channel 24

সর্বশেষ

  • শিশুদের পদচারণায় মুখর বই মেলা প্রাঙ্গণ

  • সিলেটে জিম্বাবুয়ের ঘাম ঝরানো অনুশীলন

  • বিদ্যুতের দাম বাড়ায় পণ্যের বাজারেও অস্থিরতার শঙ্কা

  • দিল্লিতে মুসলিমদের ওপর সহিংসতার প্রতিবাদে ঢাকায় বিক্ষোভ

  • এখনো থমথমে দিল্লি, দাঙ্গায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৮

  • রাজনৈতিক কারণেই খালেদা জিয়ার জামিন হচ্ছে না: মওদুদ

  • 'হলুদবনি' ছবিতে অভিনয় করছেন দুই বাংলার তিন শিল্পী

  • সরকারের পদক্ষেপে নতুন করে স্বপ্ন বুনছেন চলচ্চিত্র কলাকুশলীরা

  • চট্টগ্রাম সিটিতে আ.লীগ মেয়রপ্রার্থীর চেয়ে ৫ গুণ বেশি আয় বিএনপি প্রার্থীর

  • দর্শকবিহীন মাঠে খেলবে জুভেন্টাস

  • দিলু রোডের বহুতল ভবনে আগুনের প্রতিবেদন আগামী সপ্তাহে

  • করোনাভাইরাস ছড়িয়েছে ৫৬ দেশে, ইরানের ভাইস প্রেসিডেন্ট আক্রান্ত

  • ইউরোপা লিগে আর্সেনালের বিদায়

  • হার না মানার নতুন লড়াইয়ে সৌদি ফেরত ৭ নারী

  • আতাইকুলায় কাভার্ডভ্যান-ট্রাক সংঘের্ষ নিহত ২

বঙ্গবন্ধুর খুনি নূর চৌধুরীর অবস্থান প্রকাশে বাধা নেই : কানাডার আদালত

বঙ্গবন্ধুর খুনি নূর চৌধুরীর অবস্থান প্রকাশে বাধা নেই : কানাডার আদালত

কানাডায় থাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনি নূর চৌধুরীর অবস্থানের বিষয়ে তথ্য পেতে বাংলাদেশের আবেদন মঞ্জুর করেছেন দেশটির ফেডারেল আদালত।

চারটি বিষয় বিবেচনা করে অন্টারিও ফেডারেল আদালতের বিচারক জেমস ডব্লিউ ও রেইলি এই রায় দেন। ডব্লিউ ও রেইলি এক রায়ে বলেন, নূর চৌধুরীর স্ট্যাটাস প্রকাশ না করার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ এখন জুডিশিয়াল রিভিউ আবেদন করেছে। আমার বিবেচনায় বাংলাদেশের আবেদন গ্রহণ করা উচিত।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৬ সালে নূর চৌধুরী এবং তার স্ত্রী কানাডাতে পর্যটক হিসেবে প্রবেশের পর উদ্বাস্তু সুরক্ষার জন্য আবেদন করেন। ১৯৯৮ সালে দেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা মামলায় অন্য আসামিদের সঙ্গে নূর চৌধুরীকে দোষী সাব্যস্ত করা হয় এবং আদালত তার মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করে। ২০০২ সালে কানাডার কোর্ট নূর চৌধুরী দম্পতির করা আবেদনটি প্রত্যাখ্যান করে। এর বিরুদ্ধে আপিল করলেও ২০০৬ সালে ঘোষিত রায়ে হেরে যান তারা।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরে নূর চৌধুরী প্রি-রিমোভাল রিস্ক অ্যাসেসমেন্ট আবেদন করে কানাডার অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে। এটি করার উদ্দেশ্য হচ্ছে, তাকে যেন কানাডা থেকে বহিষ্কার করা না হয়।

২০১০ সাল থেকে এ বিষয়ে বাংলাদেশ কানাডার সঙ্গে আলোচনা করছে। ২০১৮ সালে কানাডার অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে বাংলাদেশ একটি চিঠি দিয়ে নূর চৌধুরীর বিষয়ে তথ্য চেয়ে সেদেশের মন্ত্রীর কাছে লিখিত আবেদন করেন। তবে, বাংলাদেশে এবং কানাডার মধ্যে তথ্য আদান প্রদানে কোন চুক্তি না থাকায় দেশটি বাংলাদেশকে নূর চৌধুরীর বিষয়ে কোন তথ্য দেয়নি। একই সাথে হাই কমিশন তথ্য আদান প্রদানে একটি চুক্তি করতে চাইলেও সেটি প্রত্যাখান করা হয়।

পরে গত জুনে কানাডার ফেডারেল কোর্টে এ বিষয়ে একটি মামলা করে বাংলাদেশ। এ সংক্রান্ত শুনানি গত ২৫ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়। এরপর মঙ্গলবার এ রায় ঘোষণা করে আদালত।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর