channel 24

সর্বশেষ

  • বনানী কবরস্থানে শ্রীলঙ্কায় নিহত শিশু জায়ানের দাফন সম্পন্ন

  • লন্ডনে অর্থপাচার মামলায় তারেক রহমানের বন্ধু ব্যবসায়ী...

  • গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের ৭ বছরের কারাদণ্ড; ১২ কোটি টাকা জরিমানা

  • শ্রীলঙ্কা ট্র্যাজেডি: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৫৯; আটক ৫৮...

  • নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হবে: প্রেসিডেন্ট...

  • ক্রাইস্টচার্চের ঘটনার প্রতিশোধ নিতেই শ্রীলঙ্কায় হামলা...

  • এমন কোনো গোয়েন্দা তথ্য ছিল না: নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

  • মানবতাবিরোধী অপরাধ: নেত্রকোণার সোহরাব ফকিরসহ ২ জনের মৃত্যুদণ্ড..

  • একাত্তরের গণহত্যার স্বীকৃতি দিতে বিশ্বসম্প্রদায়ের প্রতি...

  • আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের আহবান

  • পাবনায় ৩ পুলিশ হত্যা মামলায় ৮ জনের যাবজ্জীবন; খালাস ৩

  • রাজধানীর নিউমার্কেট মোড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত...

  • সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের আজও অবস্থান; যান চলাচল বন্ধ

  • চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া যত্রতত্র অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধ চেয়ে রিট

মিথ্যা হলফনামা দেয়ায় বিএনপি নেতা আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা চলবে

মিথ্যা হলফনামা দেয়ায় বিএনপি নেতা আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা চলবে

পূর্বে স্ত্রীর নামে রাজউকের প্লট বরাদ্দ হলেও মিথ্যা হলফনামা দাখিল করে নিজ নামে প্লট বরাদ্দ নেওয়ায় দূদকের দায়ের করা, সাবেক স্থানীয় সরকার,পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী ও মুন্সীগঞ্জ-৪ বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মোঃ আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা চলবে, রুল খারিজ ও স্থগিতাদেশ তুলে দেওয়া হয়েছে।

রোববার (২০ জানুয়ারি) বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ রুল খারিজ করে এই রায় দেন।

অ্যান্টিবায়োটিক কাজ না করলে কি হতে পারে?

আর্টিফিসিয়ালি ইন্টেলিজেন্ট ফেসিয়াল রিকগনিশন

গত বছরের ১০ মে হাইকোর্ট এই বিষয়ে ৬ মাসের  রুল ও মামলাটির কার্যক্রমের উপর স্থগিতাদেশ দিয়েছিলেন। এর পূর্বে তিনি ২০১৭ সনের ৯ নভেম্বর হাইকোর্ট থেকে অন্তর্বর্তী জামিন পেয়েছিলেন।

আজ দূদকের পক্ষে শুনানী করেন আইনজীবী মোঃ খুরশিদ আলম খান, রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না। আসামী পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খন্দকার মোঃ খুরশিদ আলম।

ঘটনার বিবরণে দেখা যায়, মোঃ আবদুল হক, প্রাক্তন সংসদ সদস্য, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ বিগত ২০০৪ সনের ২৯ জানুয়ারী তারিখে রাজউকের চেয়ারম্যান বরাবরে গুলশান ও বনানী আবাসিক এলাকায় তার নামে একটি প্লট বরাদ্দের জন্য আবেদন করেন।

তার আবেদনের সাথে রাজউকের নিয়ম অনুযায়ী একটি হলফনামা দাখিল করেন এবং তার দাফিলকৃত হলফনামায় অঙ্গীকার করেন যে, "বৃহত্তর ঢাকা মহানগরীর রাজউকের আওতাধীন এলাকায় কোথাও তার নিজের নামে, স্ত্রী /স্বামী/নির্ভরশীল ছেলেমেয়ে অথবা পোষ্যের নামে কোন আবাসিক জমি বা বাড়ী/ ফ্ল্যাট খরিদ কিংবা উত্তরাধিকার সূত্রে নাই অথবা ডি আই টি বর্তমানে রাজউক অথবা কোন সরকারি সংস্থা কর্তৃক কোন আবাসিক জমি বা বাড়ী বরাদ্দ অথবা লীজ প্রদান করা হয় নাই এবং উক্ত ঘোষণা সম্পূর্ণ সত্য ও নির্ভুল। এরপর তিনি এম পি ও সভাপতি, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি,  বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ বিগত ২০০৫ সনের ৭ জুন তারিখে তার নামে গুলশান ও বনানী আবাসিক এলাকায় সাময়িক ভাবে বরাদ্দকৃত প্লটের বরাদ্দপত্র জারীর জন্য রাজউকের চেয়ারম্যান বরাবরে আবেদন করেন,  তার আবেদনের প্রেক্ষিতে রাজউক এর স্মারক নং রাজউক / এস্টেট / ৪৯ স্বাঃ তাং ০৮/০৬/২০০৫ খ্রীঃ মূলে আবদুল হাইয়ের নামে বনানী আবাসিক এলাকায় একটি প্লট শর্ত সাপেক্ষে সাময়িক ভাবে বরাদ্দ প্রদান করেন। পরে ২০০৫ সনের ২০ জুন মূলে বনানী আবাসিক এলাকার ৩ নং রাস্তার কমবেশি ৫ কাঠা আয়তন বিশিষ্ট ৯ নং প্লটটি তার নামে বরাদ্দ প্রদান করা হয়।

পরে অনুসন্ধানকালে রাজউক থেকে ৯ জন প্লট গ্রহিতার বিষয়ে রাজউকের সংশ্লিষ্ট থানা থেকে স্মারক নং ২৫.৩৯.০০০০.০১১.০৯.০৬৮(৩৩).১৬-৮১৮ তাং ২৮/০৩/২০১৬ খ্রীঃ মূলে তথা পাওয়া যায় এবং উক্ত ৯ জনের নাম আইডি নং ও প্লটের নাম এবং তাদের স্ত্রী, পুত্র,কন্যাদের নাম ও আইডি নং প্রদান করা হয়। রাজউকের উক্ত তথ্যপত্রে উল্লেখ করা হয় যে, বর্ণিত ৯ জনের মধ্যে (১) জামিলা খাতুন,  জনাব মোঃ আবদুল হাইয়ের স্ত্রী এর বারিধারা K-13- 33) (২)  জিয়াউল মুজিব ( মিসেস সেলিমা রহমানের ছেলে)  এর প্লট নং নিকুঞ্জ -১ ( Niki-103-2)এই দুটি বরাদ্দের তথ্য আজ পর্যন্ত এন্ট্রিকৃত তথ্যের মধ্যে পাওয়া গেছে।  বাকীদের নামে বরাদ্দের তথ্য পাওয়া যায়নি।

মোঃ আবদুল হাইয়ের স্ত্রী মিসেস জামিলা খাতুন ১৯৮৭ সনের ১২ এপ্রিল তারিখে তার নামে বরাদ্দকৃত প্লটটি মনোয়ার হোসেনের নিকট দলিল নং ৫৫২৫ মূলে বিক্রয় করেন।

মোঃ আবদুল হাই তথ্য গোপন করে হলফনামা দিয়ে অপরাধ মূলক বিশ্বাস ভঙ্গ করে সরকারি সম্পদ আত্মসাৎ করেছেন বলে প্রমাণিত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে দূদকের উপ- পরিচালক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন বাংলাদেশ দন্ডবিধি আইনের ৪০৯ এবং দূর্ণীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) মতিঝিল থানার মামলা নং ১৩, তারিখ ৯/১১/২০১৬ ইং দায়ের করেন। পরে একই উপ- পরিচালক তদন্ত করে ২০১৭ সনের ২৮ নভেম্বর অভিযোগ পত্র দাখিল করেন। মামলাটি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত নং ৮ এ বিচারাধীন আছে। আসামী পক্ষে চার্জ গঠনের বিরুদ্ধে অত্র ফৌজদারি মিস মোকদ্দমাটি দায়ের করেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর