channel 24

সর্বশেষ

  • কোয়ার্টার ফাইনালে হেরে জকোভিচের বিদায়

  • বঙ্গমাতা গোল্ড কাপের জন্য প্রস্তুত বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম

  • মুজিব বর্ষ পালনে প্রতিটি জেলায় কমিটি গঠন করা হবে: হানিফ

  • তারেক ও জোবাইদার বিরুদ্ধে অর্থপাচারের অনুসন্ধান চলছে: খুরশীদ আলম

  • দেশের বাইরে ক্যাম্প করতে আগ্রহী বাফুফে টেকনিক্যাল ডিরেক্টর

  • আবহনীকে হারিয়ে আগামীকাল শিরোপা নির্ধারন করতে চাই রুপগঞ্জ

  • তারেক ও জোবাইদার ব্যাংক হিসাব জব্দের আদেশ হাস্যকর: ফখরুল

  • ঘর সাজানোর অন্যতম উপাদান হতে পারে ক্যাকটাস

  • চট্টগ্রামে কাঁকড়া খেয়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু

  • 'শিক্ষাখাতে সংকট নিরসনে চট্টগ্রামে আরও ১৫টি সরকারি প্রতিষ্ঠান প্রয়োজন'

  • বিভিন্ন বাহিনীর সক্ষমতা বাড়ায় মানব পাচার কমেছে

  • বান্দরবানে নদী পূজা অনুষ্ঠিত

  • টেকনাফে দু'গ্রুপের গোলাগুলিতে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত

  • বান্দরবানে চলছে পার্বত্য নদী রক্ষা সম্মেলন

  • সৌদিতে ২১ ও ২২ নভেম্বর জি-20 সম্মেলন

আন্তঃনগর, নাকি লোকাল ট্রেন

আন্তঃনগর, নাকি লোকাল ট্রেন

যাত্রাবিরতি বাড়তে থাকায় আন্তঃনগর ট্রেনও হয়ে যাচ্ছে লোকাল। যাত্রীরা বলছেন, দূরযাত্রার ট্রেনও এখন বারবার থামছে। এতে বাড়ছে ভোগান্তি। রেলমন্ত্রী বলছেন, স্থানীয় জনগণ ও জনপ্রতিনিধিদের দাবির মুখে আন্তঃনগর ট্রেনের যাত্রাবিরতি বাড়ানো হয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, আন্তঃনগর ট্রেনের সেবা লোকাল ট্রেনের মতো হয়ে গেলে, মানুষের আস্থা নষ্ট হবে।

যাত্রা বিরতি কম থাকায় দূরপাল্লার রেলভ্রমণ শুরু থেকেই জনপ্রিয় আন্ত:নগর ট্রেন। কিন্তু হালে নানা কারণে বিরতি বাড়ায়, লোকাল আর আন্তঃনগরে ফারাক করা কঠিন।

ঢাকা থেকে সিলেটে আন্তঃনগর ট্রেন জয়ন্তিকায় যাত্রা বিরতি ১৬ বার। উপবন ও পারাবতে ১২টি। আর সবচেয়ে কম কালনিতে ৯ বার। ২০১৫ সালে সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার অনুরোধে তার এলাকা শমসের নগরে, যাত্রা বিরতি দেয়া হয় কালনি এক্সপ্রেসে। ট্রেনটির স্টপেজ আরও বাড়াতে চিঠি গেছে মন্ত্রণালয়ে।

ঢাকা থেকে চট্টগ্রামের মহানগর এক্সপ্রেসের যাত্রা বিরতি ১৩টি, প্রভাতি ১০টি আর তুর্ণার ৯টি। সম্প্রতি মফস্বল হওয়ায় স্বত্ত্বেও রেলমন্ত্রীর নিজ এলাকা কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের গুনবতীতে মহানগর, প্রভাতি ও গোধূলীর স্টপেজ দেয়া হয়। এরআগে ২০১৩ সালে পরিকল্পনা মন্ত্রীর এলাকা কুমিল্লার লাকসাম ও বছর খানেক আগে আইনমন্ত্রীর এলাকা কসবায় যাত্রা বিরতি দেয়া হয় এ তিনটি ট্রেনের।  

রেলপথ মন্ত্রীর দাবি, জনগণ ও জনপ্রতিনিধির দাবি প্রেক্ষিতে স্টপেজ বাড়ানো হয়। এতে আন্তঃনগর ট্রেনের সময়ক্ষেপণ বা যাত্রী ভোগান্তি হয় না।

বুয়েটের এক শিক্ষকের মতে আন্তঃনগর ট্রেনে বেশি যাত্রাবিরতি ঠিক নয়। এতে রেলের প্রতি আস্থা হারাবে যাত্রীরা।  

রংপুর দিনাজপুর ও লালমনিরহাটের আন্তঃনগর ট্রেনেও যাত্রা বিরতি দিন দিন বাড়ছে। লালমনিরহাটে ১৮ টি স্টেশনে যাত্রা বিরতি আর রংপুর এক্সপ্রেসে ১৫টি ।

মন্ত্রী ও সাংসদেরা তাদের নির্বাচনি এলাকায় আন্তনগর ও মেইল ট্রেন থামাতে ২৭টি চিঠি দিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়ে। এর মধ্যে হবিগঞ্জের সাংসদ মাহবুব আলী সিলেটের কালনী ট্রেনের নোয়া পাড়ায় স্টোপেজ চেয়েছেন। ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়ার এমপি উবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী চেয়েছেন কালনী ও বিজয় এক্সপ্রেসের যাত্রা বিরতি । আন্তঃনগর ট্রেন চলাচলের বিধিবদ্ধ ম্যানুয়েলের ১.৩১ বলা আছে, স্বল্প সময়ে দূরের গন্তব্যে স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণ নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে প্রবর্তিত দ্রুতগতি সম্পন্ন বিশেষ শ্রেণির ট্রেন। গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন বা জংশন স্টেশন ছাড়া এই ট্রেন যাত্রা বিরতি দেয়া যাবে না।

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর