channel 24

সর্বশেষ

  • ঐক্যফ্রন্টের ব্যানারে নির্বাচন বানচালের চেষ্টায় একটি দল: সেতুমন্ত্রী

  • সাংবিধানিকভাবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে...

  • প্রার্থী হওয়ার সুযোগ নেই খালেদা জিয়ার: অ্যাটর্নি জেনারেল

  • খালেদা জিয়া নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন, বিশ্বাস বিএনপির: ফখরুল

  • পল্টনে সংঘর্ষের ঘটনায় নিরাপরাধ কাউকে হয়রানি করা যাবে না...

  • স্কাইপে তারেকের সংযুক্তি আচরণবিধির আওতায় পড়ে না: ইসি সচিব

  • নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ এখনও তৈরি হয়নি...

  • পুলিশ প্রশাসনের আচরণ পক্ষপাতমূলক: ড. কামাল

  • ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১ম টেস্টের দলে সাদমান ইসলাম...

  • ইনজুরি থেকে সেরে ওঠেননি তামিম ইকবাল

  • নির্বাচন সুষ্ঠু করতে ইসিকেই দায়িত্ব নিতে হবে: সুজন

  • বিএনপির ইশতেহারে থাকবে দুর্নীতিমুক্ত উন্নয়ন পরিকল্পনা: আমির খসরু

নিজেরাই হতাহতের তালিকা করছেন রোহিঙ্গারা

নিজেরাই হতাহতের তালিকা করছেন রোহিঙ্গারা

সাংবাদিক, আন্তর্জাতিক সংগঠন বা মানবাধিকার কর্মীদের ওপর নির্ভরশীল না থেকে এবার নিজেরাই হতাহতের তালিকা করছেন রোহিঙ্গারা।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে বলা হচ্ছে, কক্সবাজারের কুতুপালং শিবিরে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা এরইমধ্যে একটি প্রাথমিক তালিকাও তৈরি করেছেন, যেখানে দাবি করা হয়েছে, গত দুই বছরে মিয়ানমার সেনাদের হাতে প্রাণ হারিয়েছেন ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দেশটির সেনাদের হত্যাযজ্ঞের তদন্তে এ পর্যন্ত আওয়াজ তুলেছে জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের বহু দেশ ও মানবাধিকার সংস্থা। এ নিয়ে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিলেও এখনও হতাহতের সুনির্দিষ্ট সংখ্যা পাওয়া যায়নি।

এবার হতাহতের পরিসংখ্যান তৈরিতে উদ্যোগী হয়েছেন রোহিঙ্গারাই। কমিটিতে আছেন কক্সবাজারের কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবিরে আশ্রয় নেয়া সাবেক শিক্ষক, ধর্মীয় নেতা ও মানবাধিকারকর্মীরা। প্রাথমিক তালিকাও তৈরি করেছেন। সবশেষ বেসরকারি সেবা সংস্থা মেডিসিন সান ফ্রন্টিয়ার্স নিহত রোহিঙ্গাদের তালিকা প্রকাশ করে। যাতে বলা হয়, ২০১৬ সালের অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত মিয়ানমারের সেনাদের হাতে ৬ হাজার ৭শর বেশি রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে।

যদিও ওই তালিকায় ভুক্তভোগীদের নাম-ঠিকানা ছিল না। তবে রোহিঙ্গাদের করা প্রাথমিক তালিকা বলছে, এই সময়ের মধ্যে নিহতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে। শুধু সংখ্যা নয় নতুন এই তালিকায় নিহতদের নাম, পরিচয়, ঠিকানা এবং কিভাবে নিহত হয়েছেন তার বিস্তারিত লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। এছাড়া ধর্ষণের শিকার নারী, গ্রেপ্তার ও আহত রোহিঙ্গাদের নাম-পরিচয়ও রয়েছে। আছে নির্যাতনকারী সেনাদের নেতৃত্বে থাকা ব্যাটেলিয়ন কমান্ডারের নামও।

মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে, মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের বিচারে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নথি হবে এই তালিকা। তবে নতুন এই তালিকা সম্পর্কে এখনও কোনো মন্তব্য করেনি মিয়ানমার। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত বছরের আগস্টে শুরু হওয়া নৃশংসতার শিকার হয়ে দলে দলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গারা। এ যাত্রায় সাত লাখেরও বেশি মানুষ পালিয়ে আসে। এখানে আগে থেকে আছে আরও প্রায় ৫ লাখ বাস্তুচ্যুত মানুষ।

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর