম্ন আয়ের কাতারে। গরিব মানুষের হার কমলেও, মোট সংখ্যা এখনো দুশ্চিন্তার। এছাড়া, তরুণ জনশক্তিকে কাজে লাগানোর ক্ষেত্রেও রয়ে গেছে নানামুখী ঘাটতি।

এমন বাস্তবতায়, ভবিষ্যত পরিকল্পনা কিংবা অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা নিয়ে আরো একটু ভাববার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর