channel 24

সর্বশেষ

  • বিরোধীরা চাইলে নির্বাচনকালীন সরকার ছোট হবে, না চাইলে নয়...

  • রাজনীতিতে যেকোনো জোটকে স্বাগত জানায় আওয়ামী লীগ...

  • নির্বাচনি অঙ্গীকারের চেয়ে বেশি অর্জিত হয়েছে...

  • ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে সঠিক সময়েই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে...

  • বিদেশিদের কাছে নালিশ করে লাভ হবে না...

  • খুনি, দুর্নীতিবাজ ও নারী কটূক্তিকারীদের ঐক্য হয়েছে...

  • সড়ক দুর্ঘটনায় শুধু চালককে দোষারোপ নয়, পথচারীদেরও সচেতন হতে হবে...

  • সৌদি সফর নিয়ে গণভবনে সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী

  • নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে আলোচনার দাবি অযৌক্তিক: সেতুমন্ত্রী

  • নাশকতার মামলায় বিএনপির মহাসচিবসহ শীর্ষ ৭ নেতার...

  • হাইকোর্টের দেয়া জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল

  • ব্যারিস্টার মঈনুল ও জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে মামলার ধরনে হাইকোর্টের অসন্তোস

  • ব্যারিস্টার মঈনুলের কাছে ক্ষমা চাইতে মাসুদা ভাট্টিকে লিগ্যাল নোটিশ

  • যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের নতুন হাইকমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম

  • হত্যার আগ মুহূর্তে সাংবাদিক খাশোগিকে ফোন করেছিলেন...

  • সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান: তুর্কি পত্রিকা ইয়েনি সাফাক

নথি আসলেই খালেদা জিয়ার জামিন বিষয়ে আদেশ

নথি আসলেই খালেদা জিয়ার জামিন বিষয়ে আদেশ

আইনি বেড়াজালেই আটকে গেলো খালেদা জিয়ার জামিনের আদেশ। অসুস্থতা আর কম সাজার যুক্তি দেখিয়ে হাইকোর্টে তার জামিন চান আইনজীবীরা। কিন্তু অ্যাটর্নি জেনারেলের পাল্টা যুক্তি জামিন দিলে সম্ভব হবে না আপিল শুনানি করা। দাবি জানান, বিচারিক আদালতের নথি না পাওয়া পর্যন্ত জামিন না দেয়ার। সব শুনে হাইকোর্ট জানান, নথি আসলেই আদেশ দেয়া হবে জামিন বিষয়ে।

 

বেলা ২ টায় খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি শুরুর কথা থাকলেও আগে থেকেই এজলাসে অবস্থান নেন দুপক্ষের আইনজীবীরা। যেন তিল ধারণের ঠাঁই ছিলো না আদালতে। ২ টার পর  বিচারপতিরা এজালাসে এসেই এ নিয়ে অসন্তোষ জানান। বলেন, দুপক্ষের আইনজীবীই আদালতের ওপর চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করছেন। পরে আদালতের পরিবেশ স্বাভাবিক করার নির্দেশ দিয়ে ১০ মিনিটের জন্য এজলাস ত্যাগ করেন তারা। কিছুক্ষণ পর আদালতের পরিবেশ কিছুটা শান্ত হলে শুরু হয় জামিন আবেদনের শুনানি।

এ সময় আদালত বলেন, আপিল শুনানি না হলেও জামিন বিষয়ে আদেশ দেয়া যায়। জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, বেগম জিয়ার আইনজীবীদের কারণেই বিচারিক আদালতে মামলাটি নিষ্পত্তি হতে দেরি হয়েছে। তাই জামিন দিলে আর আপিল শুনানিই হবে না। এ সময় তিনি দেশ-বিদেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার সাজার উদাহরণ দেন। সেই সাথে খালেদা জিয়ার সাজার পর  বিএনপি নেতাদের নানা বক্তব্য আদালতের নজরে আনেন। 

শুনানি শেষে আদালত জানান, বিচারিক আদালতের নথি পাবার পর, জামিনের বিষয়ে আদেশ দেয়া হবে। পরে এ নিয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, দুর্নীতির দায়ে দণ্ডিত কোনো রাজনীতিবিদকে অনুকম্পা দেখানোর সুযোগ নেই। বেগম জিয়া অসুস্থ এবং বিচারিক আদালতে কম সাজা হয়েছে-এমন যুক্তিতে জামিন চান তার আইনজীবীরা। যার বিরোধীতা করেন দুদকের আইনজীবীরা। তারা বলেন, কম সাজা... জামিনের কোনো যুক্তি হতে পারে না।

বেগম জিয়ার আইনজীবী মওদুদ আহমদের অভিযোগ, শুনানিতে নজিরবিহীনভাবে রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়ে, আদালতকে বিভ্রান্ত করেনছেন অ্যাটর্নি জেনারেল। বিচারিক আদালত থেকে জানানো হয়েছে, নথি পাঠানো সংক্রান্ত হাইকোর্টের আদেশ পৌঁছেছে। মূল নথি হাইকোর্টে পাঠানোর প্রক্রিয়াও চলছে। আর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় বেগম জিয়াকে কারাগার থেকে আদালতে আনার বিষয়ে সোমবার আদেশ দেবেন বিশেষ জজ আদালত। 

 

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর