channel 24

সর্বশেষ

  • ভর্তি জালিয়াতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে ঢাবির ব্যবসায় অনুষদের...

  • ডিন অফিস ঘেরাও করেছে শিক্ষার্থীরা; ছাত্রলীগের সাথে হাতাহাতি

  • সেবার মনোভাব না থাকায় কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করেছিল বিএনপি...

  • স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে ও নার্সিং পেশার মর্যাদা বাড়াতে কাজ করছে সরকার...

  • শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব নার্সিং কলেজের স্নাতক সমাপনীতে প্রধানমন্ত্রী...

  • পেশাদারিত্বের সাথে দায়িত্ব পালনে নবীন নার্সদের প্রতি আহবান

  • রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরবে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • ডেঙ্গুতে গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ৫৩৬ জন: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

  • ডেঙ্গু মোকাবিলায় ৫ বছর মেয়াদি প্রকল্প নিচ্ছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি...

  • সব ধরনের কারিগরি সহায়তা দেবে সিঙ্গাপুর: সাঈদ খোকন

  • দুর্নীতির সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে সরকার: মওদুদ

  • রাঙ্গামাটিতে জেএসএস এমএন লারমার ২ সমর্থককে গুলি করে হত্যা

  • বিকালে জাবি উপাচার্যের সাথে আন্দোলনকারীদের বৈঠক

  • র‍্যাবের সাথে 'বন্দুকযুদ্ধে' নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে ২ জন নিহত

  • সড়ক দুর্ঘটনায় কিশোরগঞ্জে ২, পটুয়াখালীতে ২ ও মাদারীপুরে ২ জন নিহত

  • রাঙ্গামাটিতে জেএসএস এমএন লারমার ২ সমর্থককে গুলি করে হত্যা

  • আজাদ কাশ্মীরও নিয়ন্ত্রণে নেবে ভারত: জয়শংকর; পাকিস্তানের নিন্দা

  • ত্রিদেশীয় টি টোয়েন্টি: চট্টগ্রামে মুখোমুখি বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে (সন্ধ্যা ৬:৩০)

বিচারপতির বিরুদ্ধে অনৈতিকভাবে রায় পাল্টানোর অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট সব রায় বাতিল

বিচারপতির বিরুদ্ধে অনৈতিকভাবে রায় পাল্টানোর অভিযোগ, সংশ্লিষ্ট সব রায় বাতিল

ঋণ সংক্রান্ত মামলায় হাইকোর্টের এক বিচারপতির বিরুদ্ধে, অবৈধভাবে ডিক্রি জারির মাধ্যমে রায় পাল্টানোর অভিযোগ উঠেছে। সকালে আপিল বিভাগে এ নিয়ে উদ্বেগ জানান, প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ। বলেন, কত টাকার বিনিময়ে এ রায় হয়েছে, তা আদালতকে জানানো হোক। পরে হাইকোর্ট ও বিচারিক আদালতের এ সংক্রান্ত সব রায় বাতিল করা হয়। এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেলসহ জ্যেষ্ঠ আইনজীবীরা ওই বিচারপতির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগের পরামর্শ দেন।

অবৈধ আদেশের মাধ্যমে ১৩৬ কোটি টাকা ঋণ খেলাপি ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান এম আর ট্রেডিং কোম্পানিকে সুবিধা দেয়ার অভিযোগ এসেছে, হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চের বিরুদ্ধে। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বিভাগ সকালে এমন অভিযোগ তুলে, ওই বেঞ্চের বিরুদ্ধে `ম্যানেজড' হয়ে রায় পাল্টানোর কথা বলেন। ঘটনাটিকে নজিরবিহীন উল্লেখ করে, প্রকাশ্য সমালোচনাও করেন আপিল বিভাগ।

হাইকোর্টের ওই বেঞ্চের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপতির কাছে অভিযোগ দিতে বলেন অ্যাটর্নি জেনারেল। সেই সাথে অভিযোগ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত, সংশ্লিষ্ট বিচারপতিদের কাজ থেকে বিরত রাখারও আবেদন করেন তিনি। যার সঙ্গে একমত সিনিয়র আইনজীবীরাও।

পরে এম আর ট্রেডিংয়ের পক্ষে দেয়া সব আদেশ বাতিল করেন আপিল বিভাগ। সেই সঙ্গে জরিমানা করা হয় এক কোটি টাকা। তবে এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি অ্যাটর্নি জেনারেল।

সিনিয়র আইনজীবীরা বলেছেন, হাইকোর্টের আদেশটি ছিলো অস্বাভাবিক। বিচার বিভাগের মর্যাদায় রক্ষায়, সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেন তারা।

আপিল বিভাগের এমন সমালোচনার পর, সকাল সাড়ে দশটার কিছু পড়ে এজলাসে বসেন, বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও ইজারুল হক আকন্দের বেঞ্চ। তবে কোনো আইনজীবী না আসায় ঘণ্টাখানেক পর নেমে যান।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর