channel 24

সর্বশেষ

  • আ.লীগের আমলে সংখ্যালঘুরা নিরাপদে থাকে: সেতুমন্ত্রী

  • রোহিঙ্গা ইস্যুতে দায় এড়াতে পারে না জাতিসংঘ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • বাঘাইছড়িতে ফের সেনাটহলে গুলি, পাল্টা গুলিতে সন্ত্রাসী নিহত

  • দেশের উন্নয়নে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কাজে লাগাতে রাষ্ট্রপতির আহ্বান

  • ধর্ষণের অধিকাংশ ঘটনায় নির্যাতনকারী ক্ষমতাসীন দলের: সেলিমা রহমান

  • ডেঙ্গু জ্বরে সাতক্ষীরায় গৃহবধূর মৃত্যু

  • সাফ অনূর্ধ্ব ১৫ ফুটবল: ভূটানকে ৫-২ গোলে বিধ্বস্ত করলো বাংলাদেশ

দুধের মান বৃদ্ধি করতে পরামর্শ দিয়েছেন ঢাবি অধ্যাপক ফারুক

দুধের মান বৃদ্ধি করতে পরামর্শ দিয়েছেন ঢাবি অধ্যাপক ফারুক

দুধের মান বৃদ্ধি করতে পাস্তুরিত দুধ প্রস্তুতকারকদের পরামর্শ দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল রিসার্স সেন্টারের সাবেক পরিচালক আ ব ম ফারুক। শনিবার (২০ জুলাই) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব পরামর্শ দেন।

অধ্যাপক ফারুক বলেন, দুধ কোম্পানিগুলো বলেছে, গরুকে এন্টিবায়োটিক ওষুধ দেওয়ার ফলে দুধে কিছু এন্টিবায়োটিক থাকবে। তিনি বলেন, অসত্য তথ্য দিয়ে তারা মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। অবশ্যই এন্টিবায়োটিক রোধে কোম্পানিগুলোর করণীয় আছে। যে গরুকে এন্টিবায়োটিক ওষুধ দেওয়া হবে, ২১ দিন পর্যন্ত ওই গরুর মাংস বা দুধ খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। আর গরুকে যদি এন্টিবায়োটিক দিতেই হয়, তাহলে হিউম্যান এন্টিবায়োটিক দেওয়া হোক। তাহলে কোনও সমস্যা সৃষ্টি হবে না।

তিনি বলেন, আমরা কোনও কোম্পানির স্বার্থে বা বিপক্ষে পরীক্ষা করিনি। আমাদের উদ্দেশ্যে ছিল, মূলত দুধে কী ট্যাপের পানি না পুকুরের পানি দেওয়া হয় তা যাছাই করা। কিন্তু পরীক্ষা করতে গিয়ে আমরা বিষাক্ত এন্টিবায়োটিকের উপস্থিতি পাই।

অধ্যাপক ফারুক দুধ কোম্পানিগুলোর মালিকদের উদ্দেশে বলেন, দুধকে আরও মানসম্মত করার জন্য পাস্তুরাইজেশনের যে চেক পয়েন্টগুলো রয়েছে, তা আরও আন্তরিকতা সঙ্গে যেন দেখা হয়, তাহলে পাস্তুরাইজেশনে জীবাণু থাকার কোনও কারণ নেই।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর