channel 24

সর্বশেষ

  • আজ ২৬ শে মার্চ; মহান স্বাধীনতা দিবস...

  • জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা...

  • ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা...

  • সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকমুক্ত দেশ গড়ার প্রত্যয় প্রধানমন্ত্রীর

  • গণতন্ত্র হরণের মাধ্যমে স্বাধীনতার চেতনা ভূলুন্ঠিত করা হয়েছে: ফখরুল

  • ঐক্যবদ্ধ থাকলে জনগণকে কেউ অধিকারবঞ্চিত করতে পারবে না: ড. কামাল

  • কুষ্টিয়ায় স্বাধীনতা দিবসে শ্রদ্ধা জানানো শেষে জেলা বিএনপির...

  • সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ ১১ জনকে আটকের অভিযোগ

  • মগবাজারে মনোয়ারা হাসপাতালে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে ২ শ্রমিকের মৃত্যু

মালিবাগে দুই শহীদের স্মৃতিস্তম্ভের পাশে ডাস্টবিন নির্মাণে ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা

মালিবাগে দুই শহীদের স্মৃতিস্তম্ভের পাশে ডাস্টবিন নির্মাণে ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা

রাজধানীর মৌচাক মোড়ে মুক্তিযুদ্ধের প্রথম ও শেষ শহীদের সমাধিস্থলের পাশে, স্থায়ী ডাস্টবিন নির্মাণের প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। জুমার নামাজের পর সহস্রাধিক মানুষ রাস্তায় নেমে আসেন। গত বছর এই ডাস্টবিন নির্মাণ শুরু করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। কিন্তু বারবার তাগাদা দিয়েও কোনো ফল আসেনি। যদিও এখন কর্তৃপক্ষ বলছে, আলোচনার মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধান করা হবে।

রাজধানীর অন্যতম ব্যস্ত এলাকা মৌচাক মোড়। মালিবাগ রেলগেট থেকে মৌচাকের দিকে আসার রাস্তার শেষে চোখে পড়বে এই স্মৃতিস্তম্ভটি। যেখানে শুয়ে আছেন একাত্তরের তেসরা মার্চ পাকিস্তানি হানাদারদের গুলিতে নিহত মুক্তিযুদ্ধের প্রথম শহীদ ফারুক ইকবাল এবং ১৭ ডিসেম্বর যুদ্ধ থেকে ফেরার পথে নিহত শেষ শহীদ তসলিম উদ্দিন। বর্তমানে রাস্তাটির নামকরণও করা আছে শহীদদের নামেই। 

২০০৮ সালে অবিভক্ত সিটি করপোরেশন স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করে দেয় দুই শহীদের নামে। কিন্তু গত বছর এর ৫০০ গজের মধ্যেই একটি বৃহত্তম ডাস্টবিন নির্মাণ শুরু করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। আনুষ্ঠানিক ভাষায় যাকে বলে এসটিএস অর্থাৎ সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন। যার শুরু থেকেই এটির প্রতিবাদ করে আসছে শহীদদের পরিবার ও এলাকাবাসী। গত বছর ডিসেম্বরে এ নিয়ে মেয়রের কাছে চিঠিও দেন শহীদ তসলিমের ছোট ভাই।

জুমার নামাজের পর প্রায় ১ হাজার মানুষ মানববন্ধন করেন এসটিএস নির্মাণের প্রতিবাদে। এর আগে গত ৫ জানুয়ারি একই দাবিতে মানববন্ধনন করেন তারা। কিন্তু সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে কোনো ইতিবাচক সাড়া না আসায় আবারও রাস্তায় নেমেছেন শহীদদের স্বজনরা।

মানবন্ধন থেকে অভিযোগ করা হয়, দুই শহীদের অবমাননা হবে ডাস্টবিন নির্মাণের ফলে। বিষয়টি নিয়ে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী বললেন, নগরবাসীর জন্যই কাজ করে নগরভবন। কারো অসুবিধা হলে সমাধানে চেষ্টা করা হবে।

তবে, দ্রুত স্থায়ী ডাস্টবিন শহীদদের স্মৃতিস্তম্ভের পাশ থেকে না সরানো হলে আরও কঠোর অবস্থানে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন স্থানীয়রা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর