channel 24

সর্বশেষ

  • মানবাধিকার কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান নাছিমা বেগম

  • পুঁজিবাজারে ব্যাংকগুলোর বিনিয়োগ সামর্থ্য বাড়াতে...

  • সাময়িক তারল্য সুবিধা দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন

  • খুলনা জিআরপি থানার সাবেক ওসি উছমান গনিসহ...

  • ৫ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে গণধর্ষণ মামলা দায়েরের আবেদন

  • ক্যাসিনো অবৈধ, কাউকে বেআইনি ব্যবসা করতে দেয়া হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

  • অনিয়ম, দুর্নীতি রোধে ব্যর্থতায় সরকারের পদত্যাগ করা উচিত: ফখরুল

  • নাব্যতা সংকটে বন্ধ শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচল

  • টেকনাফে পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত

  • উগান্ডায় প্রশিক্ষণ নিতে যাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনেকেই প্রকল্প সংশ্লিষ্ট নন; অনিয়মে বারবারই অভিযুক্ত চট্টগ্রাম ওয়াসা।

  • দখল-দূষণে অস্তিত্ব সংকটে বেশিরভাগ নদী; দখলদারদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ ও খননের দাবি পরিবেশবাদীদের।

  • গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধু বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থ দিনের মতো আমরণ অনশনে শিক্ষার্থীরা; ভিসি পদত্যাগ না করা পর্যন্ত আন্দোলন চালানোর ঘোষণা

স্কেচে নুসরাত হত্যা পরিকল্পনার ঘটনা প্রবাহ

স্কেচে নুসরাত হত্যা পরিকল্পনার ঘটনা প্রবাহ

বারবার আত্মহত্যা বলে চালানোর চেষ্টা করেও শেষরক্ষা হয়নি, ফেনীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত হত্যাকারিদের। সরাসরি গায়ে আগুন দেয়া থেকে শুরু করে পরিকল্পনাকারি সবার ঠিকানা এখন কারাগার। তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন ১২ আসামির জবানবন্দির ছায়ায় একটি ঘটনা প্রবাহ করেছে, নুসরাতকে হত্যার পরিকল্পনাসহ হাসপাতালে নেয়া পর্যন্ত।

প্রতিবাদী নুসরাত। যৌন নিপীড়ন আর অনিয়মের বিরুদ্ধে নিজেকে প্রমাণ করে গেছেন প্রাণ দিয়ে।

গত ২৭ মার্চ শ্লীলতাহানির মামলায়, সোনাগাজি ডিগ্রী মাদরাসার তৎকালীন অধ্যক্ষ সিরাজউদ্দৌলা গ্রেপ্তারের পরদিন তার মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করে নুরউদ্দিন, শাহাদাত হোসেন শামীমসহ স্থানীয় কাউন্সিলর মাকসুদ। এ সময় অধ্যক্ষের শাস্তির দাবি করা শিক্ষার্থীদের ফেল করিয়ে দেয়া, বহিস্কারসহ নানা হুমকি দেয় তারা।

১ এপ্রিল সিরাজের সাথে কারাগারে দেখা করে শামীম, নুর, ইমরান, কাদের ও রানা। সেখানে প্রথমে নুসরাতকে চাপ দিয়ে মামলা তুলতে বাধ্য করানো, না মানলে খুন করার নির্দেশ দেয় সিরাজউদ্দৌলা। জানানো হয় গভর্নিং বডির সহ সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা রুহুল আমিন এবং কাউন্সিলর মাকসুদকে। বাস্তবায়নে মাকসুদ দেয় ১০ হাজার টাকা। ৩ এপ্রিল আবারও কারাগারে সিরাজের সাথে দেখা করতে যায় তারা।

৪ এপ্রিল মাদ্রাসার হোস্টেলে হত্যা পরিকল্পনায় বসে অন্তত ১০ জন। যাতে যোগ দেয় মনি ও পপি। পরিকল্পনা মোতাবেক ৬ এপ্রিল সকালে মাদ্রাসার গেটে অবস্থান নেয় নুর উদ্দিন, কাদের, শাকিল-সহ কয়েকজন। সাইক্লোন সেন্টারের নিচেও পাহারা দেয় অভিযুক্তরা।

নুসরাতের আসার আগেই মনির কিনে আনা বোরকা পড়ে নেয় জুবায়ের, শামীমসহ তিনজন। পরীক্ষা দিতে আসার পর সহপাঠি পপি বান্ধবী নিশাতের কথা বলে ছাদে ডেকে নেয় নুসরাতকে। পাঁচজন মিলে প্রথমকে অধ্যক্ষের মামলা তুলে নিতে চাপ দেয়, না মানলে পরে হাত না বেধে আগুন ধরিয়ে দেয় জুবায়েব, শামীম, পপি, মনি ও জাবেদ। তিনজন ঢুকে যায় পরীক্ষার হলে, শামীম যায় হোস্টেল আর বোরকা পড়ে মাদ্রাসার মূল গেট দিয়ে বেরিয় যায় জুবায়ের। পুরো শরীরে আগুন নিয়ে দৌড়ে নিচ নেমে আসে নুসরাত। পরীক্ষা হলে কর্তব্যরত পুলিশ ও অফিস সহকারিরা সিএনজি ডেকে হাসপাতালে নেয়ার ব্যবস্থা করে নুসরাত জাহান রাফিকে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর