channel 24

সর্বশেষ

  • বিচারপতিদের শপথ ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে; ফুল কোর্ট সভা বাতিল

  • লিবিয়ায় নিহত ২৬ বাংলাদেশির মধ্যে ২৩ জনের পরিচয় মিলেছে

  • 'আদালতের অনুমতি ছাড়া মোরশেদ খানের বিদেশ যাওয়া আইন সিদ্ধ হয়নি'

  • ছেলে সন্তানের বাবা হয়েছেন আশরাফুল

  • শ্বেতাঙ্গ পুলিশের নৃশংসতায় ৯ রাজ্যে বিক্ষোভ; ৪ পুলিশ অফিসার বরখাস্ত

  • মাটিতে পুঁতে রাখার ১১ মাস পর ব্যবসায়ীর মরদেহ উদ্ধার

  • মাঠে গড়ানোর অপেক্ষায় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ ও সিরি আ

  • সোমবার থেকে চলবে গণপরিবহন, রোববার নৌযান

  • জন্মের মাত্র একদিনের মাথায় প্রাণঘাতী করোনার সাথে যুদ্ধ

  • লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিসহ ৩০ জনকে গুলি করে হত্যা, আহত ১১

  • কর্মস্থলে যোগ দিতে চট্টগ্রামে ফিরছে মানুষজন

  • পার্বত্য জেলাগুলোতে সেনাবাহিনীর খাদ্য সহায়তা অব্যাহত

  • করোনা চিকিৎসায় চট্টগ্রামের বেসরকারি হাসপাতালগুলো পুরোপুরি তৎপর নয়

  • কুষ্টিয়ায় করোনা রোগীদের সেবায় একদল স্বেচ্ছাসেবী

  • চট্টগ্রামে নতুন করে ২‘শ ২৯ জন করোনায় আক্রান্ত

ছাত্ররাজনীতি নিয়ে বিএনপি নেতাদের মন্তব্য

ছাত্ররাজনীতি নিয়ে বিএনপি নেতাদের মন্তব্য

ঢালাওভাবে ছাত্ররাজনীতি বন্ধের বিপক্ষে বিএনপি নেতারা। তারা বলছেন, কোনো নির্দিষ্ট সংগঠন দোষী হলে, সেটিকেই বরং নিষিদ্ধ করা উচিত। তবে নিষেধাজ্ঞা চান, শিক্ষক রাজনীতিতে। পরামর্শ দিলেন, ছাত্র সংগঠনগুলোয় সৃজনশীল কর্মকাণ্ড বাড়ানোর।

ছাত্র সংগঠনের নেতাদের হাতেই, শিক্ষার্থী হত্যা। এমন ঘটনায় বারবারই প্রশ্ন ওঠে, ছাত্র রাজনীতির প্রয়োজনীয়তা নিয়ে। আবরার হত্যা ঘটনায় সেই পালে হাওয়া লাগে আরও। যাতে যোগ দেন, শিক্ষার্থীরা। ফলে, বুয়েটে আবারও নিষিদ্ধ হয়, ছাত্র রাজনীতি।

দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপিরও রয়েছে সহযোগী সংগঠন ছাত্রদল। এ অবস্থায় ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধের বিপক্ষেই মত দলটির সিনিয়র নেতাদের। তাদের মতে, ছাত্র রাজনীতির রয়েছে গৌরবোজ্জল ইতিহাস। দেশের প্রতিটি কঠিন সময়ে রুখে দাঁড়িয়েছে শিক্ষার্থীরা। তাই এই রাজনীতি নিষিদ্ধের বদলে তারা চান দায়ী সংগঠনের ওপর নিষেধাজ্ঞা।

টুকু বলেন, ছাত্ররাজনীতি বন্ধ করার তো কোন প্রশ্ন আসে না। বাংলাদেশ বিনির্মাণে সবথেকে বড় ভূমিকা ছাত্ররাই পালন করেছে।

বিএনপি নেতা আমানুল্লাহ আমান বলেন, যাদের মাধ্যমে আজকে আবরার হতাকান্ড সংগঠিত হয়েছে সেই দুর্বৃত্তায়নের সংগঠনকে নিষিদ্ধ করা উচিৎ।

ছাত্র সংগঠনের নেতাদের দুর্বৃত্তায়নের জন্য, মূল দলের নিয়ন্ত্রণ না থাকা ও শিক্ষক রাজনীতিকে দায়ী করেন বিএনপির নেতারা। তাই চান বন্ধ হোক শিক্ষক রাজনীতি।   

আমান বলেন, যে ক্ষমতায় থাকে তাদের প্রশ্রয়ে অনেকেই অগণতান্ত্রিক কর্মকান্ড, অসাংগঠনিক কর্মকান্ড পরিচালনা করার চেষ্টা করে। যদি সরকারি দল সচেতন হয় তাহলে তাদের ছাত্র সগঠনকে এইসকল কর্মকান্ড করতে দিতেন না।  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, নষ্ট ছাত্ররাজনীতির মলে রয়েছে প্রশাসন। বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্বল চিত্তের ভিসি, প্রভোষ্ট, দলীয়করণের শিক্ষক এগুলো বন্ধ করতে হবে।

ছাত্র সংগঠনগুলোকে অন্যায়ের প্রতিবাদের পাশাপাশি মনন ও সৃজনশীল কাজে মনোযোগী হতেও পরামর্শ দেন, বিএনপি স্থায়ী কমিটির এই সদস্য।

বিএনপি নেতারা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরে দেশে গণতন্ত্রের চর্চার অনুপস্থিতিতে, অপরাজনীতি বাসা বেঁধেছে। যার শিকার ছাত্র রাজনীতিও।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর