channel 24

সর্বশেষ

  • সাকিব আল হাসানের ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি

  • ব্যাংক কমিশন গঠনের প্রস্তাবকে নেতিবাচক বলছেন বিশ্লেষকরা

  • বিশ্বকাপের সর্বশেষ পয়েন্ট টেবিল

  • রামসাগর জাতীয় উদ্যানের তত্ত্বাবধায়কের বাড়িতে দুদকের অভিযান

  • পায়রায় কয়লা সরবরাহে ইন্দোনেশীয় কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি সই

  • উপজেলা নির্বাচনের শেষ দফার ভোট শুরু

  • মধ্যপ্রাচ্যে আরো ১ হাজার সেনা পাঠাবে যুক্তরাষ্ট্র

  • মৌলভীবাজারের মনু ও ধলাই নদী পাড়ের মানুষের অনিশ্চিত জীবন

  • সঠিক মান বজায় রেখে লবণ উৎপাদনের আহ্বান বিএসটিআই'র

  • আদালতে মোহাম্মদ মুরসির মৃত্যুতে প্রশ্নবিদ্ধ মিশরের বিচারব্যবস্থা

  • উপজেলা নির্বাচনের শেষ দফার ভোট আজ

  • কর্মবিরতি প্রত্যাহার করলো কলকাতায় আন্দোলনরত চিকিৎসকরা

  • গোপালগঞ্জে প্রতিবন্ধী নারী ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার ১

  • বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করলেন সাকিব

  • মাগুরায় আ. লীগের দুইগ্রুপের সংঘর্ষে আহত ২০

মুরগি খাওয়ার ফলে কাজ করবে না কোনও অ্যান্টিবায়োটিক!

মুরগি খাওয়ার ফলে কাজ করবে না কোনও অ্যান্টিবায়োটিক!

চিকেন ফ্রাই, চিকেন রোস্ট, চিকেন উইং, চিকেন নাগেটস এমন আরও কত মুখরোচক হাতে গরম পদ রয়েছে যেগুলি যখন তখন খেতে ইচ্ছে করে। ইউটিউব ঘেঁটে বা গুগল করে প্রতিদিন নিত্য-নতুন মুরগির সুস্বাদু রান্না শিখছেন আর বাড়িতেই বানাচ্ছেন। কিন্তু জানেন কি আপনি নিজেই মারাত্মক বিপদ ডেকে আনছেন?

অর্থাৎ, মুরগি খাওয়ার ফলে অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধে আর কোনও কাজ হবে না। অধিকাংশ অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধই শরীরে কোনও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঠেকাতে পারবে না। ফলে কোনও কারণে অসুস্থ হলে সেরে ওঠা খুব মুশকিল হয়ে পড়বে!

আসলে ইদানীং আমরা যত মুরগি খাই তার প্রায় সবই আসে কোনও না কোনও পোল্ট্রি খামার থেকে। আর প্রায় সব পোল্ট্রি খামারেই মুরগির স্বাস্থ্য দ্রুত বাড়াতে, বেশি মাংস পেতে মুরগির খাবারের সঙ্গে এক ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ দেওয়া হয়। এই অ্যান্টিবায়োটিকের প্রভাবে মানুষের শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধের কার্যক্ষমতা দিনে দিনে হ্রাস পেতে থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই ভাবে চলতে থাকলে একটা সময় অধিকাংশ অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধই শরীরে কোনও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঠেকাতে পারবে না।

৪.৫৩ কোটি টাকার লিপ আর্ট!

চিনির থেকেও বিপজ্জনক কৃত্রিম চিনি

সম্প্রতি লন্ডনের ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিজিম-এর চালানো একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে, পোল্ট্রি খামারে মুরগির খাবারের সঙ্গে উচ্চ মাত্রায় কোলিস্টিন নামের একটি অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হয়। তাই বাজারের প্রায় সব প্রকৃয়াজাত মুরগির মাংসেই উচ্চ মাত্রায় কোলিস্টিনের উপস্থিত রয়েছে। অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে ওয়ার্ল্ড হেল্থ অর্গানাইজেশনের যে বিধি-নিষেধ রয়েছে, তা যে কোনও ভাবেই মানা হচ্ছে না বলেও জানা যায় জার্নালে।

আর এর ফলেই অধিকাংশ অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধই সুপারবাগ বা বিশেষ ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যর্থ হচ্ছে।

দেশের পোল্ট্রি খামারগুলিতে কোলিস্টিনের যথেষ্ট ব্যবহার বন্ধ করতে ব্যবস্থা নিতে হবে দেশের খাদ্যসুরক্ষা বা স্বাস্থ্য রক্ষার দায়িত্বে থাকা জনপ্রতিনিধি বা কর্তাব্যক্তিদের। কিন্তু সরকারি ভাবে ব্যবস্থা গ্রহনের আগে আমরা নিজেরা একটু সতর্ক হলে বিপদ অনেকটাই এড়ানো সম্ভব।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর