channel 24

সর্বশেষ

  • ফের উত্তপ্ত নির্বাচন কমিশন, কর্তৃত্ব নিয়ে সিইসি-কমিশনারদের বাকবিতণ্ডা

  • পাকিস্তানে ফিরলো টেস্ট ক্রিকেট

  • চ্যাম্পিয়ন্স লিগ: রাতে মুখোমুখি বায়ার্ন মিউনিখ-টটেনহ্যাম

  • আইসিজেতে মামলার এখতিয়ার নেই গাম্বিয়ার: মিয়ানমারের আইনজীবী

  • রাজ্যসভায়ও নাগরিকত্ব বিল পাশ; অগ্নিগর্ভ আসাম-ত্রিপুরায় সেনা মোতায়েন

  • বিজয়ীর বেশে দেশে ফিরলো দশ স্বর্ণজয়ী আর্চারি দল

  • খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য রিপোর্ট সুপ্রিম কোর্টে জমা; জামিন শুনানি কাল

  • গরু ছাগল চিনলেই চালক, দায়িত্বশীলদের কথা এমন হতে পারে না: হাইকোর্ট

  • আখাউড়া সীমান্তে নারী ও শিশুসহ ৯ রোহিঙ্গা আটক

  • বনানীতে মাটি চাপা অবস্থায় চীনা নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার

  • চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

  • কেরানীগঞ্জে অগ্নিদগ্ধ ৩৩ জন ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি, কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক

  • খালেদা জিয়ার জামিন শুনানি ঘিরে আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা জোরদার

  • ইলিয়াস কাঞ্চনের বিরুদ্ধে শ্রমিকদের আন্দোলন নোংরামি: হাইকোর্ট

  • শারীরিক প্রতিবন্ধকতা দমাতে পারেনি দুই ভাই-বোনকে

আন্দোলনরত বুয়েট শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে ভিসি

আন্দোলনরত বুয়েট শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে ভিসি

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) তড়িৎ প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলামকে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। শিক্ষকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে আসেন তিনি।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে আসলে বুয়েট ভিসি অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলামকে ভবনের নিচে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়।

ভিসি বলেন, 'আমি তোমাদের অভিভাবক, তোমরা আমার সন্তান। আবরারের সাথে যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটা অনাকাঙ্ক্ষিত।'

এ কথা শোনার পরে শিক্ষার্থীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন বলেন, 'এটা একটা খুন, আপনাকে স্বীকার করতে হবে।' এ সময় শিক্ষার্থীদের শান্ত হয়ে কথা শুনতে বলেন বুয়েট ভিসি।

ভিসি বড. সাইফুল ইসলাম লেন, 'আমি শিক্ষামন্ত্রী ও উপমন্ত্রীর সাথে কথা বলেছি। তারা দেশের বাইরে আছেন। সেখান থেকে তারা যেভাবে নিদের্শনা দিচ্ছেন আমি তা পালন করছি। আমি তোমাদের দাবিগুলো দেখেছি। এসব নিয়ে তোমাদের শিক্ষকদের সাথে কথা হয়েছে। আমি সব দাবি মেনে নিয়েছে।'

এ সময় কয়েকজন শিক্ষার্থী উত্তেজিত হয়ে ভিসিকে বলেন, 'আবরার খুন হওয়ার পর আপনি কই ছিলেন? গতকাল কেন এখানে আসেননি?'

তিনি বলেন, 'আমি এখানেই ছিলাম। আমি রাত দেড়টা পর্যন্ত কাজ করেছি।'

একথা বলে ভিসি চলে যেতে চাইলে শিক্ষার্থীরা 'ভুয়া ভুয়া' বলে স্লোগান দিতে থাকেন। এরপর শিক্ষার্থীরা ভিসি ভবনের নিচে তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। ভিসির সাথে বুয়েটের বিভ্ন্নি বিভাগের ডিন ও শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের শান্ত করার চেষ্টা করেন।

ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস জেরে আবরার ফাহাদকে রোববার (৬ অক্টোবর) রাতে ডেকে নিয়ে যায় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। এরপর রাত ৩টার দিকে শেরেবাংলা হলের নিচতলা ও দোতলার সিঁড়ির করিডোর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ঢাকা মেডিকেলের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ তিনি বলেন, নিহত আবরারে ফাহাদের হাত, পা ও পিঠে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। আবরারকে বাঁশ বা স্ট্যাম্প জাতীয় জিনিস দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। প্রচুর রক্ত ক্ষরণ হওয়ায় তার মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে বাবা বরকত উল্লাহ ১৯ জনকে আসামি করে চকবাজার মামলা করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর