channel 24

সর্বশেষ

  • জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে যোগ দিতে...

  • নিউইয়র্ক যাওয়ার পথে যাত্রাবিরতিতে লন্ডনে প্রধানমন্ত্রী

  • কক্সবাজারের উদ্দেশে সড়ক পথে আ.লীগের সাংগঠনিক সফর শুরু...

  • নির্বাচনে জনপ্রিয় ব্যক্তিদের মনোনয়ন দেয়া হবে: কুমিল্লায় সেতুমন্ত্রী

  • রেলপথের মতো সড়কপথের প্রচারণাতেও ব্যর্থ হবে আ.লীগ: রিজভী

  • ২০১৮'র শেষ অথবা ২০১৯'র শুরুতে জাতীয় নির্বাচন: সিইসি...

  • আইনগত ভিত্তি পেলেই ইভিএম ব্যবহার করা হবে

  • নরসিংদীতে ব্রহ্মপুত্র নদে নৌকাডুবি; ভাইবোনসহ ৩ জনের মৃত্যু

নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কিনা সন্দিহান পশ্চিমা কূটনীতিকরা

নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কিনা সন্দিহান পশ্চিমা কূটনীতিকরা

আগামী নির্বাচন অবাধ ও অংশগ্রহণমূলক হবে কিনা তা নিয়ে সন্দিহান পশ্চিমা কূটনীতিকরা। নির্বাচন বিষয়ক তাদের সাম্প্রতিক আলোচনায় এমনটাই উঠে এসেছে। তবে কূটনীতিকদের এমন পর্যবেক্ষণকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ হিসেবে দেখছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগ দিয়েও ঢাকার পশ্চিমা কূটনীতিক ও রাজনীবিদের দেখা গিয়েছে একসাথে নিয়মিত বৈঠক করতে। মূলত দুদলের মাঝে মতপার্থক্য দূর করা এবং অংশগ্রহণ মূলক নির্বাচনের ঝান্ডা সামনে রেখে করা হত এমন সব বৈঠক ও আলোচনা।
আবারো আসছে নির্বাচন, ফলে অতীতের ধারাবাহিকতায় কূটনীতিকদের মাথা ব্যথাও শুরু হয়েছে তাই। তবে এবার কিছুটা হুশিয়ার তারা। সকল দলের সাথে বৈঠক না করলেও নিজেদের মাঝে আলোচনা করছে বড় দলগুলোর গতিবিধী। পরিস্থিতি বুঝতে বড় রাজনৈতিক দলসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার প্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করেন কূটনীতিকরা। এরই ভিত্তিতে অভ্যন্তরীন পর্যবেক্ষণ দেয় কূটনীতিকরা।
এতে গুরুত্ব পায় আগামী নির্বাচনে সক্ষমতা, সুযোগ ও চ্যালেঞ্জের নানা দিক। শঙ্কা প্রকাশ করা হয় জনগনের চাওয়া অবাধ, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন নিয়ে। তবে প্রশংসা করা হয়েছে, রোহিঙ্গাদের মানবিক সংকট মোকাবেলার বিষয়টি। কূটনীতিকরা মনে করছেন, এই অর্জন আসছে নির্বাচনে কাজে লাগাবে আওয়ামী লীগ। নির্বাচন নিয়ে কূটনীতিকদের এমন মতামতকে হস্তক্ষেপ হিসেবে দেখছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।
প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, এবারের নির্বাচনে ভারত ছাড়াও বড় প্রভাব থাকবে চীনের। চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে কূটনীতিকদের আলোচনায় উঠে আসে বিএনপিকে নিয়ে নানান পর্যবেক্ষণও। কূটনীতিকদের মনে করছে বিএনপির মাঝে রয়েছে নেতৃত্ব সংকট, সমন্বয়হীনতা, আছে নেতাদের মাঝে বিভক্তি, উঠে আসে আস্থাহীনতার কথাও। কূটনীতিকরা বিশ্বাস করে দলটির মাঝে আছে দুটি অংশ। যার একটি অংশ খালেদা জিয়াকে নিয়ে নির্বাচনে যেতে চায়, অন্য অংশ খালেদা জিয়া ছাড়া। প্রতিবেদনে এও বলা হয়, বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব পর্যায় থেকে ক্ষমতাসীনদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছে কেউ কেউ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর