channel 24

ব্রেকিং নিউজ

  • অবৈধ ক্যাসিনো ব্যবসা: রাজধানীর গুলশানে ঢাকা মহানগর...

  • দক্ষিণ যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ ভূঁইয়া আটক...

  • মতিঝিলে ফকিরেরপুল ইয়ংমেনস ক্লাবে অভিযানে আটক ১৪২

কারাগারে আইনজীবীর মৃত্যুতে রিটকারীর রিট করার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন

কারাগারে আইনজীবীর মৃত্যুতে রিটকারীর রিট করার বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন

কারাগারে অগ্নিদগ্ধ এক আইনজীবীর মৃত্যুতে বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট দায়েরের ক্ষেত্রে রিটকারীর আইনগত বৈধতা আছে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপিত হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার ওই রিটের শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মোখলেসুর রহমান এ প্রশ্ন উত্থাপন করে বলেন, রিটকারী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের একজন প্রসিকিউটর। তিনি এই আবেদনে যাদেরকে বিবাদী করেছেন তারা সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরের কর্মকর্তা। ফলে উনি সরকারের নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করার যৌক্তিকতা আছে কিনা খতিয়ে দেখা দরকার।

দুদক কৌসুলি সৈয়দ মামুন মাহবুব বলেন, আমি দুদকের আইনজীবী। কিন্তু আমার নিয়োগপত্রে মামলা করার বিষয়ে বিধি নিষেধের কথা উল্লেখ রয়েছে। রিটকারী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন বলেন, আমি ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর। কিন্তু ট্রাইব্যুনালের বিরুদ্ধে বা কোন যুদ্ধাপরাধীর পক্ষে আমি মামলা লড়ছি না। ফলে রিট করতে আইনগত বাধা নেই। এ পর্যায়ে আদালত বলেন, আপনাকে প্রসিকিউটর হিসেবে যে নিয়োগপত্র দেয়া হয়েছে সেখানে এ ধরনের মামলা করার ক্ষেত্রে কোন বিধিনিষেধের কথা উল্লেখ রয়েছে কিনা? রিটকারী বলেন, কোন বিধি নিষেধ নেই। এরপরই আদালত প্রসিকিউটরের নিয়োগ সংক্রান্ত চিঠি আদালতে দাখিল করতে বলেন। পাশাপাশি আইনজীবীর মৃত্যুর ঘটনায় কোন ইউ.ডি (অপমৃত্যু) মামলা হয়েছে কিনা তা জানাতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীকে নির্দেশ দেয়া হয়। বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ গতকাল এ আদেশ দেন। আজ বুধবার এ মামলঅর পরবর্তী শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।
 
এদিকে নানা অনিয়ম নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দেওয়ার জন্য রিটকারী সুমনের প্রশংসা করে আদালত। হাইকোর্ট বলে, আপনার ফেসবুকে দেওয়া সকল পোস্ট দেখি। সবগুলোতে জনগণের স্বার্থের বিষয়টি জড়িত। এজন্য কিছু লোক আপনার বিরুদ্ধে লেগেছে। এজন্য আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে। আদালত বলে, আমরা প্রায় দেখি কিছু লোক প্রচারের জন্য জনস্বার্থমূলক মামলা করে থাকে। রুল বা অন্তবর্তিকালীন আদেশের প্রাপ্তির পর টিভিতে গিয়ে বক্তব্য দিতে দেখা যায়। শুনানির জন্য দিন ধার্য করলেও তারা বলে এ সপ্তাহে নয়, পরের সপ্তাহ এভাবেই সময় নিয়ে নেয়। অথচ তাদের চেয়ে আপনি ব্যতিক্রম।
 
মানহানির একটি মামলায় গত ২৬ মার্চ কারাগারে পাঠানো হয় আইনজীবী পলাশকে। এক মাস পর ২৬ এপ্রিল কারা হাসপাতালের বাথরুমে অগ্নিদগ্ধ হন ওই আইনজীবী। পরে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত ৩০ এপ্রিল দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। এ ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেন সুমন। এদিকে ওই ঘটনায় শাহবাগ থানায় একটি ইউডি মামলা ও তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানান ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর