channel 24

সর্বশেষ

  • সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ স্লোগানে...

  • আওয়ামী লীগের ইশতেহারে ২১ দফা অঙ্গীকার...

  • অতীতের ভুলভ্রান্তি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর

  • বিএনপির নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষণা করলেন মির্জা ফখরুল...

  • জাতীয় সংসদে উচ্চকক্ষ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি...

  • রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ক্ষমতায় ভারসাম্য আনাসহ ১৯ প্রতিশ্রুতি

  • নির্বাচনে অংশ নিতে পারছেন না খালেদা জিয়া...

  • প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে রিট তৃতীয় বেঞ্চেও খারিজ

  • জামায়াতের ২২ নেতার প্রার্থিতা বাতিলে হাইকোর্টের রুল...

  • তিন কার্যদিবসের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে ইসিকে নির্দেশ

সারাক্ষণ মোবাইলে খুটখাট ডেকে আনছে ভয়াল অসুখ

সারাক্ষণ মোবাইলে খুটখাট ডেকে আনছে ভয়াল অসুখ

আজকাল বাইরে বের হইলেই দেখা যায় মাথা নিচু করে প্রায় সবাই মোবাইল ফোন দেখছে। পা রাস্তায়, হাঁটার বেগ সামান্য কম, ঘাড় নিচু আর চোখ মোবাইল ফোনে।

শুধু পথেঘাটেই নয়, বাসে-ট্রেনে-ঘরোয়া আড্ডায়-অফিসে সর্বত্রই ঘাড় গুঁজে মোবাইলের কি-প্যাডে টাইপ নয়তো নেট সার্ফ। এটাই এখন জীবনচর্চায় পরিণত হয়েছে। আর তার হাত ধরেই নতুন অসুখ হানা দিচ্ছে ঘরে ঘরে, চিকিৎসাবিজ্ঞান যার নাম দিয়েছে ‘টেক্সট নেক’।

ঘাড় গুঁজে টেক্সট বা নেট সার্ফ করে যাওয়ার অভ্যাস কতটা বিষ ছড়িয়েছে মানবশরীরে তা নিয়ে ভারতের মহারাষ্ট্রের ‘সাঞ্চেতি ইনস্টিটিউট কলেজ অব ফিজিওথেরাপি’ একটি সমীক্ষা চালায়। তার রিপোর্ট হাতে আসতেই শঙ্কার মেঘ দেখছেন চিকিৎসকরা। ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে নানা বয়সের তিন শতাধিক মানুষের উপর সমীক্ষা চলে। সমীক্ষায় প্রকাশ, এদের মধ্যে ৮ শতাংশই এই অসুখের শিকার। ৩৫ শতাংশ এই অসুখের কথা জেনেও সচেতন নয়। আর ২১ শতাংশ একেবারে অসুখের দোরগোড়ায় এসে হাজির হয়েছেন।

এই অসুখে মেরুদণ্ড চিরতরে বেঁকে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, শুধু তাই-ই নয়, ঘাড়-গলার হাড় ওস্নায়ুর উপর চাপ পড়ে তাচিরতরে ঝুঁকিয়ে দিতেও পারে। এখনই সাবধান না হলে এই অসুখ পঙ্গুত্বও ডেকে আনবে বলে মত অস্থিরোগ বিশেষজ্ঞরা।

তাঁদের মতে, এই অসুখের আবিষ্কার পশ্চিমের দেশগুলিতে, আশির দশকে, এ দেশে মোবাইল আসার অনেক আগেই। কিন্তু মোবাইলের অতিরিক্ত ব্যবহার, সারা ক্ষণ ঘাড় নিচু করে স্ক্রিনের দিকে চোখ, এ সব উপসর্গ দেখে এই অভ্যাসের জেরে হওয়া অসুখকে ‘টেক্সট নেক’ নামেই ডাকা হচ্ছে।

আট থেকে আশি সারা ক্ষণ খুটখুট করে চলেছেন মোবাইলে, কোনও কাজ না থাকলে গেমস। গেমস শেষ হলে দরকারি কাজ। ফোন নিয়ে এই চক্রাকার ব্যস্ততার জেরে প্রচণ্ড চাপ পড়ছে ঘাড় ও গলায়। সোজা অবস্থায় মেরুদণ্ডকে কোনও বাড়তি ওজন বহন করতে হয় না। কিন্তু যখনই ঘাড় ও গলা ঝুঁকে যায় ততই স্পাইনাল কর্ডে চাপ পড়ে ও ঘাড়-গলাকে বাড়তি ওজন বইতে হয়। যার সরাসরি প্রভাব পড়ে মেরুদণ্ডে।

শরীর কত ডিগ্রি সামনের দিকে ঝুঁকছে তার উপর নির্ভর করবে ঘাড় ও গলা কতটা ওজন বইবে। মাথা নিচু করে মোবাইল ঘাঁটার সময় ঘাড় মোটামুটি ২০ থেকে ৩০ ডিগ্রি ঝোঁকে। এতে ঘাড়ের উপর প্রায় ৩৫ থেকে ৫৫ পাউন্ড ভার চাপে। এই অতিরিক্ত ওজন দিনের পর দিন বয়ে বেড়াতে কষ্ট হয় মেরুদণ্ডের। দীর্ঘ দিন এমন ভার বইতে বইতে এক সময় সামনের দিকে চিরতরে ঝুঁকে যায় মেরুদণ্ড, কুঁজো হওয়া থেকে শুরু করে ঘাড় আর সোজা করতে না পারা, গলা ও ঘাড়ে প্যারালাইসিস— এমন নানা অসুখে গিয়ে শেষ হয় এই টেক্সট নেক।

তা হলে উপায়?

♦  চিকিৎসকদের মতে, এই অসুখ সারাতে গেলে একটাই উপায়। যে কোনও ভাবেই মোবাইল ফোনের ব্যবহারে রাশ টানুন। নইলে বয়সের সঙ্গে সঙ্গে এ অসুখ থাবা বসাবে যে কোনও সময়।

♦  মাথা হেঁট করে নয়, হাত সামান্য তুলে চোখের সমান্তরালে এনে মোবাইল দেখুন।

♦  একটানা ১৫ মিনিটের বেশি মোবাইল ঘাঁটবেন না। নিয়ম মেনে কঠোর হন এই ক্ষেত্রে। 

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর