channel 24

সর্বশেষ

  • কোচিং বাণিজ্য: উইলস লিটল স্কুলের ৩০ শিক্ষককে দুদকের শোকজ

  • নাটোরের বাগাতিপাড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের নিহত ৩

  • রোহিঙ্গা ইস্যুর সমাধান দীর্ঘায়িত হলে বাংলাদেশ সমস্যায় পড়বে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  • এসএসসি ও সমমান পরীক্ষাকালীন কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে: শিক্ষামন্ত্রী

  • জামায়াত ও যুদ্ধাপরাধীর সন্তানরা যেন সরকারি চাকরি না পায়...

  • তার জন্য আইন করতে হবে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

  • সমাজে ব্যাধির মতো ছড়িয়ে গেছে দুর্নীতি: প্রধানমন্ত্রী...

  • সব অপরাধ দমনে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে তৎপর থাকার নির্দেশ

  • ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে সাংবাদিকদের...

  • উদ্বেগের বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করছে সরকার: তথ্যমন্ত্রী

  • রিজার্ভ চুরি: চলতি মাসেই নিউইয়র্কে মামলা- অর্থমন্ত্রী

  • হলি আর্টিজান মামলার আসামি জঙ্গিনেতা মামুন ৫ দিনের রিমান্ডে

  • ডিপিডিসির নির্বাহী পরিচালক রমিজ উদ্দিন সরকার ও...

  • তার স্ত্রীর সম্পদের হিসাব দিতে দুদকের নোটিশ

বছরের শুরুতেই ভাড়াটিয়াদের বাড়তি বাড়ি ভাড়ার চাপ

বছরের শুরুতেই ভাড়াটিয়াদের বাড়তি বাড়ি ভাড়ার চাপ

সারি সারি বাড়ি দেখে সার বাধা সৈন্যের মতো মনে হয়। বাড়িগুলোর বিভিন্ন আয়তনের খুপরি ঘরের বাসিন্দাদের সব পরিচয়ের বাইরে আছে আরও একটি পরিচয় ভাড়াটিয়া।

নতুন বছর অনেকের জন্যই স্বস্তি নিয়ে আসেনি। বিশেষ করে রাজধানীতে যারা ভাড়াটিয়া তাদের জন্য তো বটেই। এলাকাভেদে পাঁচশো থেকে পাঁচহাজার টাকা পর্যন্ত ভাড়া বাড়িয়েছেন বাড়ি মালিকরা। এমনিতেই বেতনের সিংহভাগ চলে যায় বাড়িভাড়ার পেছনে। সেখানে এই বর্ধিত ভাড়া মরার ওপর খাড়ার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে ভাড়াটিয়াদের জন্য।

ব্যাংকার রাসেল আহমেদ এমনি একজন ভাড়াটিয়া। দশ বছর ধরে আছেন তিলত্তমা নগরীতে। আর সবার মতোই বেঁচে আছেন বাসা খোঁজা, বদল, বছর বছর ভাড়া বাড়ানোর ঝক্কি সামলে।

জামায়াতকে নিয়ে নির্বাচনে যাওয়া ভুল ছিলো: ড. কামাল

আহমদ শফির বক্তব্যে শিক্ষাবিদদের ক্ষোভ, খণ্ডিত ভাষণ প্রচারের অভিযোগ

রাসেল আহমেদ বলেন, বাড়িয়ালারা একপাক্ষিক ভাবেই তাদের ভাড়া আমাদেরকে বলে দেয় আর সেটাই আমাদের মেনে নিতে হয়। আবার প্রতি বছর বছর তারা তাদের ইচ্ছা মতই ভাড়া বাড়িয়ে নিচ্ছে, এবং সে ক্ষেত্রে আমাদের তেমন কোন বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ নেই। যার ফলে আমাদের বেতনের একটা বড় অনশই চলে যাচ্ছে বাড়িয়ালাদের পেছনে।

রাজধানীতে এলাকাভেদে বছর শেষে ৫০০ থেকে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত ভাড়া বাড়ান বাড়ির মালিকরা। কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে কোথাও আবার বছরের মাঝখানে ভাড়া বাড়ানোর নজিরও আছে। আয়ের সাথে সামঞ্জস্য না রেখে ভাড়া বাড়ানোর এই যাতাকলে চিড়ে চ্যাপ্টা ভাড়াটিয়ারা।

ভাড়াটিয়া পরিষদের সভাপতি বাহরানে সুলতান বাহার বলেন, তাদের জায়গাটা পরিষ্কার না যে বাড়ীয়ালারা যে ভাড়া বাড়ায়, কত টাকা বাড়াতে হবে, কোথায় আইন আছে, আইনটাইন কিছুই জানে না তারা।

তবে বাড়ি মালিকরা সরকারের ওপরই দায় চাপালেন। তারা বলছেন প্রতি বছর পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ফলেই বেড়ে যায় বাড়ি ভাড়া।

বাড়ির মালিক হাফিজুর রহমান বলেন, পানি, বিদ্যুৎ, সিটি কর্পোরেশন প্রভৃতির বিল যখন বাড়ানো হয়, তখন অধিক হারে যখন টাকাটা দিতে হয় আর সে সময় ভারাটা বাড়ানো যুক্তিসঙ্গত।

ভোক্তা অধিকার সংগঠন ক্যাবের হিসাবে গেলো ২৫ বছরে রাজধানীতে বাড়ি ভাড়া বেড়েছে প্রায় চারশ শতাংশ। অথচ একই সময়ে নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে প্রায় অর্ধেক। ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক, অ্যাডভোকেট হু,মায়ন কবির ভুইয়া বলছেন, দুর্বল আইনের সুযোগ নিয়েই নৈরাজ্য চালাচ্ছেন বাড়ি মালিকরা।
 
অবস্থার উন্নয়নে বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ আইন সংস্কারসহ নিম্ন ও মধ্যবিত্তদের জন্য সরকারী উদ্যোগে ফ্ল্যাট তৈরীর পরিকল্পনা গতিশীল করার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

চ্যানেল 24 বিশেষ খবর