channel 24

সর্বশেষ

  • বনানী কবরস্থানে শ্রীলঙ্কায় নিহত শিশু জায়ানের দাফন সম্পন্ন

  • লন্ডনে অর্থপাচার মামলায় তারেক রহমানের বন্ধু ব্যবসায়ী...

  • গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের ৭ বছরের কারাদণ্ড; ১২ কোটি টাকা জরিমানা

  • শ্রীলঙ্কা ট্র্যাজেডি: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৫৯; আটক ৫৮...

  • নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হবে: প্রেসিডেন্ট...

  • ক্রাইস্টচার্চের ঘটনার প্রতিশোধ নিতেই শ্রীলঙ্কায় হামলা...

  • এমন কোনো গোয়েন্দা তথ্য ছিল না: নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী

  • মানবতাবিরোধী অপরাধ: নেত্রকোণার সোহরাব ফকিরসহ ২ জনের মৃত্যুদণ্ড..

  • একাত্তরের গণহত্যার স্বীকৃতি দিতে বিশ্বসম্প্রদায়ের প্রতি...

  • আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের আহবান

  • পাবনায় ৩ পুলিশ হত্যা মামলায় ৮ জনের যাবজ্জীবন; খালাস ৩

  • রাজধানীর নিউমার্কেট মোড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত...

  • সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের আজও অবস্থান; যান চলাচল বন্ধ

  • চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া যত্রতত্র অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধ চেয়ে রিট

ঘাড় ও কোমর ব্যথায় করণীয়

ঘাড় ও কোমর ব্যথায় করণীয়

জীবন-জীবিকার প্রয়োজনে আমাদের অফিস বা ব্যবসা ক্ষেত্রে দীর্ঘক্ষণ চেয়ারে বসে থাকতে হয়। এই চেয়ারে বসে থাকার ফলে আমাদের ভুগতে হয় নানা সমস্যায়। তার মধ্যে সবচেয়ে ক্ষতিকর ও দীর্ঘমেয়াদি সমস্যা হলো কোমর ও ঘাড় ব্যথা। বসে থাকার ফলে আমাদের ঘাড় পিঠ বা কোমরের মাংসপেশিগুলো স্থবির হয়ে যায়। ফলে সামান্যতেই ঘাড়ে বা কোমরে টান লাগে এবং ব্যথা শুরু হয়।

স্বাভাবিক ভাবেই চেয়ারে বসার সময় আমরা কিছুটা সামনের দিকে ঝুঁকে বসি। আমাদের কোমরের যে মেরুদন্ড  আছে, তা কিন্তু সরল রেখার মতো সমান বা সোজা নয়। মেরুদন্ড  অনেকগুলো ছোট হাড়ের সমন্বয়ে তৈরি। এই হাড়গুলোর মাঝখানে আবার রয়েছে নরম জেলির মতো ডিস্ক যা হাড়ের মধ্যে ঝাঁকুনি প্রতিহত করে ও পুরো মেরুদন্ডকে ফ্লেক্সিবল করে। আমরা যখন দীর্ঘক্ষণ সামনের দিকে ঝুঁকে বসে থাকি, তখন আমাদের মেরুদন্ডের এই ডিস্কগুলোতে অনেক চাপ পড়ে, সেই সাথে চাপ পড়ে মেরুদন্ডের আশেপাশের মাংসপেশি ও লিগামেন্টের ওপর। ডিস্কগুলো যেহেতু নরম, তারা এই অস্বাভাবিক চাপের দরুন আস্তে আস্তে স্ফিত হয়ে মেরুদন্ডের ভেতর থেকে শরীরের বিভিন্ন নার্ভের ওপর চাপ দেয়। আর এজন্য আমরা ব্যথা অনুভব করি। এই চাপের তারতম্য বা তীব্রতার ওপর ব্যথার ধরণ নির্ভর করে।

মনে রাখা প্রয়োজন, ব্যথা নিজে কোনো রোগ নয়, রোগের লক্ষণ। তাই কোনো ব্যথাকেই অবহেলা করা যাবে না। ব্যথার ওষুধ খেয়ে অল্প অল্প ব্যথা দমিয়ে রাখলে তা পরে তীব্র আকার ধারন করে আপনাকে আরও বেশি বিপদে ফেলে দিতে পারে। তাই ব্যথার কারণ নির্ণয়পূর্বক প্রযোজ্য চিকিৎসা; ইলেক্ট্রোথেরাপি, ম্যানিপুলেটিভ থেরাপি বা আইপিএম শুরু করা উচিত। আবার অফিসে কাজের ফাঁকে অল্প সময় বের করে যোগব্যায়াম করা যেতে পারে। অফিসের টেবিল-চেয়ারে বসেই এই ব্যায়াম করা সম্ভব। সাধারণ চেয়ারে কিছু বিশেষ ধরনের কুশন ব্যবহার করে মেরুদন্ড কে সোজা রেখে কোমর ও ঘাড় ব্যথা থেকে রক্ষা পাওয়া যেতে পারে।

শেষ কথা হচ্ছে, বেশিদিন কর্মক্ষম থাকতে হলে আমাদের অবশ্যই সামনে ঝুঁকে বসে কাজ করা থেকে বিরত থাকতে হবে। সব সময় কোমরের স্বাভাবিক বক্রতা বজায় রেখে বসতে হবে।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ

সর্বশেষ সংবাদ

লাইফস্টাইল খবর