channel 24

ব্রেকিং নিউজ

  • গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ফলাফলের অনুলিপি হস্তান্তর

  • এ বছর পাশের হার ৭৩ দশমিক ৯৩ শতাংশ

  • এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ

আগামীতে সব ভোট হবে ইভিএম পদ্ধতিতে

আগামীতে সব ভোট হবে ইভিএম পদ্ধতিতে

আগামীতে যত ভোট হবে সব ভোটেই ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম ব্যবহার করবে নির্বাচন কমিশন। সোমবার নির্বাচন কমিশনের বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন। তবে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি কমিশন।

বৈঠক সুত্র জানায়, বিকাল তিনটায় বৈঠকে আলোচনায় গুরুত্ব পায় ইভিএম এ ভোটগ্রহণ পদ্ধতি। পরে এ নিয়ে নানা আলোচনা হয়। এক পর্যায়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা বলেন, সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোতে ইভিএম এ ব্যপক ভাল ফল পাওয়া গেছে। ত্রুটি বিচ্যুতিও হয়েছে কম। তাই আগামীতে সব নির্বাচনেই ইভিএম ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বৈঠকে।

এর আগে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরোধী দলগুলোর আপত্তির মধ্যেও ৬ টি সংসদীয় আসনে ইভিএম ব্যবহার করে নির্বাচন কমিশন। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাচনের তৃতীয় দফায় দুটি এবং ও চতুর্থ দফায় ৬ টি উপজেলায় ভোট হয় ইভিএম পদ্ধতিতে। যদিও ওই নির্বাচনের তৃতীয় দফায় ইভিএম যন্ত্রের সাথে ব্যবহার করার ট্যাবে বেশি কিছু ত্রুটি বিচ্যুতি ধরা পড়ে। যা স্পষ্ট হয় ফলাফলে। কিন্তু এমন অবস্থার মধ্য দিয়েই ইভিএম পদ্ধতির দিকেই হাটছে কমিশন।
 
সোমবারের বৈঠকের এ সিদ্ধান্তের ফলে ভোটযন্ত্রটির ব্যবহারে আরেক ধাপ এ গিয়ে যাচ্ছে। বৈঠকে শেষে ইসির যুগ্ম সচিব এসএম আসাদুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দেশে প্রথমবারের মতো ইভিএমে ভোটগ্রহণের প্রথা চালু করে এটিএম শামসুল হুদার কমিশন ২০১০ সালে। যা তৈরি করে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়- বুয়েট। হুদা কমিশন যেটি শুরু করেছিলো ২০১২ সালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মধ্য দিয়ে। যাতে আংশিকভাবে ব্যবহার হয়েছিলো ইভিএম। এরপর কয়েকটি স্থানীয় সরকার নির্বাচনে এ মেশিন ব্যবহার করে নির্বাচন কমিশন।
 
২০১৩ সালে রাজশাহীর সিটি নির্বাচনের একটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের সময় বিকল হয়ে যায়। সে সময় দায়িত্বে ছিল কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের কমিশন। মেশিনটি আর ঠিক করা সম্ভব না হলে পরবর্তীতে নির্বাচন কমিশন আবার ব্যালট পেপারে ভোটগ্রহণ করে। সেই থেকে ওই ইভিএমগুলো আর ব্যবহার করা হয়নি। রকিব কমিশন এরপর নতুন করে উন্নতমানের মেশিন তৈরির উদ্যোগ নেয়। সে ধারাবাহিকতা বজায় রেখে বর্তমান নূরুল হুদা কমিশন প্রতি মেশিন দুই লাখ ১০ হাজার টাকা দিয়ে বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির কাছ থেকে তৈরি করে নিচ্ছে। এই উন্নতমানে ইভিএম দিয়ে রংপুর, রাজশাহী, সিলেট, খুলনা, বরিশাল সিটি নির্বাচনে বেশ সাড়া পায় নির্বাচন কমিশন। তারপরই সংসদ নির্বাচনেও সেটি ব্যবহার করে ইসি। এরপর পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ও চতুর্থ ধাপে ১০ উপজেলায় এ যন্ত্রে ভোটগ্রহণ করে। ৫ মে অনুষ্ঠেয় ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সম্পূর্ণভাবে ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা হবে। এবার সব নির্বাচনেই ইভিএমের ভোটগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিল ইসি।

যদিও ফল প্রকাশে দেরিসহ নানা বির্তক রয়েছে ইভিএম ব্যবহার। তারপরও এই ইভিএমএর পথেই হাটছে নির্বাচন কমিশন। যারা জন্য ৮২ হাজার মেশিন প্রস্তু করেছে নির্বাচন কমিশন। তার সাথে দ্রুত ফলাফল প্রকাশের জন্য কেনা হয়েছে ৪৬ কোটি টাকায় ৪২ হাজার ২০০ ট্যাব।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর