channel 24

সর্বশেষ

  • জব্দ করা ইয়াবা নিজেদের মধ্যে বণ্টন করে নেয়ায় ৫ পুলিশ সদস্য রিমান্ডে

  • আসামিকে ছেড়ে দিয়ে জব্দ করা ইয়াবা বণ্টন করে নেয়ার ঘটনায়...

  • রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানার মামলায় ৫ পুলিশ সদস্য রিমান্ডে

  • রংপুর-৩ উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর মনোনয়ন প্রত্যাহার

  • এবার এনআরসি হবে ভারতের হরিয়ানায়; কংগ্রেসের সমর্থন

  • তদারকিতে গঠন করা হবে পর্যবেক্ষণ কমিটি

  • পুঁজিবাজারে সুশাসন নিশ্চিতে কোনো ছাড় নয়: অর্থমন্ত্রী...

  • ড. কালাম স্মৃতি এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ডস গ্রহণ করলেন প্রধানমন্ত্রী...

  • বাংলাদেশের জনগণের প্রতি উৎসর্গ করলেন পুরস্কারটি

  • দলের যেই হোক, অপকর্ম করলে কোনো ছাড় নয়: ওবায়দুল কাদের...

  • দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিআরটিসিতে দরকার নেই

  • হাজার চেষ্টা করেও দুর্নীতি ঢেকে রাখতে পারছে না সরকার: মির্জা ফখরুল

  • ধানমণ্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সম্পাদকের শ্রদ্ধা

  • ব্যক্তি হতে পারে, ছাত্রলীগ আদর্শচ্যুত হতে পারে না: নাহিয়ান জয়

  • ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে খুলনা মেডিকেলে শিশুর মৃত্যু

  • নীলফামারীর পলাশবাড়িতে ট্রেনে কাটা পড়ে মা ও শিশুর মৃত্যু

  • তৃতীয় ও চতুর্থ টি টোয়েন্টির জন্য বাংলাদেশ দল: সাকিব...

  • মুশফিক, মাহমুদুল্লাহ, সাব্বির, মোসাদ্দেক, লিটন, আফিফ...

  • তাইজুল, রুবেল, শফিউল, মোস্তাফিজ, সাইফুদ্দিন...

  • নাঈম শেখ, আমিনুল বিপ্লব ও নাজমুল হোসেন শান্ত...

  • বাদ পড়েছেন সৌম্য, ইয়াসিন আরাফাত ও শেখ মেহেদী হাসান

৬ বছরেও ফেরত আসেনি ৬টি গার্মেন্টসের ১৩ লাখ ডলার

৬ বছরেও ফেরত আসেনি ৬টি গার্মেন্টসের ১৩ লাখ ডলার

দীর্ঘ ৬ বছরেও সুরাহা হয়নি যুক্তরাষ্ট্র থেকে চট্টগ্রামের ৬টি গার্মেন্টস কারখানার ১৩ লাখ ৩৬ হাজারের বেশি মার্কিন ডলার ফেরত না আসার ঘটনার। এরই মধ্যে বন্ধ হয়ে গেছে ৪টি কারখানা। যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত রফতানিকারকদের পক্ষেই রায় দিয়েছে। তাই টাকা উদ্ধারে বাংলাদেশ দূতাবাস বা কমার্শিয়াল কাউন্সিলর জোরালো ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

২০১৩ সালে যে ডি ই অ্যাসোসিয়েট নামে যুক্তরাষ্ট্রের একটি প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের ৬টি তৈরি পোশাক কারখানাকে ১৩ লাখ ৩৬ হাজার ১শ ২৬ মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্যের ক্রয় আদেশ দেয়। তবে সময়মতো না পৌঁছার অজুহাতে পণ্যগুলো গ্রহণ না করার কথা জানায় প্রতিষ্ঠানটি। অথচ ট্র্যাক রিপোর্ট বলছে, সব পণ্যই খালাস নেয়া হয়েছে।

আমদানিকারক টাকা না পাঠানোয় এক পর্যায়ে রফতানিকারক ৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪টিই ব্যবসা গুটিয়ে নিতে বাধ্য হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের দাবী, ফ্রেইট ফরওয়ার্ডার, শিপিং লাইন আর আমদানিকারক যোগসাজস করে অর্থ আত্মসাত করতেই নাটক সাজিয়েছে। তবে ছয়বছর হয়ে গেলেও এর কোন সুরাহা হয়নি। যদিও ফ্রেইট ফরওয়ার্ডারদের জন্য বাফার নেতারা এজন্য দোষ চাপাচ্ছেন শিপিং লাইন আর আমদানিকারকের ওপর।  

এক্ষেত্রে মাস্টার বিএল-এ মূল রফতানিকারকের নাম না থাকা আর ব্যাংকের ছাড়পত্র ছাড়া মালামাল খালাসের মাধ্যমেই বড় অনিয়ম হয়েছে বলে মত  ব্যাংকারদের। আর বিজিএমইএ বলছে, এ ধরনের সংকট লাঘবে বিদেশে সরকারের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের তৎপর হওয়া জরুরি।   

এর আগে ২০১১ সালে লিলিপুট নামের ভারতীয় একটি প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ৩ মিলিয়ন ডলারের প্রতারণায় বন্ধ হয়ে যায় চট্টগ্রামের ৩টিসহ ২৪টি গার্মেন্টস কারখানা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর