channel 24

সর্বশেষ

  • ৩১ মে চালু হচ্ছে স্টক এক্সচেঞ্জে শেয়ার লেনদেন

  • ক্রিকেটের বাইরে সাকিব আল হাসানের জানা-অজানা গল্প

  • অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলবে ট্রেন, নৌপথে সিদ্ধান্ত কাল

  • করোনায় বাংলাদেশে আটকে পড়া ১০৯ নাগরিককে ফিরিয়ে নিয়েছে ভারত

  • রান্না খারাপ হওয়ায় স্ত্রীকে গাছের সাথে বেধে নির্যাতন

  • ডলফিনসহ মৎস্যসম্পদ রক্ষায় সরকারের পদক্ষেপ জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট

  • যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও ইতালিসহ সাত দেশের সঙ্গে বিমান চলাচল শুরু করছে চীন

  • চট্টগ্রামে সিটি কর্পোরেশনের এক কাউন্সিলরসহ ২'শ ১৫ জন করোনায় আক্রান্ত

  • যুক্তরাষ্ট্রে প্রাণহানি এক লাখ দুই হাজার ১০৭

  • যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা নিরাপত্তা সরঞ্জাম তৈরির ফ্যাক্টরি নির্মাণে বেক্সিমকো গ্রুপের অর্থায়ন

  • করোনায় দেশে একদিনে শনাক্তের রেকর্ড, ১৫ জনের মৃত্যু

  • ভারতের পশ্চিম ও মধ্যাঞ্চলের ৭ রাজ্যে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে পঙ্গপাল

  • করোনা পাল্টে দিয়েছে কাতার উপকূলের জনজীবন

  • করোনা মহামারিতেও থেমে নেই রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ

  • চট্টগ্রামে প্রথমবারের মতো করোনা আক্রান্ত একজনকে প্লাজমা থেরাপি

আসামি ইফতির জবানবন্দিতে আবরার হত্যার বিভৎস বর্ণনা

আসামি ইফতির জবানবন্দিতে আবরার হত্যার বিভৎস বর্ণনা

স্ট্যাম্প দিয়ে পেটানোর এক পর্যায়ে অনবরত বমি করতে থাকেন আবরার। তিনবারের পর নিস্তেজ হয়ে যান। ২০১১ নম্বর রুমে ঐ সময় স্ট্যাম্প না থাকলেও; আরেক রুম থেকে আনা হয়। গ্রেপ্তার আসামিদের মধ্যে জবাববন্দি দেয়া ইফতি মোশাররফ সকালের বক্তব্যে উঠে এসেছে এ সব তথ্য।

গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, আরো কয়েকজনের জবাববন্দির পর সব তথ্য মিলিয়ে সিদ্ধান্তে পৌছাঁবেন তারা। এ ঘটনায় সিলেট থেকে এজাহারভুক্ত আসামি মাজেদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনায় শুরু থেকেই তৎপর আইন-শৃংখলা বাহিনী। প্রথমদিনেই গ্রেপ্তার করা হয়, বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ১০ নেতাকে।

৫ দিনের রিমান্ডে থাকা ১৩ আসামির মধ্যে বৃহস্পতিবার জবানবন্দি দেন বুয়েট ছাত্রলীগের উপসমাজসেবা সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল। সেখানে আবরারকে রুম থেকে ডেকে আনাসহ নির্যাতনের বিস্তারিত বর্ণনা উঠে এসেছে। 

২০ পৃষ্ঠার জবাববন্দিতে তিনি বলেন, রাফাত স্ট্যাম্প এনে দিলে, তিনি নিজে ও মেহেদী হাসান রবিন আবরারকে মারধর শুরু করেন। তবে, সবচেয়ে বেশি মারধর করেন অনিক সরকার।

বুয়েটে কারা শিবির করে, এ তথ্য বের করতে, আবরারের ফোন ও ল্যাপটপ চেক করা হয় বলে জানান সকাল। নির্যাতনের সময় ফোনে অমিত সাহা বারবার খোঁজ নেন। আবরার নিস্তেজ হয়ে পড়লে ২০০৫ নম্বর রুমে নেয়ার পরও; তাকে মেরে আরো তথ্য নেয়ার জন্য তাগিদ দেন তিনি।

এ হত্যায় আরও কেউ জড়িত থাকলে, তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানায় ঢাকা মহানগর পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর