channel 24

সর্বশেষ

  • সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ স্লোগানে...

  • আওয়ামী লীগের ইশতেহারে ২১ দফা অঙ্গীকার...

  • অতীতের ভুলভ্রান্তি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর

  • বিএনপির নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষণা করলেন মির্জা ফখরুল...

  • জাতীয় সংসদে উচ্চকক্ষ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি...

  • রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতায় ভারসাম্য আনাসহ ১৯ প্রতিশ্রুতি

  • নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না খালেদা জিয়া...

  • প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে রিট তৃতীয় বেঞ্চেও খারিজ

  • জামায়াতের ২২ নেতার প্রার্থিতা বাতিলে হাইকোর্টের রুল...

  • তিন কার্যদিবসের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে ইসিকে নির্দেশ

বাংলাদেশিদের জন্য খুললো সিকিম লাদাখের দুয়ার

বাংলাদেশিদের জন্য খুললো সিকিম লাদাখের দুয়ার

ভারতের সিকিম। রাজধানী গ্যাংটক। বাংলাদেশিদের জন্য আকাঙ্খিত এই পর্যটন এলাকা এতোদিন কার্যত বন্ধই ছিলো। এবার খুললো সেই বন্ধ দুয়ার। সহজ হলো দেশটির অন্যান্য সুরক্ষিত স্থানে ভ্রমণের অনুমতির প্রক্রিয়াও।

আগে বাংলাদেশিদের জন্য এসব সুরক্ষিত এলাকায় যেতে হলে প্রয়োজন হতো দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি। যা শুধু সময়সাপেক্ষ নয়, জটিলও ছিলো বটে। কিন্তু এখন থেকে ঢাকাস্থ ভারতীয় হাই কমিশনই সেই অনুমতি দিতে পারবে।

মঙ্গলবার (২০ নভেম্বর) সাংবাদিকদের সাথে মত বিনিময়ের সময় এই তথ্য জানিয়েছেন ভারতের হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রীংলা।

২০১৫ সালে পাঁচ লাখ বাংলাদেশিকে ভিসা দিয়েছিলো ভারত। ২০১৭ সালে যা প্রায় তিন গুন বেড়ে দাঁড়ায় ১৪ লাখে। আর এ বছর ২০ নভেম্বর পর্যন্ত সেই সংখ্যা ১৪ লাখ ৩০ হাজার। শুধু বেনাপোল-পেট্রাপোল দিয়েই এ বছর যাতায়াত করেছে ১২ লাখেরও বেশি পর্যটক।

কিন্তু ভারতের ১০টিরও বেশি সংরক্ষিত এলাকায় বাংলাদেশি পর্যটকদের ভ্রমণ ছিলো নিয়ন্ত্রিত। সংরক্ষিত এলাকার মধ্যে সিকিম ও কাশ্মীরের লেহ লাদাখ, অরুণাচলের ভ্রমণের জন্য চাহিদা থাকলেও, প্রক্রিয়ার জটিলতার কারণে তা ছিলো প্রায় অসম্ভব।

ভিসার সহজীকরণের জন্য ঢাকায় পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ভিসা সেন্টার খুলেছে ভারত। যা গিনেজ ওয়ার্ল্ড বুকে স্থান পাওয়ার জন্য চেষ্টা করছে ভিসার জন্য পাসপোর্ট প্রক্রিয়ার দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া।

পর্যটকদের সুবিধার্থে এখন থেকে ভারতে প্রবেশ ও বেরিয়ে যাওয়ার পোর্টের সংখ্যাও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতীয় হাইকমিশন।

হর্ষ বর্ধন শ্রীংলা বলেন, ২৪টি এয়ারপোর্ট, বেনাপোল-পেট্রাপোল, দর্শনা-গেদে রুটের বাইরেও, অতিরিক্ত দুটি পোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবে বাংলাদেশিরা।

ভারতীয় হাইকমিশনার গত দশ বছরে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের অনন্য উচ্চতার কথা উল্লেখ করে বলেন, দুই দেশের স্বার্থেই এই সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। আলোচনায় আসন্ন নির্বাচনের প্রসঙ্গ উঠলে তিনি বলেন, নির্বাচন বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন বিষয়। বাংলাদেশের জনগনই সেই সিদ্ধান্ত দেবে।

তবে, ভারতীয় হাইকমিশন সূত্র জানাচ্ছে, বাংলাদেশে একটি গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনই দেখতে চায় ভারত। বন্ধু দেশ হিসেবে সাম্প্রতিক বছরগুলোর সম্পর্কের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা দেখতে আগ্রহী দিল্লি। আঞ্চলিক সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের সাথে একতালে কাজ করতে চায় ভারত। সাম্প্রদায়িক কোনো শক্তির কোনো পুনুরত্থান ভারতকেও দুশ্চিন্তায় ফেলবে।

সূত্রটি জানাচ্ছে, বাংলাদেশের সব গণতান্ত্রিক দলের সাথে ভারতের সুসম্পর্ক আছে। কিন্তু জামায়াতে ইসলামীসহ সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে সুস্পষ্টভাবেই অবস্থান আছে দেশটির। যে দল বাংলাদেশের অস্তিত্ব স্বীকার করে না, তাদের এবং তাদের অংশীজনের সাথে কোনো যোগাযোগ রাখবে না দেশটি। দিল্লির ভাবনা, বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধীদের সাথে সম্পর্ক মানেই মুক্তিযুদ্ধের অবমাননা।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর