channel 24

সর্বশেষ

  • উন্নয়ন ধরে রাখতে অশুভ তৎপরতা রুখতে হবে: রাষ্ট্রপতি

  • ধানমন্ডিতে বৈঠকে বসেছেন ফখরুলসহ জাতীয় ঐক্যের নেতারা

  • জনগণকে নয়, বিদেশিদের আস্থায় নিতে চায় ঐক্যফ্রন্ট: সেতুমন্ত্রী...

  • নীতিহীন ঐক্যে জনগণ থাকবে না: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইনমন্ত্রী...

  • সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সরকারকে আলোচনার আহবান নজরুলের

  • ১৭৭ রোহিঙ্গাকে রাখাইনে পুনর্বাসনের দাবি মিয়ানমারের...

  • প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমারের দাবি মিথ্যা: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

  • জাতীয় ঈদগাহে আইয়ুব বাচ্চুর জানাজা; কাল চট্টগ্রামে দাফন

  • প্রতিমা বিসর্জনে আজ শেষ হচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব

  • প্রস্তুতি ম্যাচ: জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে বিসিবি একাদশ...

  • স্কোর: জিম্বাবুয়ে ১৭৮ (এবাদত ৫/১৯), বিসিবি ১৮১/২ (সৌম্য ১০২*)

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার ভয়াবহতা ওঠে এসেছে প্রধানমন্ত্রীর জবানবন্দিতে

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার ভয়াবহতা ওঠে এসেছে প্রধানমন্ত্রীর জবানবন্দিতে

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার পর ডিএমপি নির্বিকার থাকলেও প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেছিলো পুলিশের বিশেষ শাখার সদস্যরা। হামলা থেকে বাঁচতে গাড়িতে ওঠার পরও শেখ হাসিনার বহরে বাধা দেয় পুলিশ। এ সবকিছুই উঠে এসেছে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জবানবন্দিতে।

২০০৭ সালে সাব-জেলে থাকা অবস্থায় সিআইডিকে এই জবানবন্দি দেন তিনি। তার একটি কপি এসেছে চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের হাতে।

সেই বিভিষীকার বর্ণনা উঠে এসেছে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার বয়ানে। ২০০৭ সালে বিশেষ সাবজেলে বসে সিআইডির কাছে জবানবন্দি দেন তিনি।

তিনি জানাচ্ছেন বিকেল সাড়ে চারটার দিকে সুধাসদন থেকে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হন। গাড়ি বহর সেখানে পৌঁছালে মঞ্চ হিসেবে ব্যবহৃত ট্রাকে ওঠেন।

বিকাল ৫টা ২২-২৩ মিনিটের দিকেই প্রথম বিস্ফোরণ হয় বিকট শব্দে। সাথে সাথে ট্রাকে থাকা নেতারা মানববর্ম তৈরি করে তাকে রক্ষা করার প্রাণান্তকর চেষ্টা করেন।

কয়েকদফা বিস্ফোরণের পর এক পর্যায়ে বুলেটপ্রুফ জিপে তোলা হয় শেখ হাসিনাকে। সন্ধ্যা ৬টার দিকে সুধা সদনে পৌঁছান তিনি।

জবানবন্দিতে শেখ হাসিনা বলছেন, এই ধরনের জনসভা বা র‍্যালিতে সভামঞ্চের আশেপাশের ভবনের ছাদে ও বিভিন্ন ফ্লোরে পাহারায় থাকেন দলের স্বেচ্ছাসেবকরা। কিন্তু সেদনি স্বেচ্ছাসেবকদের কোথাও অবস্থান করতে দেয়া হয়নি।

শেখ হাসিনা জানাচ্ছেন, তার গাড়ি যখন বিস্ফোরণের পর বঙ্গবন্ধু এভিনিউ থেকে জিরো পয়েন্টের দিকে যাচ্ছিলো, তখন পুলিশ টিয়ারশেল ও শটগানের গুলি করে যাত্রায় বাধা দেয়। এবং গাড়িতে ওঠার পরও তিনি গুলির শব্দ পান। কিন্তু কারা কোনদিক দিয়ে গুলি করেছে তা বুঝে উঠতে পারেননি।

জবানবন্দিতে শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, ঘটনার সময় পুলিশের বিশেষ শাখার সদস্যরা গুলি ছুঁড়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করলেও, ডিএমপির প্রটেকশন দল ছিলো নির্বিকার। আহতদের কোনো সাহায্য করেনি, বরং যারা সাহায্য করছিলো, তাদেরও পুলিশ লাঠিপেটা করেছে।

ঘটনার পূর্বাপর এভাবেই উঠে এসেছে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জবানবন্দিতে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর