channel 24

সর্বশেষ

  • বিশ্বকাপে বাংলাদেশর শুভেচ্ছাদূত আব্দুর রাজ্জাক

  • বিশ্বকাপে সাকিব হতে পারে প্রতিপক্ষের জন্য ভয়ঙ্কর: রিকি পন্টিং

  • চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরলেন রাষ্ট্রপতি

  • বৃষ্টি বাধায় বাংলাদেশ-পাকিস্তান প্রস্তুতি ম্যাচ পরিত্যক্ত

  • 'আদর্শিক ও রাজনৈতিকভাবে জঙ্গিবাদকে মোকাবিলা করতে হবে'

  • শূন্য থেকে শুরু; এখন ২শ' বিঘা জমিতে গড়া বাগানের মালিক আলফাজুল

  • কক্সাবাজারে দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে শিক্ষার্থী নিহত

  • কক্সবাজারে জেলেদের সহায়তার দাবিতে মানববন্ধন

  • ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রির শেষদিনেও পিছু ছাড়েনি ভোগান্তি

  • বান্দরবানে বন্য হাতির আক্রমণে নিহত ১

  • ফটোশুট ও গেমসে মাতলো সাকিব-তামিম-মুশফিকরা

  • এয়ারক্রাফ্ট ছিনতাই চেষ্টা নস্যাতে: ক্রুদের সম্মাননা জানালো বিমান

  • দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর হালদায় ডিম ছেড়েছে কার্প জাতীয় মাছ

  • খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে অপরাজনীতি না করার আহ্বান তথ্যমন্ত্রীর

  • নুসরাত হত্যা: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার অভিযোগ প্রমাণিত

দীর্ঘদিন নির্বাচন না হওয়ায় অকার্যকর ডাকসু এবং হল ছাত্র সংসদ

দীর্ঘদিন নির্বাচন না হওয়ায় অকার্যকর ডাকসু এবং হল ছাত্র সংসদ

দীর্ঘদিন নির্বাচন না হওয়ায় অকার্যকর হয়ে পড়েছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসু এবং হল ছাত্র সংসদ। কিন্তু প্রতি বছরই ভর্তির সময় এই দুই সংসদের খরচ বাবদ অর্থ নেয়া হচ্ছে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে। যদিও তারা জানেন না, সে টাকা কোথায় খরচ হচ্ছে। কর্তৃপক্ষ বলছে, উন্নয়ন খাতেই খরচ করা হচ্ছে এসব অর্থ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি বছরই যোগ হন নতুন শিক্ষার্থী। সংখ্যার হিসাবে চার হাজারের ওপরে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েব সাইট বলছে, বর্তমান শিক্ষার্থী প্রায় ৩৭ হাজার ৬৪ জন।

শিক্ষার্থীদের প্রত্যেককেই ভর্তির সময় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসুর জন্য ৬০ টাকা আর হল ছাত্র সংসদ বাবদ আরও ৬০ টাকা করে, মোট ১২০ টাকা দিতে হয়। সে হিসাবে এখন প্রতি ভর্তি বর্ষে এ খাতে নেয়া জমা হয়, চার লাখ ৮০ হাজার টাকা। কিন্তু যেজন্য এ টাকা নেয়া হচ্ছে, সেই দুই সংসদই অচল ২৮ বছর ধরে।

তারপরও কেন এ টাকা নেয়া হয়, তা জানেন না শিক্ষার্থীরা। এমনকী জানা নেই, কোথায় যাচ্ছে সে টাকা। তবে উপাচার্যের পাল্টা প্রশ্ন, ডাকসু নির্বাচন হচ্ছে না বলে কি টাকা খরচ হবে না? তার দাবি, শিক্ষার্থীদের উন্নয়ন খাতেই খরচ হয় পুরো টাকা।

যদিও নিয়মানুযায়ী ডাকসুর টাকা খরচ করতে হলে, নির্বাচিত ছাত্র নেতৃত্বের সমন্বয়ে উপাচার্য ও কোষাধ্যক্ষের বৈঠকে বাজেট পাস করা লাগবে। সাবেক এ দুই ভিপির মতে, নির্বাচন না দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এমন আচরণ এক ধরনের স্বেচ্ছাচারিতা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয় খবর