channel 24

সর্বশেষ

  • লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা

  • বগুড়ার ’চাষী বাজারে’ ২৫ ব্যবসায়ী করোনায় আক্রান্ত

  • গণপরিবহন চালু করতে নানা কৌশল; স্বাস্থ্যবিধি মানা নিয়ে সংশয়

  • আগুনে মুত্যুতে ইউনাইটেড হাসপাতালের গাফিলতি; মানতে নারাজ কর্তৃপক্ষ

  • ৩১ মে চালু হচ্ছে স্টক এক্সচেঞ্জে শেয়ার লেনদেন

  • ক্রিকেটের বাইরে সাকিব আল হাসানের জানা-অজানা গল্প

  • অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলবে ট্রেন, নৌপথে সিদ্ধান্ত কাল

  • করোনায় বাংলাদেশে আটকে পড়া ১০৯ নাগরিককে ফিরিয়ে নিয়েছে ভারত

  • রান্না খারাপ হওয়ায় স্ত্রীকে গাছের সাথে বেধে নির্যাতন

  • ডলফিনসহ মৎস্যসম্পদ রক্ষায় সরকারের পদক্ষেপ জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট

  • যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স ও ইতালিসহ সাত দেশের সঙ্গে বিমান চলাচল শুরু করছে চীন

  • চট্টগ্রামে সিটি কর্পোরেশনের এক কাউন্সিলরসহ ২'শ ১৫ জন করোনায় আক্রান্ত

  • যুক্তরাষ্ট্রে প্রাণহানি এক লাখ দুই হাজার ১০৭

  • যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা নিরাপত্তা সরঞ্জাম তৈরির ফ্যাক্টরি নির্মাণে বেক্সিমকো গ্রুপের অর্থায়ন

  • করোনায় দেশে একদিনে শনাক্তের রেকর্ড, ১৫ জনের মৃত্যু

বিচারপতির বিরুদ্ধে অনৈতিকভাবে রায় পাল্টানোর অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট সব রায় বাতিল

বিচারপতির বিরুদ্ধে অনৈতিকভাবে রায় পাল্টানোর অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট সব রায় বাতিল

ঋণ সংক্রান্ত মামলায় হাইকোর্টের এক বিচারপতির বিরুদ্ধে, অবৈধভাবে ডিক্রি জারির মাধ্যমে রায় পাল্টানোর অভিযোগ উঠেছে। সকালে আপিল বিভাগে এ নিয়ে উদ্বেগ জানান, প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ। বলেন, কত টাকার বিনিময়ে এ রায় হয়েছে, তা আদালতকে জানানো হোক। পরে হাইকোর্ট ও বিচারিক আদালতের এ সংক্রান্ত সব রায় বাতিল করা হয়। এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেলসহ জ্যেষ্ঠ আইনজীবীরা ওই বিচারপতির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগের পরামর্শ দেন।

অবৈধ আদেশের মাধ্যমে ১৩৬ কোটি টাকা ঋণ খেলাপি ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান এম আর ট্রেডিং কোম্পানিকে সুবিধা দেয়ার অভিযোগ এসেছে, হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চের বিরুদ্ধে। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বিভাগ সকালে এমন অভিযোগ তুলে, ওই বেঞ্চের বিরুদ্ধে `ম্যানেজড' হয়ে রায় পাল্টানোর কথা বলেন। ঘটনাটিকে নজিরবিহীন উল্লেখ করে, প্রকাশ্য সমালোচনাও করেন আপিল বিভাগ।

হাইকোর্টের ওই বেঞ্চের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগ দিতে বলেন অ্যাটর্নি জেনারেল। সেই সাথে অভিযোগ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত, সংশ্লিষ্ট বিচারপতিদের কাজ থেকে বিরত রাখারও আবেদন করেন তিনি। যার সঙ্গে একমত সিনিয়র আইনজীবীরাও।

পরে এম আর ট্রেডিংয়ের পক্ষে দেয়া সব আদেশ বাতিল করেন আপিল বিভাগ। সেই সঙ্গে জরিমানা করা হয় এক কোটি টাকা। তবে এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি অ্যাটর্নি জেনারেল।

সিনিয়র আইনজীবীরা বলেছেন, হাইকোর্টের আদেশটি ছিলো অস্বাভাবিক। বিচার বিভাগের মর্যাদায় রক্ষায়, সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেন তারা।

আপিল বিভাগের এমন সমালোচনার পর, সকাল সাড়ে দশটার কিছু পড়ে এজলাসে বসেন, বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও ইজারুল হক আকন্দের বেঞ্চ। তবে কোনো আইনজীবী না আসায় ঘণ্টাখানেক পর নেমে যান।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর